বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

থানায় অভিযোগের পর প্রতিপক্ষের হুমকি ।। কমলগঞ্জে চুরির অভিযোগে শিশু হাবিবুরকে নির্যাতন



Tuhin Pic
শমশেরনগর সংবদদাতা ।।
পূর্ব শত্রুতার জের ধরে হাবিবুর (৯) নামে এক শিশুকে ডেকে নিয়ে মারধোর করে খুটির সাথে বেঁধে রাখার অভিযোগ উঠেছে। খবর পেয়ে মা, দাদী গিয়েও শিশুকে উদ্ধার করতে পারেননি। প্রায় এক ঘন্টা পর স্থানীয় ইউপি সদস্য শিশুকে উদ্ধার করে সামাজিকভাবে সমাধানের আশ্বাস দেন। এঘটনায় নির্যাতনকারীদের পক্ষে উল্টো মা বাবাসহ নির্যাতিত শিশুর উপর ইউনিয়ন আদালত ও থানায় ছাগল চুরির করেছে। সামাজিক সমাধা না হওয়ায় এক সপ্তাহ পর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শিশু নির্যাতনের লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে। গত শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর ইউনিয়নের নিত্যানন্দপুর গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে।
নির্যাতিত শিশুর পিতা দেলওয়ার হোসেন বলেন, তার ছেলে হাবিবুর রহমান (৯) ব্র্যাক পরিচালিত একটি বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র। শুক্রবার সকালে ছিটকা জাল তৈরীতে একটি চিকন টেটুয়া (স্থানীয় একটি বাঁশ) আনতে পাশের বাড়ির আলতা মিয়ার বাড়িতে যায়। বাড়ির এক মহিলা শিশুকে দিয়ে জমিতে কাজ করানোর পর পরিত্যক্ত একটি বাঁশের টুকরা নিয়ে যেতে বলেন। বাঁশের টুকরো নিয়ে যাওয়ার সময় আলতা মিয়ার ছেলে রাজু, আমিন ও মেয়ে হেলেন ও মিলন শিশুটিকে কিল ঘুষি মেরে ঘরের বারান্দার খুটির সাথে দঁড়ি দিয়ে বেধে রাখে। ঘটনার খবর পেয়ে শিশুর মা ও দাদী তাকে ছাড়িয়ে আনতে গেলে নির্যাতনকারীরা শিশুটিকে ছাড়েননি। পরবর্তীতে শমশেরনগর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড সদস্য তাজুদ আলী শিশুটির দঁড়ি খোলে ছাড়িয়ে আনেন। ইউপি সদস্য এ ঘটনার সামাজিক বৈঠক করে সমাধান করার কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, বৃহস্পতিবার থানায় অভিযোগ দিয়ে আসার পর নির্যাতনকারীরা ৭টি মোটরসাইকেল নিয়ে সন্ধ্যা রাতে তার বাড়িতে এসে দরজা-জানালায় ধাক্কা দিয়ে দেখিয়ে নেবে বলে হুমকি প্রদান করে।
শিশুটির বাবা দেলওয়ার হোসেন আরও বলেন, তিনি ইউপি সদস্যের সামাজিক বিচারের অপেক্ষা করে বৃহস্পতিবার রাতে কমলগঞ্জ থানায় গিয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। তিনি কমলগঞ্জ থানা থেকে বের হয়ে আসার সময় দেখেন নির্যাতনকারীরা উল্টো তাদের উপর অভিযোগ দিচ্ছে। এর আগে শমশেরনগর ইউনিয়ন গ্রাম আদালতেও একই অভিযোগ করেছে নির্যাতনকারীরা।
ঘটনা সম্পর্কে বৃহস্পতিবার অভিযুক্ত আমিন আলী বলেন, বাঁশ চুরির দায়ে শিশু হাবিবকে বেঁধে রাখা হয়েছিল। তবে তাকে কেউ প্রহার করেনি। শিশুটির উপর গ্রামে অনেক অভিযোগও রয়েছে। তাছাড়া এ ঘটনার পর শিশুর বাবা দেলওয়ার তাদের (আমিনদের) একটি ছাগল চুরি করে নেয়। সে জন্য তারা ছাগল চুরির অভিযোগ করেছে।
শমশেরনগর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য তাজুদ আলী বলেন, তিনি খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে খুটির সাথে বাঁধা অবস্থা থেকে শিশুটিকে ছাড়িয়ে আনেন। শিশুটির সবজি ক্ষেত নষ্ট করায় আমিন আলীর ছাগল খোয়াড়ে দিতে চেয়েছিলেন শিশুর বাবা দেলওয়ার বলেও ইউপি সদস্য জানান।
শমশেরনগর ইউপি চেয়ারম্যান জুয়েল আহমদ বলেন, শিশু হাবিবকে বেধে রাখার ও ছাগল দ্বারা সবজি ক্ষেত বিনষ্ট করায় ছাগল আটকিয়ে রাখার বিষয়ে সিএনজি অটোরিক্সা চালক দেলওয়ার মৌখিকভাবে তাকে অবহিত করেছিলেন। তাছাড়া বাবা মাসহ শিশুর উপর আইনয়ন আদালতে একটি অভিযোগ গ্রহনের সত্যতাও নিশ্চিত করেছেন ইউপি চেয়ারম্যান।
শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মতিউর রহমান বলেন, নির্যাতিত শিশুর পক্ষের অভিযোগ পেয়ে সরেজমিন তদন্ত করেছেন। এ ঘটনায় অভিযোগটিকে মামলা হিসাবে গ্রহন করা হবে বলেও তিনি জানান। উপ পরিদর্শক মতিউর রহমান আরও বলেন, অভিযুক্তরাও বাবা মাসহ নির্যাতিত শিশুর উপর ছাগল চুরির অভিযোগ করেছে।