শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

“গ্রামীণ উন্নয়ন, খাদ্য উৎপাদন ও দারীদ্র দূরীকরণে গ্রামীণ নারী” প্রতিপাদ্য নিয়ে: শ্রীমঙ্গলে ক্রেলের উদ্যোগে গ্রামীন নারী দিবস পালন



Pic---1[1]

মো.মোস্তাফিজুর রহমান ।।
ইউএসএইড’র আর্থিক সহায়তায় পরিচালিত ক্লাইমেট-রেজিলিয়েন্ট ইকোসিস্টেমস্ এন্ড লাইভলিহুডস্ (ক্রেল) প্রকল্প সহ-ব্যবস্থাপনার সহযোগীতায় ১৫ অক্টোবর সকাল সাড়ে ১০টায় বৃহস্পতিবার শ্রীমঙ্গল গ্র্যান্ড তাজ হোটেল কক্ষে গ্রামীন নারী দিবস উপলক্ষ্যে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্টিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে ক্রেল এর সহযোগীতায় লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান সহ-ব্যবস্থাপনা সংগঠন, বড়গাঙ্গিনা ও ডুমুরিয়া সম্পদ ব্যবস্থাপনা সংগঠনের ১১ জন নারী সদস্য তাদের স্বাবলম্বী হওয়ার কথা তুলে ধরেন। “গ্রামীণ উন্নয়ন, খাদ্য উৎপাদন ও দারীদ্র দূরীকরণে গ্রামীণ নারী” প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে আয়োজিত এই সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন কমলগঞ্জের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান সহ-ব্যবস্থাপনা সংগঠনের কাউন্সিল সদস্য ও শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সভাপতি গোপাল দেব চৌধুরী এবং লিখিত মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন ডুমুরিয়া সম্পদ ব্যবস্থাপনা সংগঠনের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ফাতেমা বেগম । ক্রেল প্রকল্পের উত্তর-পূর্ব অঞ্চলের যোগাযোগ কর্মকর্তা ইলিয়াস মাহমুদ পলাশের সঞ্চালনায় লিখিত বক্তব্যে ফাতেমা বেগম ক্রেলের সহযোগীতায় উত্তর-পূর্ব কর্মএলাকায় এ পর্যন্তসহ-ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে ৪০১২ জন নারীকে সব্জি চাষ, হাঁস-মুরগি পালন, মৎস্য চাষ, হস্ত শিল্প, লেবু চাষ ইত্যাদি বিষয়ক প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে যা ক্রেল প্রকল্পের উত্তর-পূর্ব কর্মএলাকার মোট উপকারভোগীর ৫০% এর বেশি। এর মধ্যে সবজি চাষে প্রশিক্ষণ পেয়েছেন ১৩১৯ জনসংখ্যক গ্রামীন নারী, হাঁস পালনে ২০৪০ জন নারী, মৎস্য চাষে ৬৬৫ জন নারী, মুরগি পালনে ৪৪৬ জন নারী । এসব প্রশিক্ষণ প্রাপ্তির পর নারীরা কর্মসংস্থানে ব্রতি হয়ে পারিবারিক পর্যায়ে চাহিদা মিটিয়েও উৎপাদিত পণ্যের একটা বড় অংশ বাণিজ্যিকভাবে বিক্রির মাধ্যমে পরিবারে অতিরিক্ত আর্থিক স্বচ্ছলতা আনতে ভূমিকা রাখছেন তাঁরা। বক্তারা আরো বলেন, ক্রেলের মাধ্যমে গ্রামীণ নারীরা খাদ্য উৎপাদনসহ অন্যান্য অর্থনৈতিক কর্মকা-ে জড়িত হওয়ায় তা যেমন গ্রামীণ উন্নয়ন, খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি ও দারিদ্রদূরীকরণে ভূমিকা রাখছে তেমনি আর্থিক উন্নতির ফলে রক্ষিত এলাকা সমূহের বনজসম্পদ নির্ভরশীল জনগোষ্ঠীর  বনজ সম্পদের উপর নির্ভরশীলতাও  হ্রাস পাচ্ছে। সম্মেলনে উপস্থিত ক্রেল প্রকল্পের সাথে সম্পৃক্ত  কমলগঞ্জের সোনাবান বিবি, আমেনা আক্তার , পূর্বলইয়ারপুর ডুমুরিয়া সমিতির সদস্য তেরাবানবিবি, ভাসানী গাও জমিলা বিবি, ফরেষ্ট বিলেজার খাদেমা বেগম, কালাপুর গ্রামরে সুপ্রিয়া চক্রবর্তীসহ ১১ জন স্বাবলম্বী নারী তাদের পরিবর্তনের কথা তুলে ধরেন, তারা তাদের পূর্বের ও বর্তমান অবস্থার কথা উপস্থিত অতিথি ও সাংবাদিকদের সামনে বর্ণনা করেন। তারা বলেন একটা সময় ছিল যখন তারা ভাবতেই পারতেন না যে নারীরাও উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত হতে পারে, সংসারের প্রয়োজনে বাড়তি রোজগার করতে পারে। তারা উল্লেখ করেন, এক সময় তাদের পরিবারগুলো অতিমাত্রায় বনজ সম্পদের উপর নির্ভরশীল ছিলো। কিন্তু বর্তমানে তারা খাদ্য উৎপাদন ও অন্যান্য আয়বর্ধনমূলক কাজের সাথে জড়িত থাকার ফলে পারিবারিক আয় বৃদ্ধি পেয়েছে এবং তাদের বনজ সম্পদের উপর নির্ভরশীলতা হ্রাস পেয়েছে।  অনুষ্টানে বক্তব্য রাখেন কমলগঞ্জ উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা শাহাদাৎ হোসেন, উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. আহসান হাবিব, প্রথম আলো কমলগঞ্জ প্রতিনিধি মুজিবুর রহমান রন্জু, সাজিদুর রহমান  ও ক্রেল প্রকল্পের উত্তর-পূর্ব অঞ্চলের আঞ্চলিক সমন্বয়কারী জনাব মাজহারুল ইসলাম জাহাঙ্গীর প্রমুখ।