রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

কমলগঞ্জে ধান ক্ষেতে মড়ক : দুশ্চিন্তাগ্রস্ত কৃষক




 

মো.মোস্তাফিজুর রহমান ::
pic-kamal-2মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার চলতি আমন মৌসুমে ফসলি জমিতে ব্যাপক আকারে মড়ক বা ব্লাস্ট রোগ দেখা দিয়েছে । আক্রান্ত ধানী জমি লালচে হয়ে চারা মরে যাচ্ছে। এতে করে কৃষকরা দুশ্চিন্তায় ভুগছেন। কৃষি বিভাগ বলছে ধানে পুষ্টি ঘাটতি হওয়ায় এ রোগ দেখা দিয়েছে। কৃষি বিভাগ কৃষকদের এমওপি,ইউরিয়া ও জিফসালফেট সার এক সাথে মিশিয়ে প্রয়োগের পরামর্শ দিলেও কৃষকরা কোন উপকার পাচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন। কৃষক আর কৃষি বিভাগের পরস্পর বিরোধী মতে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ধানী জমিতে মড়ক দিন দিন বিস্তার লাভ করছে।

কমলগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে ১৭ হাজার ১২৭ হেক্টর জমিতে আমন চাষাবাদের ল্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও ইতিমধ্যে ১৭ হাজার ১৫০ হেক্টর জমিতে চাষাবাদ সম্পন্ন হয়েছে। চাষাবাদকৃত জমির বিভিন্ন অঞ্চলে ধান েেত প্রথমে চুঙ্গি পোকার আক্রমন দেখা দেয়। চুঙ্গি পোকার আক্রমন রোধ হলেও ব্লাস্ট রোগ বা মড়ক তীব্র আকার ধারণ করছে। ফলে ধানী জমি লালচে হয়ে ফসলি মাঠ বিলীন হচ্ছে বলে কৃষকরা অভিযোগ করছেন।

উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের শ্রীপুর, কোনাগাও, শমশেরনগর ইউনিয়নের রঘুনাথপুর, ঘোষপুর, সতিঝিরগাও, কমলগঞ্জ সদর, পৌরষভাসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে ধানেেত এসব ব্লাস্ট রোগ বা মড়কের আক্রমন দেখা দিয়েছে। ইসলামপুর ইউনিয়নের শ্রীপুর গ্রামের ব্যাঙাই মিয়া, তাজুদ মিয়া, সুলতান মিয়া, শমশেরনগর ইউনিয়নের মোবাশ্বির আলী, সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ধান ক্ষেতে মড়কের আক্রমন মারাত্মক আকার ধারন করেছে। প্রথমে ধান গাছের আগা লালচে রং ধারণ করে পর্যায়ক্রমে সারা গাছে ছড়িয়ে ধান গাছ মারা যায়। এভাবে পুরো ধানী জমিতে ছড়িয়ে পড়ে এবং গাছগুলো মরতে থাকে।

কৃষকরা বলেন, এসব রোগের আক্রমন থেকে রার জন্য ইউরিয়া ও এমওপি সার এবং কীটনাশক ব্যবহার করেও কাঙ্খিত ফল পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে ব্যাপক তির আশঙ্কায় রয়েছেন বলে তারা উদ্বেগ আর উৎকন্ঠায় দিন কাটাচ্ছেন।

কৃষকরা আরও অভিযোগ করে বলেন, এসব বিষয়ে কৃষি বিভাগের পর্যাপ্ত সহযোগীতা পাওয়া যাচ্ছে না। কৃষি বিভাগের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তারাও রাস্তার পাশ দিয়ে ধান তে দেখে যান। গ্রামের ভেতরে ফসলি মাঠ তারা দেখতে আসেন না। তাদের পরামর্শ মতো ইউরিয়া ও এমওপি সার মিক্সাড করে েেত প্রয়োগ করা হয়েছে। এতে করে কোন লাভ হচ্ছে না। দিন দিন আরো বাড়ছে। সারা উপজেলায় প্রায় ৮০ হেক্টর জমিতে এ রোগ দেখা দিয়েছে বলে জানা গেছে।

ধানী জমিতে মড়ক বিষয়ে জানতে চাইলে কমলগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. শামসুদ্দীন আহমদ বলেন, জিংকের অভাবজনিত কারনে কিছু কিছু এলাকায় ধান গাছ লালচে হয়ে যাচ্ছে। এ সমস্যা থেকে উত্তরনের জন্য ৫ কেজি ইউরিয়ার সাথে ৩ কেজি এমওপি সার মিক্সাড করে ধান  ক্ষেতে প্রয়োগ করলে ৩ দিনের মধ্যে তা সেরে যাবে। পুষ্টি ঘাটতির কারনে যেসব জমিতে এই সমস্যা দেখা দিয়েছে সেসব জমিতে মিক্সাড সার প্রয়োগ করার পরামর্শ দিয়েছেন বলে তিনি জানান।