রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

ঘুরে এলাম কলিকাতার শ্রীশ্রী হরিচাঁদ মতুয়া সেবাশ্রম



॥ অজয় ভট্টাচার্য্য ॥
কলিকাতার শ্রীশ্রী হরিচাঁদ মতুয়া সেবাশ্রম দেখার সৌভাগ্য হয়েছে। সম্প্রতি এ সেবাশ্রম দেখে নিজেকে অত্যন্ত গর্বিত মনে করছি। দু’টি চোখ যেন জড়িয়ে আছে সেবাশ্রমে। একটি ব্যতিক্রমীটি সেবাশ্রম পর্যটকদের কাছে আকর্ষণীয় পূণ্য স্থান হিসাবে পরিচিত।
শ্রী শ্রী হরিচাঁদ মতুয়া সেবাশ্রমের পূর্ণ ঠিকানা ‘পূর্বাচল’ আর এন ঠাকুর রোড ঠাকুরপুকুর কলকাতা-৭০০০৬৩, ভারত।  শ্রীশ্রী হরিচাঁদ মতুয়া সেবাশ্রম ট্রাষ্ট এর ৩৩তম বাৎসরিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৫ সালের এপ্রিল মাসের ৪ ও ৫ তারিখে। ২দিনব্যাপী এ উৎসবে হাজার হাজার ভক্তবৃন্দের মিলনমেলা ঘটে। সকল ভক্তবৃন্দ প্রসাদ পেয়ে অত্যন্ত তৃপ্তি সহকারে ভোজন করে। আমিও প্রসাদ গ্রহণ করি। অনুষ্ঠানে আসা অসিত মজুমদার, শ্যামল মজুমদার, সংগীত শিল্পী লিটা মজুমদারসহ অনেকের কাছ থেকে জানতে পারলাম শ্রীশ্রী হরিচাঁদ মতুয়া সেবাশ্রম অনেক আগে প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৮২ সালে আশ্রম পরিচালনায়র জন্য একটি ট্রাষ্ট বোর্ড গঠন করা হয়। অত্যন্ত দক্ষতার সহিত ট্রাষ্ট বোর্ড কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন যা সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য। ট্রাষ্ট বোর্ডের মাধ্যমে একটি অবৈতনিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালিত হয়েছে। বিশেষ করে শিক্ষার্থীদের বই-পুস্তক, পোশাক, পরিচ্ছদসহ প্রয়োজনীয় সকলকিছু বিনামূল্যে প্রদান করা হয়। এই সেবাশ্রমে বৈশিষ্ট হলো সর্বধর্মের সর্ব সম্প্রদায়ের মানুষ অংশগ্রহণ করতে পারেন।
ট্রাষ্ট বোর্ডের সাধারণ সম্পাদক জানান, তাদের প্রদর্শিত আদর্শকে মানবের মাঝে পৌঁছে দেওয়াই হল আশ্রমের মূল লক্ষ্য। এছাড়া বিশ্বের অন্যান্যদেশের বিত্তবানরা এ সেবাশ্রমে আর্থিক সহায়তা প্রদান করেছেন। বিশেষ করে স্থানীয় সরকার সার্বিকভাবে সাহায্য সহযোগীতা করে থাকে। এই অর্থ দ্বারাই সেবাশ্রম পরিচালিত হচ্ছে। আর্থিক অনুদানকারীদের নাম সম্মানের সহিত শ্বেত পাথরে খোদাই করে মন্দিরের দেয়ালে নাম লিখা রয়েছে। আরো জানা গেল সেবাশ্রমে বৃদ্ধাশ্রম ও ছাত্রাবাস নির্মিত হওয়ায় পর্যায় রয়েছে। শীঘ্রই তা হয়ে যাবে বলে কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা যায়।
শ্রীশ্রী হরিচাঁদ মতুয়া সেবাশ্রম শ্বেত পাথরে নির্মিত মোড়ানো ঝকঝকে তৈরি , অত্যন্ত মনোরম সুসজ্জিত মন্দিরটি দেখলে প্রাণ জুড়িয়ে যায়। আনাবিল আনন্দে পুলকিত, উল্লেসিত হয় মন। আমি উক্ত প্রতিষ্ঠানের সার্বিক উন্নতি ও সুনাম বৃদ্ধি কামনা করি। অপরূপ রুপে এ মন্দির ঘুরে দেখার সৌভাগ্য ব্যক্ত করলাম ছোট এই লিখনীর মাধ্যমে। মন্দিরের সাথে জড়িত সকল কর্মকর্তাসহ ভক্তবৃন্দের প্রতি রইল প্রাণঢালা অভিনন্দন।