বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জের নয়নাভিরাম কালিঞ্জি খাসিয়া পুঞ্জি



।। পিন্টু দেবনাথ ।।

একবার দেখিলে তোমায় বার বার দেখিতে ইচ্ছা জাগে ওগো প্রকৃতি। প্রকৃতি, তুমি যে প্রাণের স্পন্দন। অবারিত সবুজের প্রান্ত ছুঁয়ে আকাশের পাদদেশে হেলান দিয়ে বিশাল এলাকা জড়িয়ে অরণ্য দাঁড়িয়ে আছে সে অরণ্যের নামই কালিঞ্জি খাসিয়া পুঞ্জি। অপরুপ সৌন্দর্যে ভরপুর নয়নাভিরাম গভীর অরন্য ও পাহাড়ী জনপদের মাঝে খাসিয়াদের জীবনধারা অন্য কোন সম্প্রদায়ের তুলনায় আলাদা। নীরবে নিভৃতে বসবাস করছে সারি সারি দূগম পাহাড়ের উচু উচু টিলার মধ্যে।Pic-Po
মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুরবাজার থেকে আধা কিলোমিটার দক্ষিণে এসে পূর্ব দিকের আঁকা বাকা রাস্তা দিয়ে খাসিয়া কালিঞ্জি পুঞ্জি যাওয়া যায়। আদমপুর বাজার থেকে প্রায় ১২ কিলোমিটার দূরবর্তী কালিঞ্জি। কালিঞ্জি খাসিয়া পুঞ্জি যেতে হলে বিশেষ করে মোটর সাইকেলে যোগে গেলে ভাল হয়। কারণ কিছু দূর যেতেই রাস্তাটি ছোট হয়ে আসবে। কালিঞ্জি ঢোকার প্রক্কালে লাউয়াছড়া নামে একটি ছোট ছড়া বয়ে গেছে। ছড়াটি উভয় পাশে বিশাল উঁচু উঁচু পাহাড় দেখা যাবে। কারো মনের ভিতরে আতংক জন্ম নিতে পারে। আবার কারো মনে প্রফুল¬ আসবে। আতংক নেয়ার একটি কারণ হাতের নাগলে উঁচু পাহাড় ! ভয় হবার কারণ হতেই পারে। লাউয়াছড়ায় খালি পায়ে হাটিহাটি করলে অনুভূতিটা অন্যরকম মনে হবে।
ছোট মেঠো পথ দিয়ে যাত্রার সময় মনের ভিতর অন্যরকম অনুভূতি জন্ম নেয়। কারণ এতো গভীর অরণ্যে এভাবে আর কোনদিন যাওয়া হয়নি। এছাড়া মানুষজনের কোন সাড়া শব্দ নেই। বন্যপাখিদের মাঝে মাঝে দেখা যায়। ঝি পাখিদের উদবট শব্দ। তাদের আবাস্থল দিয়ে যেতে যেতে কখন যে পৌঁছে গিয়েছি কালিঞ্জি খাসিয়া পুঞ্জি টেরও পাইনি। তবে ভ্রমণ পিপাসুদের একটি সাবধান করে দেয়া উচিত একা বা ২/৩ জন না আসাই ভালো। কারণ এই গভীর অরণ্যে ৫/৭ জন ছাড়া অথবা পরিচিত কাউকে নিয়ে আসা ভালো। ছোট ছোট একাধিক পথ রয়েছে। এই পথগুলো প্রকৃতি মধ্যে গভীর অরণ্যে আর অন্ধকারও বটে এবং মানুষের সাড়া খুবই কম। যাই হোক দূর্গম অনেক পথ পাড়ি দিয়ে কালিঞ্জি পুঞ্জির হেডম্যান নিয়ন খের ইয়েম আমাদের সু-স্বাগতম জানিয়ে তাঁর আবাসস্থলে নিয়ে যান। সেখানে খানিকটা আলাপচারিতার পর কালিঞ্জি পুঞ্জিতে বসবাসকারী খাসিয়া সম্প্রদায়ের উঁচু উঁচু পাহাড়ে আবাসস্থল দেখতে বের হয়েছি। হাঁটি হাঁটি পা পা করে একটু সম্মুখে