শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জের পাত্রখোলা চা বাগানে সংঘর্ষ ॥ বসত ঘরে হামলা-লুটপাট আহত-৫



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট
মৌলভীবাজারে কমলগঞ্জে ন্যাশনাল টি কোম্পানীর মালিকানাধীন পাত্রখোলা চা বাগানে এক চা শ্রমিকের হাজিরা বন্ধ করাকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ, বসত ঘরে হামলা, লুটপাট ও ভাংচুরের ঘটনায় ৫ চা শ্রমিক আহত হয়েছে। এ ঘটনায় চা বাগানে বিবদমান দু’পক্ষের মাঝে চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে। উভয় পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে কমলগঞ্জ থানায় পৃথক মামলার প্রস্তুতি চলছে।
চা শ্রমিক ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পাত্রখোলা চা বাগানের বাজার লাইনের বাসিন্দা চা শ্রমিক রামিয়ার হাজিরা মঙ্গলবার থেকে বন্ধ করেন বাগান পঞ্চায়েত সভাপতি দেবাশীষ চক্রবর্তী শিপন। এ নিয়ে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে বাজার লাইনের আখড়ার সামনে রামিয়া কুর্মি কথা বলেন বাগান পঞ্চায়েত সভাপতি শিপনের সাথে। কথা বলার এক পর্যায়ে উভয়ের মধ্যে বাতবিতন্ডার হলে পঞ্চায়েত সভাপতির সাথে থাকা লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। সংঘর্ষে রামিয়া কুর্মি ও পঞ্চায়েত সভাপতির অনুসারী রাম রতন আহত হন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বাগান পঞ্চায়েত কতিপয় লোক হামলা চালায় চা শ্রমিক রামিয়ার বসত ঘরে। হামলায় মালা কুর্মি, প্রতাপ রাজগড়, রামিয়া কুর্মি আহত হন। আহতদের স্থানীয়রা উদ্ধার করে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। দু’পক্ষের সংঘর্ষ ও হামলার ঘটনায় পাত্রখোলা চা বাগানে উত্তেজনা দেখা দিলে মাধবপুর ইউপি চেয়ারম্যান পুষ্প কুমার কানু, ইসলামপুর ইউপি চেয়ারম্যান সুলেমান মিয়া, পাত্রখোলা চা বাগান ব্যবস্থাপক সামছুল ইসলাম সেলিম ও কমলগঞ্জ থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক (এসআই) জাহিদুল হক একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করেন। আলাপকালে চা শ্রমিক রামিয়া কুর্মি বলেন, হামলাকারীরা বসত ঘরের আসবাবপত্র তছনছ করে নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার লুটপাট করে নেয়।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে পাত্রখোলা চা বাগান পঞ্চায়েত সভাপতি দেবাশীষ চক্রবর্তী শিপন বলেন, রামিয়া কুর্মি দীর্ঘদিন ধরে কাজে না যাওয়ায় তার স্থলে অন্য লোক নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এতে সে ক্ষিপ্ত হয়ে লোকজন নিয়ে তার উপর হামলা চালায়। হামলায় তিনিও মাথায় আঘাত প্রাপ্ত হন। চা বাগান পঞ্চায়েত সভাপতির উপর হামলার ঘটনায় এ ঘটনায় বাগানের চা শ্রমিকদের মাঝে উত্তেজনা দেখা দিলে শত শত শ্রমিক রাস্তায় নেমে পড়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। রামিয়ার বাড়ির সীমার বেড়া ভাংচুর করা হলেও বসত ঘরে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাটের কোন ঘটনা ঘটেনি বলে জানান বাগান পঞ্চায়েত সভাপতি দেবাশীষ চক্রবর্তী শিপন। এ ঘটনায় বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যায় উভয় পক্ষ কমলগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।
কমলগঞ্জ থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক (এসআই) জাহিদুল হক বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যায় এ প্রতিনিধিকে জানান, এখন পর্যন্ত কোন মামলা হয়নি। বাগানের পরিস্থিতি বর্তমানে শান্ত রয়েছে।