শনিবার, ১ এপ্রিল ২০২৩ খ্রীষ্টাব্দ | ১৮ চৈত্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দর্পণে নিজের প্রতিচ্ছবি



12250010_1065953743462215_5946155912037241379_n

॥  অরূপ রায়  ॥

পিতার অকাল মৃত্যু জনিত কারণে মানষিক বিপর্যয় আর শারিরীক অসুস্থতা জনিত কারনে বেশ কিছুদিন লেখালেখির জগৎ থেকে প্রায় অনেকটাই দূরে ছিলাম। অনুজ প্রতীম সাংবাদিক পিন্টু দেবনাথ অনুরোধ করেছিলেন তার পত্রিকার বর্ষপূর্তি সংখ্যার জন্য একটা লেখা দেওয়ার জন্য। জীবিকার তাগিদে সাংবাদিকতার পাশাপাশি ভিন্ন আরেকটি পেশায় সম্পৃক্ত থাকায় ইচ্ছে থাকলেও লিখতে বসার সুযোগ করে নেওয়া সম্ভব হচ্ছিল ক’দিন ধরে।
কাল সন্ধ্যায় নিজ অফিসে বসে সহকর্মী বন্ধুবর হাবিবুর রহমানের সাথে ভুমি জরিপের একটি বিষয় নিয়ে যখন আলাপ চলছিল তখন হঠাৎ পিন্টু বাবুর ফোন “দাদা আমার লেখা কতদূর এগুলো, কবে পাঠাচ্ছেন ?” “সবকিছু সেটআপ শেষ হয়ে গেছে; শুধু আপনার লেখার অপেক্ষায়।”  কোন জবাব দিতে পারিনি তার প্রশ্নের। নিজেকে বড় অপরাধী মনে হলো। বিষয়টি বন্ধুবর হাবিবুর রহমানের সাথে শেয়ার করতে তার কাছ থেকে  প্রত্যুত্তর এলো “একজন অগ্রজ সাংবাদিক হিসাবে তোমাকে পিন্টু বাবু যে সন্মান দেখিয়েছেন তার যথাযত মূল্যায়ন করিনি। যথা সময়ে লেখা পাঠিয়ে কোথায় তাকে সাহস যোগাবে, কিন্তু তা না করে উল্টো লেখা না পাঠিয়ে তার নির্ধারিত সময়ের প্রকাশনাকে ব্যাহত করছো।”
কথাটা একেবারেই নিরেট সত্য কথা বলেছেন হাবিব ভাই। আমার মতো অপদার্থ লেট-লতিফ অনেক লেখক-ই আছেন যারা প্রকাশককে প্রতিনিয়ত অবমূল্যায়ন করে চলছেন। একজন প্রকাশক স্ব-প্রণোদিত হয়ে একজন লেখককে যখন একটি লেখা পাঠানোর বা দেওয়ার কথা বলেন তখন আমরা লেখকরা কেউই চিন্তা করিনা আমার উপর অর্পিত দ্বায়িত্ব আমরা যথাসময়ে পালন করতে পারবো কিনা। এলাকার অসংখ্য লেখকের মধ্য থেকে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন সংকলন বা পত্রিকার একজন লেখক হিসাবে আমাদেরকে নির্বাচিত করে লেখা দেওয়ার জন্য বলা হয়, তখন আমরা কেউই  চিন্ত করিনা একজন লেখক হিসাবে সম্পাদক সাহেব আমাদেরকে কতটুকু সম্মানের আসনে বসানো হয়েছে। নূন্যতম মূল্যায়নের প্রয়োজন বোধ করিনা তাদের। বরাবই আমাদের ভিতরে একটা অহমবোধ কাজ করে। বিষয়টাকে আমরা খাটো করে দেখি। আমরা বেমালুম ভূলে যাই এক সময় এ রকম পত্রিকা ও সংকলনের মাধ্যমেই এলাকায় লেখক হিসাবে আমার পরিচিত হয়েছি। আমাদের প্রতিষ্টার পেছনে আমরা শুধু লেখাটিই লিখেছি : আর এই লেখাগুলো বিধিবদ্ধ ভাবে প্রকাশ করতে অর্থ এবং শ্রম দু’টোই দেন আমাদের সম্মানিত সম্পাদক, প্রকাশকগণ। অতএব, সমাজে একজন লেখক হিসাবে আমাদের প্রতিষ্টিত করতে এই সব সম্পাদক ও প্রকাশকদের অবদান কোন অংশেই কম নয়। অথচ আমরা লেখকরা বরাবরই তাদের অবমূল্যায়ন করে আসছি।
আমরা ববরাবরই আমাদের নির্বাচিত লেখাটি প্রেরণে র্দীর্ঘসূত্রীতা করি। কিন্তু যথা সময়ে লেখা না পেলে সংশ্লিষ্ট সম্পাদক, প্রকাশককে পড়তে হয় বিড়ম্বনায়। যেহেতু সংশ্লিষ্ট লেখককে লেখা দেওয়ার অনুরোধ করেছেন সেহেতু তাকে বাদ দিতে পারেন না। বাধ্য হয়ে পেছাতে হয় প্রকাশনার তারিখ। প্রকাশককে একাধিকবার সংশ্লিষ্ট লেখকের সাথে যোগাযোগ করতে হয় লেখাটি সংগ্রহের জন্য।
আবার কোন কোন লেখক আছেন যারা নির্দিষ্ট বিষয় এবং লেখার সীমারেখা নির্ধাারন করে দেওয়ার পরও এমন ধরনের লেখা পাঠান যা নির্দিষ্ট শব্দসীমা অতিক্রম করে  কিংবা লেখকের ঐ লেখাটিতে নিজের গুনর্কীর্তন-ই বেশী থাকে এবং যা সংশ্লিষ্ট পত্রিকা বা সংকলনের সম্পাদকীয় নীতির সম্পূর্ণ বিপরীত। পাছে ঐ লেখকের সম্মনহানী হয় কিংবা কষ্টপান এই ভেবে অনেক ক্ষেত্রেই ছাপার অযোগ্য এসব লেখাও নিজের অনিচ্ছা স্বত্ত্বে¡ও বাদ দিতে পারেন না সম্পাদক। আবার  এ ধরণের লেখা ছাপার পরও সম্পাদকরা শিকার হন নানা বিরূপ সমালোচনার। বিষয়টা নিঃসন্দেহে দুঃখ জনক। তাই আমরা যারা লেখালেখির সাথে সম্পৃক্ত আছি তাদের এহেন আচরন পরিবর্তন করা প্রয়োজন। এই কথাটি আমাদের মাথায় রাখা দরকার যে, একটি লেখা পাঠানোর মধ্য দিয়ে আমরা লেখকদের দ্বায়িত্ব শেষ হলেও সংশ্লিষ্ট সম্পাদক ও প্রকাশককে এর পর লেখা কম্পোজ করা , প্র“ফ দেখা, সেটআপ দেওয়া, মুদ্রণসহ আরও বেশ কটি কাজ করতে হয়। আর সম্পাদক প্রকাশকরা তাদের পত্রিকা / সংকলনে আমাদের লেখা ছাপান বলেই পাঠক সমাজে আমারা নন্দিত । ———– লেখক, সম্পাদক, কমলকন্ঠ সাহিত্য পত্র