মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সিলেটে রাজন হত্যা মামলায় তিনজনের সাক্ষ্য গ্রহণ ॥ ৩ পুলিশ কর্মকর্তা মূল ঘাতক কামরুলকে দেশে ফিরিয়ে আনতে সৌদি আরব গেছেন



 

কমলকুঁড়ি ডেস্ক ।।
সিলেটের শহরতলীর কুমারগাঁওয়ে রাজন হত্যা মামলায় গতকাল রবিবার আরো ৩ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে। সিলেট rajo_86530মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোঃ আকবর হোসেন মৃধা তাদের সাক্ষ্যগ্রহণ করেন। আদালতে গতকাল সাক্ষ্য প্রদানকারীরা হচ্ছেন- পশ্চিম জাঙ্গাইলের মৃত আবদুস সাত্তারের পুত্র আনোয়ারুল হক, কুমারগাঁয়ের জাকিরের পুত্র বেলাল আহমদ ও দকির গ্রামের ইসকন্দর আলীর পুত্র আবদুল হান্নান। তাদের মধ্যে বেলালকে বৈরী ঘোষণা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন রাজনের বাবার নিযুক্ত আইনজীবী শওকত চৌধুরী।
শওকত চৌধুরী জানান, জব্দনামার সাক্ষী আনোয়ারুল হক আদালতকে জানিয়েছেন, আসামি নূর আহমদকে এলাকার লোকজন ধরে পুলিশের হাতে তুলে দেন। এ সময় নূর আহমদের কাছ থেকে পুলিশ একটি মোবাইল সিম, মেমোরি কার্ড ও ব্যাটারি উদ্ধার করে। সে অন্যের মোবাইলে রাজনকে মারপিট করার দৃশ্য দেখেছে।
সাক্ষি বেলাল আহমদ তার জবানবন্দিতে আদালতকে জানিয়েছেন, জনতা মাইক্রোবাসকে ধাওয়া করে তার দোকানের সামনে নিয়ে আসে। মাইক্রোবাস ও রাজনের লাশ ফেলে আসামিরা পালিয়ে যায়। আমি লোকমুখে শুনেছি মুহিতকে পালিয়ে যাওয়ার সময় জনতা আটক করেছে। সাক্ষ্য দেয়ার এক পর্যায়ে বেলাল অন্যান্য আসামির তথ্য গোপন করার চেষ্টা করলে রাষ্ট্র পক্ষের আইনজীবী বেলালকে বৈরী সাক্ষী ঘোষণা করতে আদালতের প্রতি আবেদন জানান।
আব্দুল হান্নান তার সাক্ষ্য প্রদানকালে আদালতকে জানান, তিনি ঘটনার দিন সকাল ৭টা-৮টার দিকে ঘাস কাটতে যাওয়ার সময় ঘটনাস্থল কুমারগাঁওস্থ ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কসপের সামনে ১২-১৪ জন মানুষের জটলা দেখতে পান। তিনি এগিয়ে গিয়ে দেখেন, রাজন নামের একটি শিশুকে খুটির সঙ্গে বেঁধে মারপিট করা হচ্ছে। এতে তিনি ভয় পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে চলে যান। পরে লোকমুখে শুনেছেন কামরুল, মুহিদ, ময়না চৌকিদারসহ ১০-১২জন রাজনকে মেরেছে। হান্নান কাঠগড়ায় দাঁড়ানো আসামিদের মধ্য থেকে মুহিদ ও ময়না চৌকিদারকে চিনেন বলে জানান। অন্য আসামিদের ব্যাপারে হান্নান আদালতকে বলেছেন, তাদের চেহারা চিনি কিন্তু নাম বলতে পারব না।
আজ সোমবার একই আদালতে আরও চারজনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন অ্যাডভোকেট শওকত চৌধুরী। তারা হলেন- আফতাব মিয়া, আব্দুল করিম, সুদিব কাপালী ও আব্দুল মন্নান।
শওকত চৌধুরী আরো জানান, গতকাল রবিবার ৩ জনের সাক্ষ্য গ্রহণের মধ্য দিয়ে রাজন হত্যা মামলায় মোট ১৭ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। তিনি জানান, ১২, ১৩ ও ১৪ অক্টোবর এ মামলায় টানা সাক্ষ্য গ্রহণ করবেন আদালত।
গত ১৬ আগস্ট রাজন হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিলেট মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক সুরঞ্জিত তালুকদার ১৩ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দাখিল করেন। চার্জশিটে সৌদিতে আটককৃত কামরুল ইসলাম, তার ভাই শামীম আহমদ এবং আরেক হোতা পাভেলকে পলাতক দেখানো হয়। আদালত ২৪ আগস্ট চার্জশিট আমলে নেন। পরদিন ২৫ আগস্ট পলাতক কামরুল ও শামীমের মালামাল ক্রোক করে নগরীর জালালাবাদ থানা পুলিশ। গত ৮ জুলাই সিলেটের কুমারগাঁওয়ে সামিউল আলম রাজনকে নির্মম নির্যাতনের মাধ্যমে হত্যা করা হয়।
কারুলকে দেশে আনতে রাতে সৌদি যাচ্ছেন ৩ পুলিশ কর্মকর্তা : রাজন হত্যা মামলার প্রধান আসামি কামরুল ইসলামকে দেশে ফিরিয়ে আনতে গতকাল রবিবার দিবাগত রাতে সৌদি-আরব গেছেন ৩ পুলিশ কর্মকর্তা। রাত ৩টা ৪৫ মিনিটে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সৌদি-আরবের উদ্দেশ্যে তারা যাত্রা করেন। রাতে তিন পুলিশ কর্মকর্তার সৌদি-আরব যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মোহাম্মদ রহমত উল্লাহ। তিনি জানান, পুলিশ সদর দফতর থেকে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
রহমত উল্লাহ জানান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (পুলিশ সদর দফতর) মাহবুবুল করিমের নেতৃত্বে ৩ জনের টিম সৌদি আরব যাচ্ছে। টিমের বাকি দুজন হচ্ছেন তিনি নিজে (রহমত উল্লাহ) এবং সিলেট মহানগরীর বিমানবন্দর থানার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আ ফ ম নিজাম উদ্দিন। সৌদি পুলিশ এবং ইন্টারপোলের সহায়তায় কামরুল ইসলামকে দেশে ফিরিয়ে আনা হবে বলেও জানিয়েছেন মোহাম্মদ রহমত উল্লাহ।