বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রসঙ্গঃ প্রস্তাবিত উসমানগড় উপজেলা বাস্তবায়নের দাবী।



5555

।। লিয়াকত খান ।।

শ্রদ্ধা, ভালবাসা ও সৌহার্দপূণর্ মন থেকে বলছি যে, ইতিহাস ও ঐতিহ্যগত দৃষ্টিকোণ থেকে কোন এলাকাকেই ছোট করে দেখার অবকাশ নেই। প্রতিটি এলাকারই নিজস্ব ইতিহাস ও ঐতিহ্য আছে। গৌরব করার মত আছে অতীত ও বর্তমান। কিন্তু একটি প্রশাসনিক কাঠামো নির্ভর করে উক্ত এলাকার সার্বিক অবস্থা পর্যালোচনার উপর। সেই ক্ষেত্রে উসমানগড় নামক স্থানে প্রস্তাবিত উপজেলা পরিষদ নির্মাণ বাস্তবসম্মত ও অধিকতর যুক্তিযুক্ত। ১৯৮৩ সালে তৎকালীন সরকারের প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণের সুবাদে মৌলবীবাজার মহকুমা জেলা ও জেলার অন্তর্গত থানাসমূহকে উপজেলায় রূপান্তরিত করা হয়। সুবিধাবঞ্চিত কিছু এলাকা ও প্রশাসনিক কাজের সুবিধার্থে কমলগণ্জ উপজেলার শমশেরনগর, পতনঊষার রাজনগর উপজেলার কামারচাক কুলাউড়া উপজেলার হাজীপুর, শরীফপুর, টিলাগাঁও ইউনিয়নকে নিয়ে একটি উপজেলা গঠনের প্রয়োজনীয়তা অনুভূত হয়, বিধায় ৬টি ইউনিয়নের মধ্যবর্তী স্থান, উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা, বন্যামুক্ত পরিবেশ ও সরকারের বিপুল পরিমান খাস জমি সম্বলিত উসমানগড় নামক স্থানকে প্রস্তাবিত উপজেলার স্থান চিহ্নিত করা হয়। ১৯৮৫ সালে সরকারী উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগণ এব; বিশিষ্ট গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে উসমানগড় উপজেলা গঠনের নীতিগত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। কিন্তু কিছু সংখ্যক ব্যক্তিবর্গের অনঢ় অবস্থানের কারনে উপজেলা বাস্তবায়ন থমকে রয়েছে। যা হতাশাব্যঞ্জক, সুচিন্তা ও সুবিবেচনার পরিপন্থী। প্রস্তাবিত উসমানগড় উপজেলা ৬টি ইউনিয়নের মধ্যবর্তী স্থানে অবস্থানের ফলে প্রশাসনিক কার্যক্রম সহজতর হবে এব; প্রতিটি ইউনিয়ন, উপজেলা ও জেলার সাথে উন্নত সড়ক ব্যবস্থা সর্বসাধারণের রাষ্ট্র প্রদত্ত নাগরিক সুবিধা আদায়ের পথ সুগম করবে। রেলপথে শমশেরনগর, মনু ও টিলাগাঁও রেলস্টেশন স্বল্প দূরত্বে অবস্থানের ফলে আন্তঃনগর সুযোগ সুবিধা বর্ধিত হবে। নদী মাতৃক বাংলাদেশে নদী পথের গুরত্ব অনেকটা হ্রাস পেলেও নদী ও নদী পথের গুরত্ব অপরিসীম। উসমানগড়ের গা ঘেষে বয়ে যাওয়া উজান-ভাটির মিলনমালা খ্যাত খরস্রোতা নদী মনুর অবদান অনস্বীকার্য। উসমানগড় এলাকায় বিপুল পরিমানে সরকারী খাস ভূমি থাকায় সরকারী ভবন নির্মাণ, স্কুল-কলেজ, চিকিৎসালয় সহ অন্যান্য ভবন নির্মাণে সরকারী ব্যয় সংকোচন ও আশেপাশে ব্যক্তি মালিকানাধীন প্রচুর ভূমিতে বেসরকারীভাবে শিল্পকারখানা, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান নির্মাণে ব্যক্তি ও গোষ্টি উদ্যোগি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। উসমানগড় উপজেলা নামকরণ ইতিহাস ও ঐতিহ্যের গুরত্ব বহন করে। খাঁজা উসমানের রাজধানী খ্যাত উসমানগড় ইতিহাস ও ঐতিহ্যেরই সঠিক মুল্যায়ন। নৈসর্গিক সৌন্দর্য্য বেষ্টিত উঁচুনিচু টিলা, ঝিল আর সমতল ভূমির সমন্বয়ে অবস্থিত উসমানগড় এলাকা। বিস্তৃত চা, রকমারি ফলের বাগান ও সারিসারি গাছ-গাছারীর সমারোহে যেন সবুজ, সজীব ও প্রানবন্ত এক উদ্যান। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে নির্মিত এশিয়ার অন্যতম বৃহত্তম বিমানঘাঁটি সংলগ্ন এলাকাটি বন্যামুক্ত। গা ঘেষে বয়ে যাওয়া মনু নদী আর কেওলা বিলের বুক চিরে লাগাটার আঁকাবাঁকা পথ চলা। বষর্া মৌসুমে কেওলার ঢেউ তোলা পানিতে আবহমান বাংলার লোক-ঐতিহ্য মনমাতানো নৌকা বাইচ, মনের অজান্তেই কন্ঠে ভেসে উঠে- এত রূপে অপরূপা তুমি, ও আমার জননী। তাই আসুন, ‘তাল গাছটা আমার’ এই মনোবৃত্তি ত্যাগ করে ব্যক্তি, এলাকা বিদ্ধেষ পরিহার করে ঐক্যবদ্ধভাবে সকল কলহ-বিবাদ-বিসম্বাদ বিস্মৃত হয়ে পরস্পর ভ্রাতৃত্ববোধে আলিঙ্গনাবদ্ধ হই এব; এলাকার সার্বিক উন্নয়নের স্বার্থে একযোগে, একমনে, একসুরে-তালে, বৈঠার তালেতালে কেওলাবিলে নৌকা বাইচের আয়োজন করি আর একই কন্ঠে গেয়ে উঠি………,” ঝিলমিল ঝিলমিল করেরে ময়ূর পঙ্খী নায়।”

লেখক: যুক্তরাজ্য প্রবাসী

(লেখাটি নিজস্ব মতামত)