শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যেমনটি দেখেছি : একজন সৈয়দ মহসীন আলী



Picture 006

।। লিয়াকত খান ।।

সাধারণত সভা সমাবেশে আমার যাওয়া হয়ে উঠে না বা সভা সমাবেশে যাওয়ার যোগ্যতাও আমি রাখিনা। কিন্তু গতকাল গ্রেটার ম্যানচেস্টার মৌলবীবাজার এসোসিয়েশনের উদ্যোগে সদ্য প্রয়াত সমাজ কল্যাণ মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ মহসিন আলীর স্মরনাথর্ে দোয়া মহফিলে যাওয়ার প্রবল ইচ্ছা থাকা সত্বেও যৌক্তিক কারনে যাওয়া হয়ে উঠেনি। তাই কিছুটা অনুশোচনাবোধ, কিছুটা দায়বদ্ধতাবোধ থেকে এই স্ট্যাটাসের অবতারনা।

কোন মানুষই সমালোচনার ঊধ্বের্ নয়।
ব্যক্তি সৈয়দ মহসিন আলী তার বর্ণাঢ্য জীবনে কিছু কিছু সমালোচনার জন্ম দিলেও একজন সৎ,সাহসী,সত্যবাদী, পরপোকারী,স্পষ্টবাদী এবং একজন একনিষ্ঠ দেশপ্রমিক হিসাবে তার খ্যাতি সর্বজন স্বীকৃত। তার মত নিঃস্বার্থ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব বর্তমান সমাজে সত্যিই বিরল।
সৈয়দ মহসিন আলী সাহেবের সাথে আমার প্রথম সাক্ষাৎটা সত্যিই গৌরবের। আমার ৭ বছর বয়সে একজন সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধাকে মুক্তিযোদ্ধাবেশে দেখার এবং তার ব্যবহৃত যুদ্ধাস্ত্রটি স্পর্শ করার সৌভাগ্য আমার হয়েছিল। স্বাধীনতার মাসে কোন এক সকালে স্বাধীন দেশের পতাকা হাতে বিজয়ীর বেশে মহসিন আলী সহ শতাধিক সশস্ত্র মুক্তিযোদ্ধা হঠাৎ আমাদের বাড়ীতে এসে হাজির হন। সরাসরি যুদ্ধের মাঠ থেকে যুদ্ধবিদ্ধস্থ আমাদের পরিবারের শহীদানদের প্রতি স্বাধীন দেশের স্বাধীন পতাকা উত্তোলন ও সেল্যুটের মাধ্যমে সর্বোচ্চ সম্মান প্রদর্শন এবং সেই সাথে শোকাতর পরিবারের প্রতি
সান্তনা, সমবেদনা,সহানুভূতি ও সহমর্মিতা প্রদর্শনের এক বিরল ও উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত; উদার,সহৃদ ও প্রকৃত দেশপ্রেমিকদের পক্ষেই দেখানো সম্ভব। দীর্ঘ সময় বয়োঃজ্যেষ্টদের সাথে যুদ্ধের বীরগাঁথা আলোচনা, তারই ফাঁকে ফাঁকে ক্ষত বিক্ষত হৃদয়ে অতি যত্ন ও আন্তরিকতার সাথে আশার প্রলেপ বোলানোর চেষ্টা। ক্ষনিকের জন্য হলেও আমাদের পরিবার সকল দুঃখ,বেদনা বিস্মৃত হয়ে বাংলা মায়ের শ্রেষ্ট সন্তানদের কাছে পেয়ে যথাসাধ্য তাদের আপ্যায়নের ব্যবস্থা করেন এব; তারাও আপনজনের মত আতিথেয়তা গ্রহণ করে আমাদের ধন্য করেন।
আজ কৃতজ্ঞতাবোধ থেকে সৈয়দ মহসিন আলীর বিদেয়ী আত্বার মাগফেরাত কামনা করছি এবং করুনাময়ের কাছে প্রার্থনা করছি,যেন তার সকল ভূলত্রুটি ক্ষমা করে তাকে বেহেস্থ নসিব করেন।

 

(লেখাটি লিয়াকত খান এর ফেইসবুক থেকে সংগ্রহ)aaa