শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সিলেটে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ৫টি ম্যাচ হবে



ডেস্ক রিপোর্ট ।। আগামী জানুয়ারিতে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত হবে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ক্রিকেট। এই টুর্ণামেন্টের ৫ টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে সিলেট বিভাগীয় স্টেডিয়ামে। অনুর্ধ-১৯ বিশ্বকাপ উপলক্ষ্যে প্রস্তুত করে তোলা হচ্ছে বিভাগীয় স্টেডিয়ামকে। বিশ্বকাপের জন্য সিলেট স্টেডিয়াম অনেকটাই প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। তবে যথাসময়ে সীমানা প্রাচীর নির্মান নিয়ে শঙ্কিত বিসিবি।

শুক্রবার বিসিবির গ্রাউন্ডস কমিটির একটি দল সিলেট বিভাগীয় স্টেডিয়ামের প্রস্তুতি নিয়ে সন্তুষ্টির কথা জানালেও সীমানা প্রাচীর নিয়ে শঙ্কা পকাশ করেছে। তবে স্থানীয় ক্রীড়া সংগঠনকরা জানিয়েছেন, আর দু’মাসের মধ্যেই বিভাগীয় স্টেডিয়ামের সকল সংস্কার কাজ সম্পন্ন হবে। বিশ্বকাপের জন্য প্রায় ৮ মাস ধরে মাঠ প্রস্তুতির কাজ চলছে বলে জানান তারা।

শুক্রবার দুপুরে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের গ্রাউন্ডস কমিটির চেয়ারম্যান হানিফ ভূঁইয়ার নেতৃত্বে প্রস্তুতিকাজ পরিদর্শনে আসে একটি প্রতিনিধি দল। পরিদর্শন শেষে নিজের সন্তুষ্টির কথা জানান ক্রিকেট বোর্ডের গ্রাউন্ডস কমিটির এই চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, আর্ন্তজাতিক মানের ম্যাচ আয়োজনে এই ভেন্যুটি অনেকটাই প্রস্তুত। টুকটাক যে কাজ বাকী রয়েছে আশা করছি দ্রুততম সময়ের মধ্যেই তা শেষ হবে। এর আগে এখানে টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপ এই ভেন্যুতে সফল ভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের সীমানা দেয়ালের কিছু অংশ পুননির্মাণ ও অবশিষ্টাংশ সংস্কারের ব্যাপারে শঙ্কা প্রকাশ করলেও তার আশা নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রেখে যথাসময়েই জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ এ কাজটি সম্পন্ন করবে। এসময় বিসিবির চিফ কিউরেটর গামিনি ডি সিলভা বলেন, এই ভেন্যুতে নির্মিত প্রতিটি পিচেই থাকবে এক্সট্রা বাউন্স। পিচ নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন তিনি।

বিসিবর কর্মকর্তাদের সিলেট ক্রিকেট স্টেডিয়াম পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন সিলেট বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ও বিসিবি পরিচালক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল। তিনি বলেন, একটি শিশুর মতোই নিয়মিত মাঠের পরিচর্যা করতে হয়। সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামকেও তাই করা হয়।

তিনি জানান, সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের প্রস্তুতি কাজ আগামী দু মাসের মধ্যেই শেষ হয়ে যাবে। বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে টেস্ট সিরিজের একটি খেলা সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে হতে পারে বলে আশা প্রকাশ করেন বিসিবির এই পরিচালক। খেলোয়াড়দের অনুশীলনের জন্য একটি আউটার স্টেডিয়ামের কাজও এগিয়ে চলছে বলে জানান তিনি।