শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জে বিজিবির এক হাবিলদারের বিরুদ্ধে হয়রানীর অভিযোগ



 কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধিঃ
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের কুরমা বিজিবি ক্যাম্পের ফিল্ড ইন্টেলিজেন অফিসার হাবিলদার মুজিবুর-এর বিরুদ্ধে গ্রামের নিরীহ লোকজনকে হয়রানী করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সাদা পোষাকে পুরুষ শূন্য বাড়িতে গিয়ে ভারতীয় চোরাই মালামাল উদ্ধারের নামে বাড়ির মহিলাদের হয়রানী করা হচ্ছে বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেন।
জানা যায়, বিজিবি ৪৬ ব্যাটেলিয়ানের ডি কোম্পানীর কুরমা ক্যাম্পের ফিল্ড ইন্টেলিজেন অফিসার হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন হাবিলদার মুজিবুর। ফিল্ড ইন্টেলিজেন অফিসার হিসাবে দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে প্রায় সময় সাদা পোষাকে চা বাগান অধ্যুষিত কুরমা, চাম্পারায় চা বাগানের বস্তি এলাকা ও পশ্চিম গোলের হাওর, মখাবিল, কানাইদেশী, টিলাগাঁও গ্রাম, কুরমা চা বাগানের ১৩ নম্বর পাগলীর ঘরসহ বিভিন্ন বাড়িতে গিয়ে ভারতীয় চোরাই মালামাল রয়েছে জানিয়ে ঘর তল্লাশী করেন। পুরুষ শূন্য বাড়িতে ভারতীয় চোরাই মালামাল উদ্ধারে তিনি একাই অভিযান চালিয়ে বাড়ির মহিলাদের হয়রানী করে থাকেন। তবে ওই এলাকার কোন বাড়ি থেকে চোরাই মালামাল উদ্ধার করা না হলেও তল্লাশীর নামে গ্রামের লোকজনকে হয়রানী বন্ধ হয়নি। নিরীহ লোকজনকে হয়রানীকালে ওই বিজিবি কর্মকর্তা বেশ ক’বার স্থানীয় জনতার রোষানলে পড়েন। এলাকার নিরীহ লোকজনকে হয়রানী করার বিষয়টি বিজিবি কুরমা ক্যাম্প কমান্ডার ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের নিকট মৌখিক অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা। ইসলামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সুলেমান মিয়া কুরমা ক্যাম্পের ফিল্ড ইন্টেলিজেন অফিসার কর্তৃক নিরীহ লোকজনকে হয়রানী করার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ব্যাপারে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য তিনি ক্যাম্প কর্মকর্তাকে অনুরোধ করেছেন। তবে ফিল্ড ইন্টেলিজেন অফিসার হাবিলদার মুজিবুর অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, সরকারী সম্পদ বনজদ্রব্য রক্ষায় সক্রিয় হলে একটি মহল নানা অপবাদ তুলে।
ফিল্ড ইন্টেলিজেন অফিসার-এর বিরুদ্ধে অনীত অভিযোগ ভিত্তিহীন দাবী করে কুরমা বিজিবি ক্যাম্পের ক্যাম্প কমান্ডার সুবেদার মোঃ আব্দুল গণি বলেন, বনজদ্রব্য রক্ষায় কঠোর অবস্থান নেওয়ায় এলাকার চিহিৃত কাঠচোররা তার বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচার করছে। যার কোন ভিত্তি নেই।