শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জুড়ীতে সেগুনগাছ চুরি আড়াল করতে কলাগাছ রোপন!



জুড়ী সংবাদদাতা ।।

মৌলভীবাজারের জুড়ী-১ রেঞ্জের লাঠিটিলা বিটের সংরক্ষিত বনের সেগুনবাগানে কলাগাছের চারার নিচে পাওয়া গেছে সেগুনগাছের গোড়া। সেগুনগাছ চুরির চেষ্টা আড়াল করতেই দুর্বৃত্তরা ওই চারা রোপন করেছে বলে জানা যায়। ঘটনা তদন্তে সিলেটের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করে দিয়েছেন। বন বিভাগ সূত্রে জানা যায়, লাঠিটিলা বিটের আয়তন প্রায় ছয় হাজার একর। এর মধ্যে তিন হাজার একরে বন বিভাগের উদ্যোগে বিভিন্ন সময়ে করা কয়েকটি সেগুনবাগান রয়েছে। এসব বাগানের গাছ অনেক আগেই পরিণত হয়ে গেছে। ২৭ এপ্রিল জুড়ী-২ (বড়লেখা) রেঞ্জের রেঞ্জ কর্মকর্তা বলরাম রায়কে জুড়ী-১ রেঞ্জে অতিরিক্ত দায়িত্ব দেওয়া হয়। বলরাম রায় বন বিভাগের স্থানীয় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ে ৩ মে লাঠিটিলার লালছড়া এবং ৪ মে শুকনাছড়া এলাকায় সেগুনবাগান পরিদর্শনে যান। এ সময় লালছড়ায় সেগুনবাগানের ভেতরে এক বন জায়গিরদারের (ফরেস্ট ভিলেজার) বাড়ির পাশে কয়েকটি কলাগাছের চারা রোপন করা দেখে তাঁর (রেঞ্জ কর্মকর্তা) সন্দেহ হয়। পরে চারা সরিয়ে মাটি খুঁড়তেই দু-তিন ফুট নিচে ছয়টি সেগুনগাছের গোড়ার অংশ পাওয়া যায়। এ ছাড়া শুকনাছড়ায় আরও দুটি সেগুনগাছের গোড়া মেলে। ঘটনা তদন্তে সিলেটের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করে দিয়েছেন। এ ব্যাপারে রেঞ্জ কর্মকর্তা সিলেটের বিভাগীয় বন কর্মকর্তার কাছে একটি প্রতিবেদন পাঠান। এর পরিপ্রেক্ষিতে ১৪ মে সিলেটের বিভাগীয় কর্মকর্তা মোঃ দেলোয়ার হোসেন বন বিভাগের শ্রীমঙ্গল কার্যালয়ের সহকারী বন সংরক্ষক রাজেশ চাকমাকে প্রধান করে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে দেন। ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে ওই কমিটিকে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়। গাছ চুরির অভিযোগ সম্পর্কে লাঠিটিলা বিটের বিট কর্মকর্তা ইয়াছিন মুন্সী দাবি করেন, সম্প্রতি কালবৈশাখীতে বিটের বিভিন্ন স্থানে কয়েকটি গাছ উপড়ে পড়ে। এর মধ্যে কয়েকটি গাছ খণ্ড করে বিট কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়েছে। এ ছাড়া গত ১ থেকে ৫ এপ্রিল তিনি ব্যক্তিগত কাজে ছুটিতে ছিলেন। এ সময়ে কোনো গাছ চুরি হলে বিষয়টি তাঁর জানা নেই। রেঞ্জ কর্মকর্তা বলরাম রায় বলেন,  ঝড়ে ওপড়ানো গাছ কাটার সময় বন বিভাগের পক্ষ থেকে সেটির মোথায় লোহার চাকতি বসিয়ে সংখ্যা চিহ্নিত করে রাখা হয়। আটটি সেগুনগাছের গোড়ায় কোনো নম্বর দেখা যায়নি। মূলত গাছ চুরি আড়ালের উদ্দেশ্যেই এ কৌশলের আশ্রয় নেওয়া হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তদন্ত কমিটির প্রধান রাজেশ চাকমা মুঠোফোনে জানান, আগামী সপ্তাহের শুরুতে তাঁরা কাজ শুরু করবেন।