শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মজুরী বৃদ্ধিসহ সাপ্তাহিক ছুটির দিনের মজুরী বাস্তবায়নের দাবীতে || কমলগঞ্জে মনু-ধলই ভ্যালির ২৩ চা বাগানের শ্রমিক প্রতিধিদের সভা



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ।।
চা শ্রমিকদের দাবীকৃত মজুরী বৃদ্ধি, সাপ্তাহিক ছুটির দিন রোববারের মজুরী প্রদানের দাবীসহ তা অবিলম্বে বাস্তবায়নের দাবীতে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে মনু-ধলাই ভ্যালির (অঞ্চলের) ২৩ চা বাগানের নির্বাচিত শ্রমিক প্রতিধিদের সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৩ আগষ্ট) বেলা তিনটায় কমলগঞ্জ পৌরসভার ভানুগাছ-মাধবপুর সড়কস্থ মনু-ধলাই ভ্যালির কার্যকরী পরিষদের কার্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের মনু-ধলাই ভ্যালির সভাপতি গোপাল নুনিয়ার সভাপতিত্বে ও কার্যকরী পরিষদের সাধারন সম্পাদক নির্মল দাস পাইনকার সঞ্চালনায় সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মাখন লাল কর্মকার। প্রধান বক্তা হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক রাম ভজন কৈরী। অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য রাখেন শিউ ধনী কূর্মী, চা শ্রমিক ইউনিয়নের অর্থ সম্পাদক পরেশ কালেঞ্জী, সাংগঠনিক সম্পাদক বিজয় হাজরা, গাইত্রী রানী রাজভর ও নির্মল দাস পাইনকা।
সভার প্রধান বক্তা চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক রাম ভজন কৈরী বলেন, গত ১২ জুলাই চা বাগান মালিক পক্ষের সাথে বৈঠকে চা শ্রমিকদের মজুরী দৈনিক ২০০ টাকার করার দাবী করা হয়। সাথে সাথে সরকার ঘোষিত চা শিল্পাঞ্চলে সাপ্তাহিক ছুটির দিন রোববারের মজুরী প্রদানেরও দাবী করা হয়েছিল। চা বাগান মালিক পক্ষের প্রতিনিধিরা চা শ্রমকিদের দৈনকি মজুরী ৬৯ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৮২ টাকা করতে রাজি হয়েছিলেন। তবে সাপ্তাহিক ছুটির দিন রোববারের মজুরী প্রদানের বিষয়ে চা বাগান মালিক পক্ষ কোন সিদ্ধান্ত দেননি। বৈঠকে চা শ্রমিক ইউনিয়ন প্রতিনিধিরা মালিক পক্ষের সিদ্ধান্ত মেনে নেননি। এ অবস্থায় চা শ্রমিক ইউনিয়ন প্রতিনিধি ও চা বাগান মালিক প্রতিনিধিদের সভা মুলতবি হয়ে যায়। আগামী ১৭ আগষ্ট আবারও বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে বলে রাম ভজন কৈরী জানান।
সভার সঞ্চালক মনু- ধলাই ভ্যালির সাধারন সম্পাদক নির্মল দাশ পাইনকা বলেন, চা শ্রমিকদের দাবীর সাথে সঙ্গতি রেখে দৈনিক মজুরী বৃদ্ধি সহ রোববারের মজুরী প্রদান অবিলম্বে বাস্তবায়ন না করলে প্রয়োজনে আবারও চা শ্রমিকদের আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষনা করা হবে।