বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আদমপুরে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞার উচ্চ শিক্ষার্থে ইউ. কে গমণ উপলক্ষে সংবর্ধনা ।। বিদায়ণে চোখের মধ্যে হয়তো পানি নেই, তবে কমলগঞ্জের ভাল মানুষগুলোকে ছেড়ে যেতে সত্যিই হৃদয়ে রক্তরণ হচ্ছে- ইউএনও



বিশেষ প্রতিনিধি ।।

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞার জনগণের কল্যাণে সার্বিক কর্মকান্ডগুলো এলাকাবাসী চিরদিন কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করবে। সৎ ও সজ্জন কর্মকর্তা হিসেবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞা ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য মৌলভীবাজার জেলার সেরা সরকারী কর্মকর্তা হিসেবে প্রায় পৌনে তিন বছর কমলগঞ্জ উপজেলার মানুষের সুখ-দুঃখে পাশে থেকে তার কাজ জনগনের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছে। শিা, তথ্যপ্রযুক্তিসহ পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী সহ সার্বিক উন্নয়নে তার ভূমিকার প্রশংসা করা হয়।

উচ্চ শিক্ষার্থে ইউ. কে গমন উপলক্ষে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইএনও) মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞাকে রোববার (২৩ আগষ্ট) রাত সাড়ে ৭টায় আদমপুর ইউনিয়ন পরিষদ ও সর্বস্তরের আদমপুরবাসী কর্তৃক ফুলেল শুভেচ্ছা সহ বিদায় সংবর্ধনায় বিভিন্ন বক্তা উপরোক্ত মন্তব্য করেন।

স্থানীয় মণিপুরী কমপ্লেক্স ভবনের মিলনায়তনে আদমপুর ইউপি চেয়ারম্যান সাব্বির আহমদ ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সংবর্ধিত বিদায় অতিথি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞা। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিদায়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সহধর্মিনী, জগৎসী গোপালকৃষ্ণ এম সাইফুর রহমান স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো. নুরুল ইসলাম, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মো. জাহাঙ্গীর আলম, উপজেলা শিক্ষা অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) ইফতেখায়ের হোসেন ভূঁঞা, মণিপুরী কালচারেল কমপ্লেক্সের আহবায়ক জয়ন্ত কুমার সিংহ, বাংলাদেশ মণিপুরী আদিবাসী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সমরজিত সিংহ, মণিপুরী সাংস্কৃতিক একাডেমির সভাপতি চন্দ্রকীর্তি সিংহ। প্রধান শিক্ষক সাজ্জাদুল হক স্বপনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ ফরহাদ, কমলগঞ্জ প্রেসকাবের সহ সভাপতি সাংবাদিক প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ, সাংবাদিক শাব্বির এলাহী, কুমড়াকাপন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এসএমসির সভাপতি মো. সানোয়ার হোসেন, উপজেলা স্কাউটস সম্পাদক মোশাহীদ আলী, উপজেলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমিতির আহবায়ক সিরাজুল ইসলাম, যুগ্ম আহবায়ক মামুনুর রশীদ ভূঁইয়া, কবি সনাতন হামোম, এইচ ব্রজগোপাল সিংহ প্রমুখ। পরে বিদায়ী অতিথিকে আদমপর ইউনিয়নের বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ব্যবসায়ী সংগঠনের পক্ষ থেকে ক্রেস্ট সহ বিভিন্ন উপহারসামগ্রী প্রদান করা হয়।

বিদায়ী সংবর্ধনা সভায় বক্তারা আরো বলেন, আমলাতান্ত্রিক এদেশে আমলাদের বড্ড বেশি ভয় পায় সাধারণ আমজনতা। অথচ একজন আমলা হয়েও দেখালেন কিভাবে মানুষের সেবা দিতে হয়, বিদায় বেলায় কিভাবে মানুষেরা হৃদয় নিংড়ানো ভালবাসা পাওয়া যায়। বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশে সজ্জন, দায়িত্ববান ও ভাল মাুনষের বড় আকাল। এই আকালের মধ্যেও সোনার মানুষের পথিকৃত বিদায়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞা। ইউএনও হিসেবে কমলগঞ্জ উপজেলায় প্রথম চাকুরী জীবনে তাঁর সততা, কর্তব্যের প্রতি নিষ্ঠা, মানুষের প্রতি ভালবাসা কমলগঞ্জের সকল মানুষকে মুগ্ধ করেছে। দেশের প্রতিটি সেক্টরে এক একজন মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞার মতো লোক হলে সত্যিই এদেশকে সোনার বাংলাদেশকে পরিণত করা সম্ভব।Pic---Kamalgonj UNO----02

সংবর্ধনার জবাবে সংবর্ধিত অতিথি আবেগাপ্লুত কমলগঞ্জ ইউএনও মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞা বলেন, আপনাদের ভালবাসায় আমি অভিভূত। আমি আপনাদের কাছে চিরঋনী। আমি চেষ্টা করেছি কমলগঞ্জের মানুষের সেবা করার জন্য। আমার পরিচয় আমি একজন মানুষ। এ পরিচয়টি মনে থাকলে মানুষের সেবা করা সম্ভব। রাষ্ট্র আমার শেখার সময় অর্থ ভর্তূকি দিয়ে মানুষ করেছে। এখন সময় এসেছে গরীব দেশের প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী হিসেবে দেশ ও দেশের ঋণ শোধ করার। তিনি বলেন- চাকুরী জীবনে বদলী একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। আমিতো উচ্চ শিক্ষার্থে এক বছরের জন্য বিদেশ যাচ্ছি। তবুও মনে হচ্ছে ঘর থেকে চলে যাচ্ছি। বিদায়ণে চোখের মধ্যে হয়তো পানি নেই, তবে কমলগঞ্জের ভাল মানুষগুলোকে ছেড়ে যেতে সত্যিই হৃদয়ে রক্তরণ হচ্ছে।

উল্লেখ্য, কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অধীনে উচ্চতর শিা অর্জনে এক বছরের ষ্টাডি ট্যুরে লন্ডণ যাচ্ছেন।
নোট: ছবি সংযুক্ত।