রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

সিলেট-আখাউড়া রেল সেকশনে ট্রেনের টিকেট কালোবাজারে : শমশেরনগর ষ্টেশনে সহকারী মাস্টারের বিরুদ্ধে অভিযোগ



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ॥
সিলেট-আখাউড়া রেল সেকশনে একটি সিন্ডিকেট চক্র টিকেট কালোবাজারে বিক্রি করার অভিযোগ রয়েছে দীর্ঘদিনের। এক ষ্টেশনের টিকেট অন্য ষ্টেশনে চোরাই পথে বিক্রি হচ্ছে। শমশেরনগর ষ্টেশনের সহকারী মাষ্টারসহ এই সেকশনের কতিপয় ব্যক্তিরা সম্প্রতি ঈদের সময়ে যাত্রীদের লাইনে দাঁড় করিয়ে ভিন্ন কৌশলে টিকেট চোরাই পথে দ্বিগুন মূল্যে বিক্রি করছেন বলে অসংখ্য অভিযোগ উঠেছে। ট্রেনের যাত্রীদের অভিযোগে রেলওয়ে বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে কথা বলে এসব অভিযোগের বেশ কিছু সত্যতা পাওয়া গেছে।
ট্রেন যাত্রীদের অভিযোগে জানা যায়, সিলেট-আখাউড়া রেল সেকশনে দীর্ঘদিন ধরে টিকেট কালোবাজারে বিক্রি হলেও এটি কোন অবস্থাতেই রোধ করা সম্ভব হচ্ছে না। শ্রীমঙ্গল ষ্টেশনের টিকেট শমশেরনগরে আবার শমশেরনগরের টিকেট শ্রীমঙ্গলে, সিলেট কিংবা কুলাউড়া ষ্টেশনের টিকেট শমশেরনগর ও ভানুগাছ ষ্টেশনে চোরাই পথে এনে বিক্রি করা হয়। দুই, তিন দিন আগেও ষ্টেশনে গিয়ে টিকেট কাটতে চাইলে অধিকাংশ সময়ে টিকেট নেই বলে জানিয়ে দেয়া হয়। পরে দ্বিগুন টাকা দিলে কৌশলে টিকেট দেয়া হয়। অন্য ষ্টেশনের টিকেট এনেও বিক্রি করা হয়।
শমশেরনগর বিমান বাহিনী ইউনিটের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দু’জন সার্জেন্ট, চট্রগ্রামের যাত্রী পূরবী, ঢাকার যাত্রী শিক্ষক রহিম খাঁন, ব্যবসায়ী জলাল আহমদ, আলমগীর হোসেন, চাকুরীজীবি এম.কে. আমিন, আব্দুস শহীদ, ব্যবসায়ী আব্দুল মন্নান, রফিক মিয়া, শাহজাহান মিয়া সহ বেশ কয়েকজন যাত্রী অভিযোগ করে বলেন, শমশেরনগর ষ্টেশনের সহকারী মাষ্টার কবির আহমদ একান্তই নিজস্ব লোক ছাড়া টিকেট শেষ হয়ে গেছে এই অজুহাত দেখিয়ে দ্বিগুন টাকা নিয়ে পরে টিকেট বিক্রি করেন। সব সময়েই মাষ্টার কবির এভাবে টিকেট বিক্রি করে বিপুল পরিমাণে উৎকোচ আদায় করে নিচ্ছেন। বেশি টাকায় বিভিন্ন সময়ে শ্রীমঙ্গল, কুলাউড়া এমনকি সিলেট ষ্টেশনের টিকেট এনেও তিনি বিক্রি করেন। ঈদের এই সময়ে পূর্বে নির্ধারিত যাত্রীদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে লাইনে দাঁড়ানো দু’একজনকে টিকেট দিয়ে অন্যান্য টিকেট ফাঁকে ফাঁকে কেটে খাতা পত্রের ভিতরে লোকিয়ে ফেলেন। এছাড়াও নিজস্ব মানুষ রেখে কৌশলে টিকেট বিক্রি করেন। একইভাবে এই সেকশনের শ্রীমঙ্গল, কুলাউড়া, ভানুগাছ ষ্টেশনে টিকেট কালোবাজারে বিক্রি করা হয় বলে যাত্রীরা অভিযোগ করেন।
অভিযোগ বিষয়ে শমশেরনগর ষ্টেশনের সহকারী মাষ্টার কবির আহমদ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তিনি যথারীতি টিকেট বিক্রি করছেন। কোথাও কালোবাজারে কিংবা অন্য ষ্টেশনের টিকেট শমশেরনগরে এনে বিক্রি করা হয় না। এছাড়াও কোন যাত্রীর সাথে তিনি অসদাচরন করেননি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কুলাউড়াস্থ ট্রাফিক সিগন্যালের একজন উর্দ্ধতন কর্মকর্তা বলেন, এই সেকশনে একটি সিন্ডিকেট চক্র এভাবে দীর্ঘদিন ধরে টিকেট কালোবাজারে বিক্রি করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তাদের রোধ করা সম্ভব হচ্ছে না। তাছাড়া শমশেরনগর ষ্টেশনের সহকারী মাষ্টার কবির আহমদ এর বদলির আদেশ বেশ আগে হলেও অদৃশ্য কারনে বদলি হননি।
এ ব্যাপারে রেলওয়ে কুলাউড়াস্থ টি.আই.সি (ট্রাফিক ইন্সপেক্টর কমার্শিয়াল) নূরুল ইসলাম বলেন, এই ধরণের কোন অভিযোগ তিনি জানেন না। তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন এবং কেউ লিখিত অভিযোগ দিলে তিনি সরাসরি ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।