মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জের বনাঞ্চল উজাড় ।। প্রকৃতির উপর বিরূপ প্রভাব



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ।।

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের বনাঞ্চল থেকে প্রায় প্রতিদিনই গাছ চুরি বা পাচার হয়ে থাকে। এ কথায় ধীরে ধীরে উজাড় হয়ে যাচ্ছে সংরক্ষিত বনাঞ্চল। উজাড় হয়ে যাওয়ার ফলে প্রকৃতির উপর বিরূপ প্রভাব পড়তে শুরু করেছে।

বিভিন্ন বনাঞ্চল ঘুরে দেখা যায়, গাছে মোথা আর মোথা। মনে হচ্ছে সদ্য চুরি হয়ে গেছে। এছাড়া বিশেষ করে চা বাগান গুলোতে ছায়া বৃক্ষ পাচার হয়েছে। বাংলাদেশ এর অর্থকরি ফসলের মধ্যে চা হচ্ছে অন্যতম। চা গাছের জন্য এই ছায়াবৃক্ষ অত্যন্ত জরুরী। কিন্তু সুযোগ বুঝে সংঘবন্ধ চোরের যোগসাজসে এসব গাছ পাচার করছে।

লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান থেকে প্রায়ই গাছ চুরি হয়ে থাকে। মাঝে মাঝে কম থাকে আবার বেড়ে যায়। এটা সরাসরি কেউ স্বীকার না করলেও ঘুরিয়ে স্বীকার করতে হবে। এসব গাছ পাচার কার্যে যারা জড়িত তারা অধিকাংশ সমাজের চিহ্নিত লোক।

গত ১২ মে কমলগঞ্জে জেলা প্রশাসক মো: কামরুল হাসান সুধীবৃন্দের সাথে মতবিনিময় করেন। এসময় গাছ চুরির কথা মতবিনিময় সভায় বক্তরা তুলে ধরেন।

নিয়মিত বিজিবি বা র‌্যাব বনাঞ্চল এলাকায় টহল দিলে গাছ চুরি অনেকটা রোধ হবে বলে সভায় জানানো হয়।

এছাড়া লাউয়াছা জাতীয় উদ্যান থেকে পশু পাখি বের হয়ে যাচ্ছে। অতি সম্প্রতি বানর একটি গাড়ীর চাকায় পিষ্ট হয়ে মারা যায়। বনে পশু পাখিদের একমাত্র আবাসস্থল এ জাতীয় উদ্যান নিরাপদ আশ্রয়। এর পূর্বে এভাবে পশু পাখিরা মারা গেছে। যদি উদ্যান এলাকায় তারের বেড়া দেয়া হয় তাহলে পশু পাখিরা রক্ষা পেতে পারে।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের এব্যাপারে ভেবে দেখা উচিত। তারের বেড়া দিলে চুরেদের হাত থেকে কিছুটা গাছ রক্ষা পেতে পারে আবার পশু পাখিরা নিরাপদে থাকতে পারে। নইলে কালের গর্ভে বিল্পপ্ত হয়ে যাব। দেখা দেবে অস্তিত্ব সংকটে।