শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আজ ভয়াল রক্তাক্ত ২১ আগস্ট



ডেস্ক রিপোর্ট ।।
আজ রক্তাক্ত ২১ আগস্ট

আজ রক্তাক্ত ২১ আগস্ট। ইতিহাসের এই দিনে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করতে চালানো হয়েছিল গ্রেনেড হামলা। ২০০৪ সালে এই দিনে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে নৃশংস হামলা হয়। এই হামলায় সাবেক রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের স্ত্রী ও আওয়ামী লীগ নেত্রী আইভী রহমানসহ ২৪ জন নিহত হন। অলৌকিকভাবে বেঁচে যান বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে তিনি স্বাভাবিক শ্রবণশক্তি হারান। ওই ঘটনায় আহত হন ওই দিনের সমাবেশে আসা আরও শতাধিক নারী-পুরুষ।

দেশের ইতিহাসে বিভীষিকাময় ওই হামলার ১১ বছর পূর্ণ হচ্ছে আজ। শুরু থেকে বিএনপির নানা ষড়যন্ত্র আর প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে মামলার তদন্ত শেষ করতে সময় লাগে সাত বছর। ২০১১ সালে সম্পূরক অভিযোগপত্র দাখিলের পর বিচার চলছে সাড়ে তিন বছর ধরে। ২০০৭ সালে সেনা-সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে মামলার পুনঃতদন্তে নৃশংস এই হামলার নেপথ্যের অনেক তথ্য বেরিয়ে আসে। পরে ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর নতুনভাবে তদন্ত শুরু হয়। বেরিয়ে আসে অনেক অজানা চাঞ্চল্যকর কাহিনী। নিহত ও আহতদের স্বজনদের দাবি, দ্রুত আলোচিত এই মামলার বিচার শেষ করা হোক।

ভয়াল ২১ আগস্টের ১১তম বার্ষিকী উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। বাণীতে ২১ আগস্টের শহীদদের আত্মার মাগফিরাত কামনা ও আহতদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন তারা। দিবসটি পালন উপলক্ষে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

যারা নিহত হয়েছেন : ইতিহাসের বর্বরোচিত ওই গ্রেনেড হামলায় নিহতদের মধ্যে উল্লেখযোগ্যরা হলেন- প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের স্ত্রী ও আওয়ামী লীগ নেত্রী আইভী রহমান, সাবেক মেয়র মোহাম্মদ হানিফ, তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত নিরাপত্তাকর্মী ল্যান্স কর্পোরাল (অব.) মাহবুবুর রশীদ, আবুল কালাম আজাদ, আওয়ামী লীগ কর্মী রেজিনা বেগম, নাসির উদ্দিন সরদার, আতিক সরকার, আবদুল কুদ্দুস পাটোয়ারী, আমিনুল ইসলাম, মোয়াজ্জেম, বেলাল হোসেন, মামুন মৃধা, রতন শিকদার, লিটন মুনশী, হাসিনা মমতাজ রিনা, সুফিয়া বেগম, রফিকুল ইসলাম (আদা চাচা), মোশতাক আহমেদ সেন্টু, আবুল কাশেম, জাহেদ আলী, মোমেন আলী, এম শামসুদ্দিন এবং ইসাহাক মিয়া। বাকি একজনের পরিচয় দীর্ঘ ১১ বছরেও জানা যায়নি।

এছাড়া গুরুতর আহতদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন- বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, আমির হোসেন আমু, প্রয়াত আবদুর রাজ্জাক, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, ওবায়দুল কাদের, অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, এএফএম বাহাউদ্দিন নাছিম, নজরুল ইসলাম বাবু, আওলাদ হোসেন, সাঈদ খোকন, মাহবুবা পারভীন, অ্যাডভোকেট উম্মে রাজিয়া কাজল, নাসিমা ফেরদৌস, শাহিদা তারেক দিপ্তী, রাশেদা আখতার রুমা, হামিদা খানম মনি, ইঞ্জিনিয়ার সেলিম, রুমা ইসলাম, কাজী মোয়াজ্জেম হোসেইন, মামুন মল্লিক।

সূত্র : সাহস ডট কম