যেতেই দেখতে পেলাম মাটির ছিঁড়ি বেয়ে খুব উঁচুতে উঠতে হবে। ছিঁড়ি বয়ে উঠতে গিয়ে মনে হচ্ছে আর এক পা উঠলেই আকাশটাকে ধরে ফেলবো। এভাবে কয়েকটি ছিঁড়ি বয়ে ক্লান্ত হলেও মনের মধ্যে প্রচণ্ড জোর অনুভব করলাম। যদিও ক্লান্তি লেগেছে তবুও এরকম সৌন্দর্য্য এবং খাসিয়াদের জীবনধারা দেখে বুকের মধ্যে উচাটন জাগে। দূর্গম অরণ্যে পাহাড়ের পাদদেশে নিরবে নির্ভৃতে থেকে খাসিয়ারা জীবনযাপন করছে তা সত্যি ভাবার বিষয়। খাসিয়া পানের উপরই তাদের কর্মময় জীবন পরিচালনা করে। কালিঞ্জি পুঞ্জির হেডম্যান নিয়ন খের ইয়েম বলেন, যখন আবহাওয়া ও পরিবেশ অনুকূলে থাকে তখন পান ভালো হয়। আর আবহাওয়া বিরূপ হলে পান পচে নষ্ট হয়। উৎপাদন কম হয়। তখই খুবই কষ্টে চলতে হয়। আমাদের অন্যকোন পেশার সাথে সম্পৃক্ত নেই। খাসিয়া পানই আমাদের জীবন চলার একমাত্র ভরসা। কালিঞ্জি পুঞ্জিতে দীর্ঘ ৪/৫ ঘন্টা অবস্থান করে বিকেলের সূর্য পশ্চিমে গিয়ে জানান দিচ্ছে আমি আর বেশিক্ষণ নয়। তখনই আমরা বিদায় নিয়ে নিজ গন্তব্যে ছুটে আসতে লাগলাম। পিছনে রেখে এলাম মায়াময় অপরূপ স্মৃতি। যে স্মৃতি কালিঞ্জি খাসিয়া পুঞ্জির মানুষ এবং প্রকৃতি সাথে ভালবাসার সেতু বন্ধন তৈরি করেছি তা ভুলবার নয়। পুঞ্জি থেকে বের হয়ে কিছু দূর এসে আদমপুর বনবিট এলাকায় ঢুকে পড়লাম। সামাজিক বনায়নের বৃক্ষ সারি সারি ভাবে দাঁড়িয়ে আছে। শেষ বেলার পাখিদের গুঞ্জন ও সুরের মূর্ছনায় মনটি সত্যি পুলকিত হয়ে গেছে। আরেকটু সম্মুখে পাহাড়ের উপরে আদমপুর বনবিট অফিসে এলাম। চমৎকার অফিসের চারিদিকে প্রকৃতিতে সমৃদ্ধ। এখানে রয়েছে রেষ্ট হাউস। আদমপুর বনবিট এলাকা আর কালিঞ্জি খাসিয়া পুঞ্জি পর্যটকদের জন্য অন্যতম একটি আকর্ষীণ স্থান হতে পারে। আদমপুর বনবিট কর্মকর্তা নারায়ণ চন্দ্র দাস বলেন, এই এলাকাটি অত্যন্ত মনোমুগ্ধকর এবং পর্যটকদের জন্য আকর্ষীণ স্থান। সরকার যদি একটু সহযোগিতার হাত প্রসার করে এবং বনকে রক্ষা করা যায় তবেই প্রকৃতিতে সমৃদ্ধশালী বনবিট এলাকাটি চমৎকার আকর্ষীণ হতে পারে।
শুধু কালিঞ্জি খাসিয়া পুঞ্জি ও আদমপুর বনবিট নয়। কমলগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন পাহাড়ী দূর্গম এলাকা রয়েছে এবং পাহাড়ের নিচে কোণে লেক রয়েছে এগুলো সরকারী ভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করা হলে পর্যটকদের জন্য আকর্ষীণ স্থান হবে এবং সরকার এ স্থানগুলো থেকে রাজস্ব আয় করতে সক্ষম হবে।

লেখক : সম্পাদক, কমলকুঁড়ি পত্রিকা