শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জের ভানুগাছ বাজার পৌর বণিক সমিতির নির্বাচন ১৬ জুন ৪ জন বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ।।

কমলগঞ্জ পৌরসভার ভানুগাছ বাজার পৌর বণিক সমিতির নির্বাচন আগামী ১৬ জুন। নির্বাচনকে সামনে রেখে উৎসব মূখর অবস্থা বিরাজ করছে গোটা পৌর এলাকায়। নির্বাচনে ৪টি পদে ৪জন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাচিতরা হলেন- সহ-সভাপতি পদে মো. মামুনুর রশীদ, প্রচার সম্পাদক পদে মো. মাহবুবুল হোসেন রিপন, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে মো. নজরুল ইসলাম ভূইয়া ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক পদে মো. মাহমুদ আলী। প্রতীক বরাদ্ধের পরপরই ব্যাপকভাবে প্রচার-প্রচারণা শুরু করেছে প্রার্থীরা। দোকানে দোকানে গিয়ে ভোট প্রার্থনার পাশাপাশি লিফলেট বিলি করছেন তারা। পোস্টার-ব্যানারে ছেয়ে গেছে গোটা বাজার। ভানুগাছ বাজার পৌর বণিক সমিতির নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহবায়ক করা হয়েছে কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মো. আবু ইব্রাহীম জমসেদ এবং সদস্য সচিব করা হয়েছে প্যানেল মেয়র মো. আনোয়ার হোসেনকে।  নির্বাচনে মোট ভোটার সংখ্যা ৭৩৮ জন। নির্বাচনে ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ, দাখিল, মনোনয়ন পত্র বাছাই, মনোনয়ন প্রত্যাহার ও প্রতীক বরাদ্দ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয় এবং আগামী ১৬ জুন নির্বাচন অনুষ্ঠানের দিন ধার্য করা হয়।
এই নির্বাচনে ৬টি সম্পাদকীয় পদের জন্য লড়বেন ১৫ জন প্রার্থী। ৩টি ওয়ার্ডে সদস্য পদে লড়বেন ১৩ জন। সভাপতি পদে দুই জন প্রার্থী রয়েছেন। এরা হলেন, কমলগঞ্জ সদর ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া সফি (চাকা) ও সংস্কৃতি সংগঠক এমরান আহমদ (আনারস), সাধারণ সম্পাদক পদে সাবেক সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ মখলিছুর রহমান (দোয়াত কলম), মো. আবু তালেব (গোলাপ ফুল) ও সামছুল হক জাহাঙ্গীর (বাই সাইকেল), সহ-সাধারণ সম্পাদক পদে মো. সুরমান মিয়া (রিক্সা), হাজী মো. আব্দুল শহীদ (টেলিভিশন), সৈয়দ নাজমুল হোসেন (মোমবাতি) ও শওকত সরওয়ার চৌধুরী (কাপ-পিরিছ), কোষাধ্যক্ষ পদে অসিত কুমার পাল (কলম) ও মো. মোশারফ হোসেন (বৈদ্যুতিক বাল্ব), সাংগঠনিক সম্পাদক পদে মো. কবির হোসেন (দেয়াল ঘড়ি) ও সাইফুর রহমান (জগ), দপ্তর সম্পাদক পদে মুমিন মিয়া (চাবি) ও শ্যামল পাল চৌধুরী (হাতপাখা)। এছাড়া ৩টি ওয়ার্ডে সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দিতায় রয়েছেন ১নং ওয়ার্ডে মো. জলিল মিয়া (মাছ), মো. আব্দুল আজিজ (মোরগ), মো. মামুনুর রশিদ (কলস) ও মো. আব্দুস শহীদ (মই), ২নং ওয়ার্ডে মো. সোহেল আহমদ (মোরগ), মো. শাহাজান আহমদ সাজু (মই), মো. মাহমুদুল হাসান শামীম (মাছ), মো. মবশ্বির আলী মস্তু (কলস) ও আহাদ মিয়া (ডাব), ৩ নং ওয়ার্ডে যুবরাজ কর দীপক (মাছ), মো. আলমাছ মিয়া (মই), সিরাজুল ইসলাম লিটন (কলস) ও মো. শওকত আলী (মোরগ) প্র্রতীক নিয়ে।
সরেজমিন ভানুগাছ বাজার ঘুরে দেখা গেছে সোমবার অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচন নিয়ে প্রার্থীরা ইতিমধ্যে পোষ্টার, ব্যানার, ফেস্টুন, লিফলেটে চেয়ে গেছে পুরো নতুন অফিস বাজার সহ আশে পাশের এলাকা। প্রার্থীরা দিনরাত ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট প্রার্থনা ও দোয়া কামনা করে চালিয়ে যাচ্ছেন গভীর রাত পর্যন্ত প্রচারণা। নির্বাচন উপলক্ষে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন নির্বাচন কমিশন। আগামী ১৬ জুন মঙ্গলবার ভানুগাছ সাব রেজিষ্ট্রি অফিস প্রাঙ্গনে সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।
নির্বাচনের বাকী আছে আর মাত্র ৪ দিন। এরই মধ্যে ভানুগাছ বাজারের বিভিন্ন এলাকায় শোভা পাচ্ছে পোষ্টার, ব্যানার, ফেষ্টুন। দেয়াল, চায়ের দোকান, বৈদ্যুতিক খুঁটিসহ আনাচে-কানাচে চেয়ে গেছে পোষ্টারে। প্রার্থীরা ভোটের আশায় সকাল, বিকাল এমনকি গভীর রাত পর্যন্ত ঘুরছেন ভোটারদের কাছে। আগামী ১৬ জুন অনুষ্ঠিতব্য ভানুগাছ বাজার পৌর বণিক সমিতির কাংখিত এ নির্বাচনকে ঘিরে এখন বিরাজ করছে উৎসব আমেজ। অপরদিকে ভোটাররাও কাকে দেবেন মূল্যবান ভোট, এ নিয়ে অনেকে রয়েছেন দ্বিধা দ্বন্ধে। অবশ্য অনেক ভোটার ক্ষোভ প্রকাশ করে জানিয়েছেন, ইতিপূর্বেও তারা ভোট দিয়েছেন। কিন্তু কাংখিত উন্নয়ন আর পরিবর্তন কিছুই হয়নি। ঘন ঘন বাজারের চুরি বৃদ্ধি, উল্টো নালা নর্দমার দূর্গন্ধ, শৌচাগারের অভাব, বিশুদ্ধ পানীয় জলের অভাব, যত্রতত্র গাড়ি পার্কিংয়ের ফলে ব্যবসায়ী আর পথচারিদের দূর্ভোগের অন্ত ছিলো না। তাই আগামীতে যারা নির্বাচিত হবেন তাদের কর্মকান্ড কেমন হবে, তা নিয়েও ভোটারদের মাঝে রয়েছে শংকা।