মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ খ্রীষ্টাব্দ | ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

‘ চা ‘ – রফিকুল ইসলাম সরকার



চা কথা‌টি বল‌লে দু‌টো শব্দ ম‌নে আ‌সে আর তার এক‌টি হল চা অর্থাৎ চাওয়া বা চাই, আর অন্য‌টি হল মজাদার কোমল পানীয় চা। সভ্যতার বিকা‌শে কেন যেন দাবী দাওয়া সম্ব‌লিত চাওয়া ও কোমল পানীয় চা দু‌টোই বর্তমা‌নে বে‌শ গুরুত্বপূর্ণ। কারণ চা শ্র‌মিক‌দের দা‌বী দাওয়া নি‌য়ে যে আ‌ন্দোলন চল‌ছে তা‌তে সমর্থন সহ তা‌দের দা‌বি দাওয়ার পূর্ণ বাস্তবায়ন চাই পাশাপা‌শি তা‌দের দাবী দাওয়া পুর‌নে সফলতার খব‌রে চা‌য়ের চুমু‌কে চাঙ্গাও হ‌তে চাই।
চা শ্রমিকদের সমর্থনে বি‌শেষ ক‌রে
তা‌দের ন্যায্য মজুরি ও মানুষের মান‌বিক মর্যাদা নিশ্চিত করার দাবীকে সমর্থন ক‌রে ঢাকায় বামগনতা‌ন্ত্রিক দল সমু‌হের সংহতি সমাবেশও চল‌ছে।
ভয় হয় রাজ‌নৈ‌তিক মোড়‌কে চা শ্র‌মিক‌দের প্রকৃত দাবী আবার উ‌পে‌ক্ষিত না হয়। কারন রাজনী‌তিকর‌ণের না‌মে তা‌দের ন্যায্য দাবী দাওয়া ‌থে‌কে যেন তা‌দের‌কে ব‌ঞ্চিত না করা হয়।
বঙ্গবন্ধু দুঃখী মানু‌ষের কথা ভাব‌তেন ব‌লে তা‌দের‌কে ভোটা‌ধিকার প্র‌য়োগ সহ প্রাথ‌মিক দা‌বি দাওয়া পুরন কর‌লেও অদ্যাবি‌ধি তারপর তা‌দের সু‌যোগ সু‌বিধার আর কোন প‌রিবর্তন হয়‌নি।


