বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মৌলভীবাজারে গৃহবধুকে ধর্ষণের দায়ে ৩ বখাটের যাবজ্জীবন



স্টাফ রিপোর্টার::
মৌলভীবাজারে গৃহবধুকে পালাক্রমে ধর্ষণ ও পাশবিকতার আপত্তিকর ছবি তুলে চাঁদা আদায়ের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় ৩ বখাটেকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন সিলেট বিভাগীয় দ্রুত বিচার ট্রাইবুনাল। ট্রাইবুনালের বিচারক মো. মকবুল আহসান বৃহস্পতিবার এ রায় দেন। রায়ে এক আসামীকে খালাস দেয়া হয়েছে।

দন্ডপ্রাপ্ত আসামীরা হচ্ছে- মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ থানার রামপাশা গ্রামের মৃত মাওলানা আব্দুল জলিলের পুত্র জহুর আলী (৪৮), মৌলভীবাজার সদর থানার বলিয়ারবাঘ গ্রামের মির আলীর পুত্র কয়ছর মিয়া (৩২) ও একই থানার সোমপাশি গ্রামের মৃত সোলেমান মিয়ার পুত্র সাদেক মিয়া (৩০) এবং খালাসপ্রাপ্ত ঢেউপাশা গ্রামের মৃত আব্দুল করিমের পুত্র ফয়জুল মিয়া (৩৬)। বর্তমানে দন্ডপ্রাপ্ত আসামী সাদেক মিয়া পলাতক রয়েছে।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা গেছে, ২০১০ সালের ২২ ফেব্রুয়ারী দুপুর ২ টার দিকে মৌলভীবাজারের শাহমোস্তফা রোড হতে একটি সিএনজি অটোরিক্্রায় মৌলভীবাজার কলিমাবাদ এলাকার বাসিন্দা খালেদ মিয়ার সুন্দরী স্ত্রী ফাতেমা বেগমকে সিভিল সার্জনের অফিসের কথা বলে পূর্ব পরিচিত জহুর মিয়াসহ ৪ বখাটেরা ফাতেমাকে মৌলভীবাজারের প্রেমনগর চা বাগানের নির্জন টিলায় নিয়ে যায়।

সেখানে বখাটেরা পালাক্রমে তাকে ধর্ষন করে এবং মোবাইল দিয়ে ধর্ষনের আপত্তিকর ছবি তোলে রাখে। পরে বখাটেরা বিষয়টি মামলা বা কাউকে না বলার হুমকি দিয়ে ফাতেমাকে একটি মিশুক গাড়ীতে তুলে দিলে তিনি বাসায় চলে যান। এর কিছুদিন পর ফাতেমার কাছে ধর্ষক জহুর আলী প্রতিমাসে ১০ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করে এবং এ দাবীকৃত টাকা না দিলে ওই আপত্তিকর ছবিগুলো সমাজে তার পরিবারের কাছে হেয় প্রতিপন্ন করবে বলে হুমকী দেয়। এ ভয়ে ফাতেমা বেগম প্রতিমাসে জহুর আলীকে তার দাবীকৃত টাকা দিয়ে আসছিলেন।

ফাতেমার স্বামী অসুস্থ্য হয়ে পড়ায় ২০১১ সালের ২ নভেম্বর মাসের নির্ধারিত চাঁদার ১০ হাজার টাকা জোগাড় করতে না পেরে জহুর আলীকে ২৫শ’ টাকা দেন। কিন্তু জহুর আলী ক্ষিপ্ত হয়ে এ টাকা না নিয়ে তার সাথে ঝগড়ায় লিপ্ত হয়। পরে ফাতেমার সহযোগীতায় মৌলভীবাজার গোয়েন্দা পুলিশ জহুর আলীকে আটক করে। পরে তার স্বীকারোক্তি মতে ঘটনার সাথে জড়িত একে একে কয়ছর মিয়া, সাদেক মিয়া, ও ফয়জুল মিয়াকে গ্র্রেপ্তার করা হয়। এ ঘটনায় ফাতেমা বেগম বাদি হয়ে ৪ বখাটের বিরুদ্ধে মৌলভীবাজার মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। নং-২ (০২-১১-১৫)।

দীর্ঘ তদন্ত শেষে মৌলভীবাজার থানার এসআই আবু জাফর মোঃ সালেহ ২০১২ সালের ৩১ জানুয়ারী ৪ বখাটেকে অভিযুক্ত করে আদালতে এ মামলার চার্জশিট (অভিযোগপত্র) দাখিল করেন এবং চলতি বছরের ১২ জানুয়ারী থেকে এ মামলার বিচারকার্য্য শুরু হয়। দীর্ঘ শুনানী ও ৮ সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আদালত আসামী জহুর আলী, কয়ছর মিয়া, সাদেক মিয়া, ও ফয়জুল মিয়াকে নারীর ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ২০০০ এর ৯ (১) ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে তাদের প্রত্যেককে যাবজ্জীবন ১০ হাজার টাকা করে জরিমান অনাদায়ে আরো এক বছরের কারাদন্ড এবং অপর আসামী ফয়জুল মিয়ার দোষ আদালতে প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে বেকসুর খালাস প্রদান করেন।

রাষ্ট্রপক্ষে স্পেশাল পিপি এডভোকেট কিশোর কুমার কর মামলাটি পরিচালনা করেন।