মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

মণিপুরি তাঁতশিল্প রক্ষায় শত নারীর মোইরাং



শাহ্ দিদার আলম নবেল, সিলেট

সিলেটের ইতিহাস-ঐতিহ্যের সঙ্গে মিশে আছে মণিপুরি তাঁতশিল্প। একসময় সিলেট ও মৌলভীবাজারের মণিপুরি সম্প্রদায়ের প্রতিটি পরিবারে ছিল তাঁত। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে সিলেটে বেড়াতে আসা পর্যটকদেরও আকর্ষণ ছিল হাতে তৈরি এ কাপড়ে। পৃষ্ঠপোষকতার অভাব, সুতার মূল্য বৃদ্ধি, ন্যায্য মূল্য না পাওয়া ও নকল কাপড়ের আধিপত্যে একসময় থেমে যায় মণিপুরি আদিবাসীদের হাজার বছরের ঐতিহ্যের চাকা। এ অবস্থায় নতুন প্রজন্মকে উদ্বুদ্ধ করে এ শিল্পের সোনালি অতীত ফিরিয়ে আনতে এবার উদ্যোগ নিয়েছেন ১০০ মণিপুরি নারী তাঁতশিল্পী। তারা গড়ে তুলেছেন ‘মোইরাং’ নামের প্রতিষ্ঠান। এ প্রতিষ্ঠানের নামে সিলেট নগরীর শিবগঞ্জ ফরহাদখাঁ পুলের পাশে নিজস্ব বিপণন কেন্দ্র খোলা হযেছে। শত নারীর ঐক্যবদ্ধ প্রয়াস ‘মোইরাং’ই নতুন করে স্বপ্ন দেখাচ্ছে মণিপুরি তাঁতশিল্পীদের। কাজ করছে মণিপুরি নারীদের আর্থিক সক্ষমতা বৃদ্ধির। সংশ্লিষ্টরা জানান, মণিপুরি তাঁতশিল্পের সৃষ্টি ভারতের মণিপুর রাজ্যের মোইরাংয়ে। মণিপুরি কাপড়ের পাড়ে ক্রিকোণাকৃতির যে চিত্রটি দেখা যায় তাকেও বলা হয় মোইরাং। তাই ইতিহাস-ঐতিহ্য ধারণ করে মণিপুরি তাঁতশিল্পীরা তাদের প্রতিষ্ঠানটির নাম দিয়েছেন ‘মোইরাং’। মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুরের ৭৫ ও সিলেটের ২৫- এই ১০০ নারী তাঁতশিল্পীর সমন্বিত উদ্যোগ এটি। মোইরাংয়ের মাধ্যমে শুধু উৎপাদন ও বিপণন কাজই হচ্ছে না, এর সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা মণিপুরি সম্প্রদায়ের নতুন প্রজন্মকে তাদের পূর্বপুরুষদের ঐতিহ্যবাহী এ পেশায় উদ্বুদ্ধ করারও চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। ঐতিহ্যবাহী এ শিল্পকে টিকিয়ে রাখতে পৃষ্ঠপোষকতা করছে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা অক্সফাম ও এথনিক কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন (একডো)। জানা গেছে, স্বকীয়তা বজায় রেখে কাপড়ের ডিজাইন ও গুণগতমান বৃদ্ধির লক্ষ্যে ‘মোইরাং’-এর উদ্যোগে শতাধিক মণিপুরি নারীকে ছয় মাস নিবিড় প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত তাঁতশিল্পীদের উৎপাদিত কাপড় নিয়ে চলতি বছরের ৮ ও ৯ এপ্রিল ঢাকার কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশে আয়োজন করা হয় প্রদর্শনীর।

প্রদর্শনীতে মণিপুরী তাঁতে উৎপাদিত পণ্য প্রশংসা কুড়ায় দেশের প্রায় সব ফ্যাশন ডিজাইনারের। মণিপুরী নারী উন্নয়নকর্মী নোংপকলৈ সিনহা জানান, মণিপুরী তাঁতশিল্প নানা সংকটে ঘুরপাক খাচ্ছিল। এ সুযোগে নকল মণিপুরী কাপড় বাজার দখল করে নেয়। এতে হতাশ হয়ে ও ন্যায্য মূল্য না পেয়ে অনেক মণিপুরী শিল্পী তাঁতে কাপড় বোনা বন্ধ করে দেন। নতুন প্রজন্মও তাদের পূর্বপুরুষদের ঐতিহ্যবাহী এ শিল্প থেকে মুখ ফিরিয়ে নেন। মোইরাংয়ের মাধ্যমে এ শিল্পের অতীত ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছে। গত এক বছরে ক্রেতাদের মাঝে মণিপুরী পণ্য নতুন করে সাড়া ফেলতে সক্ষম হয়েছে।

সূত্র : বাংলাদেশ প্রতিনদিন