‌ বর্তমা‌নে যেখা‌নে চা‌লের কে‌জি ৭০ টাকা সেখা‌নে একজন শ্র‌মিক দি‌নে কাজ ক‌রে মাত্র পায় ১২০ টাকা। তাও আবার শর্ত হল কমপ‌ক্ষে ২৪ কে‌জি পাতা উ‌ত্তোলন কর‌তে হ‌বে । না হ‌লে রে‌শিও হিসা‌বে যে কয় কে‌জি পাতা উঠা‌বেন তার প‌রিমা‌নে মজুরী পা‌বেন। কতটুকু অমান‌বিক একবার একটু ভাবুন তো।
বর্তমান আ‌ন্দোল‌নের ফ‌লে একজন শ্রমিকের ১২০ টাকা মজুরি বাড়িয়ে ১৪৫ টাকা করার কথা বলা হচ্ছে। এটাও কি মানবিক? কর্তমান বাজার মু‌ল্যে এটাও কি গ্রহনীয়।
ঢাকা বিশ্ব‌বিদ্যালয় পড়ুয়া চা শ্রমিক মায়ের ছেলে সন্তোষ রবিদাসের একটি লেখা সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপক আলোচনা তৈরি করেছে।
ছেলের পড়ালেখা চালিয়ে যাওয়ার জন্য চা শ্রমিক মায়ের জীবনযুদ্ধের গল্প সন্তোষ তুলে ধরেছেন তার লেখায়। তার লেখায় উঠে আসে চা শ্রমিকদের মানবেতর জীবন যাপনের করুন কা‌হিনী।
দেশে চা শ্রমিকরা এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে আন্দোলন করছে।
চা শ্র‌মিকগণের দাবীর প্রে‌ক্ষি‌তে ১৪৫ টাকা মজুরী বৃ‌দ্ধির ঘোষনা এ‌লেও বিষয়‌টি না মে‌নে চা শ্র‌মিকগণ তা‌দের আ‌ন্দোলন চা‌লি‌য়ে যাবার ঘোষনা অব্যাহত রে‌খে‌ছে ব‌লে খবর প্রকা‌শিত হ‌য়ে‌ছে।
এ‌দি‌কে স‌ন্তোষ র‌বিদা‌সের আ‌লো‌চিত লেখার জন্য তা‌কে অ‌নেক প্র‌তিষ্ঠান থে‌কে চাকুরীর অফার দেয়া হ‌চ্ছে। সে বিষ‌য়ে র‌বিদাস বলেন, ‘চাকরিটা আমার প্রয়োজন। কিন্তু এই মুহূর্তে চা শ্রমিকদের মজুরি যদি না বাড়ে তাহলে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির বাজারে চা শ্রমিকদের অনাহারে থাকতে হবে। আমি পোস্টটি দিয়েছিলাম আমার মাসহ সব চা শ্রমিকের করুণ অবস্থা সবার সামনে তুলে ধরার জন্য। আমি সবাইকে অনুরোধ করব, আমাকে চাকরি দিয়ে চা শ্রমিকদের ন্যায্য আন্দোলনটা যেন ভিন্নখাতে না নেয়া হয়।’
মজুরী বৈষ‌ম্যের পাশাপা‌শি চা
বাগানের শ্রমিকদের ছুটি বৈষম্য দূর করাও প্র‌য়োজন , প্র‌য়োজন রেশনের মান ও পরিমাণ বাড়ানোর। দরকার প্রতিটি চা বাগানে মানসম্মত চিকিৎসা কেন্দ্র, পর্যাপ্ত প‌রিমা‌নে খাবার পানি ও শৌচাগার স্থাপন।
প্র‌য়োজন চা শ্রমিকের সন্তানদের ভবিষ্যত জীবন নিশ্চিত করতে প্রত্যেক বাগানে প্রাথমিক স্কুল ও প্রত্যেক ভ্যালিতে উচ্চ বিদ্যালয় স্থাপনের।
দরকার চা শ্রমিকের শিক্ষিত সন্তানদের চাকরির সু‌যোগ সু‌বিধা বৃ‌দ্ধি এবং তা‌দের সব জাতি গোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক বিকাশ ঘটনোর জন্য যথাযথ পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন।
বৃ‌টিশ, ইষ্ট ই‌ন্ডিয়া কোম্পা‌নি কর্তৃকই এ‌দে‌শে প্রথম চা চাষ শুরু করা হলেও তা‌দের প্র‌তি‌ষ্ঠিত অ‌নেক নিয়মই চা বাগান সমু‌হে বিদ্যমান র‌য়ে‌ছে।
ট্রেড ইউ‌নিয়ন সহ সব রক‌মের শ্রম আইন এ‌দের জন্য প্র‌যোজ্য নয়। ‌নেই কোন পেনশন সু‌বিধা। উত্তরা‌ধিকার সু‌ত্রেও এ‌দের কোন সহায় সম্প‌ত্তি নেই।
চা শ্রকি‌দের নিজস্ব ভাষা ও সংস্কৃ‌তি থাক‌লেও তা‌দের নিজস্ব জা‌তি সত্তার প‌রিচয় নেই।
জা‌তির পিতা তা‌দের‌কে ভোটা‌ধিকা‌র স্বীকৃ‌তি দি‌লেও প্রকৃত স্বাধীনতা বা অর্থ‌নৈ‌তিক মু‌ক্তি তা‌দের এখ‌নো অ‌র্জিত হয়‌নি।
নী‌তি নির্ধারনী সহ বড় বড় প‌লি‌সি মি‌টিংএ চা দ্বারা আম‌ন্ত্রিত অ‌তি‌থিগণ সবাই আপ্যা‌য়িত হ‌লেও চা শ্র‌মিক‌দের জন্য আজো কোন নতুন নী‌তিমালা প্রব‌র্তিত হয় নি। হয়‌নি কোন নিয়‌মের প‌রিবর্তন। বাস্তবায়িত হয়‌নি মানবা‌ধিকা‌রের সার্বজনীন ঘোষনাও।
আজ‌কে যে আ‌ন্দোলন চল‌ছে সে আ‌ন্দোলন সফল ও সার্থক হোক। মানুষ, মানবতা ও মানবা‌ধিকা‌রের সার্বজনীন ঘোষনা চা শ্র‌মিক‌দের জীব‌নে বাস্তবা‌য়িত হোক এ প্রত্যাশায়।

লেখকঃ সুপ্তকূ‌ঁড়ি
(ছড়াকার, কবি, কলা‌মিস্ট, উন্নয়ন কর্মী)

(ফেসবুক থেকে সংগ্রহ)