বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রকৃতির গহীন অরণ্যে হামহাম জলপ্রপাত



kkkkk
।। পিন্টু দেবনাথ ।।
প্রকৃতি এত সুন্দর করে সাজিয়ে রেখেছে পাহাড়ী অধিবাসীরা পানি পতনের স্রোতধ্বনীকে হামহাম বলতো তাই এটি হামহাম নামে পরিচিত হয়ে গেল। অবিরত পাহাড়ী ঝরনা থেকে জল পড়েছে। শীতল এই ঝর্ণার কাছে গেলে বুঝা যাবে গরমও নয় ঠান্ডাও নয় যেন সব সময় আরামদায়ক। সেই অরণ্যের ভিতরটি নাম হচ্ছে হামহাম জলপ্রপাত। মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের কুরমা গহীন অরন্যে লুকিয়ে থাকা রোমাঞ্চকর নয়নাভিরাম হামহাম জলপ্রপাত অবস্থিত।
গহীন অরণ্যঘেরা দুর্গম পাহাড়ী এলাকায় স্রষ্টার অপূব সৃষ্টি এই জলপ্রপাত ভ্রমন প্রিয় পর্যটকদের হাতছানী দিয়ে কাছে ডাকছে। যোগাযোগ ব্যবস্থার অভাবে এই জলপ্রপাতটি লোকচক্ষুর অন্তরালে পড়ে রয়েছে। সরকারী উদ্যোগে হামহাম জলপ্রপাতটি পরিণত হয়ে উঠতে পারে মৌলভীবাজারের বড়লেখার আরেক মাধবকুন্ডে।
মৌলভীবাজর জেলা হচ্ছে পর্যটন সম্ভাবনাময় এলাকা। এখানে রয়েছে পর্যটকদের কাছে টানার সব কিছু। কিন্তু এর চেয়ে কাছে টানার আকষনীয় স্থান রয়েছে দুর্গম পাহাড়ের ভিতরে। নিজ চোখে না দেখলে তা বিশ্বাস হবে না। সেই নয়নাভিরাম রোমাঞ্চিত জলপ্রপাত কুরমা হামহাম জলপ্রপাত। ১৩০ ফুট উচচতার এই জলপ্রপাতটিতে কমলগঞ্জ উপজেলা সদর থেকে প্রায় ৩০কিঃমিঃ পূর্ব-দক্ষিণে রাজকান্দি রেঞ্জের ৭ হাজার ৯৭০ একর আয়তনের কুরমা বনবিট এলাকার পশ্চিমদিকে চাম্পারায় চা বাগান। পূর্ব-দক্ষিণে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সীমান্ত। এই বনবিটের প্রায় ৮ কিঃমিঃ অভ্যন্তরে দৃষ্টিনন্দন হামহাম জলপ্রপাতের অবস্থান। সেখানে সরাসরি যানবাহন নিয়ে পৌঁছার ব্যবস্থা নেই।
কমলগঞ্জ-কুরমা চেকপোষ্ট পর্যন্ত প্রায় ২৫কিঃ পাকা রাস্তায় স্থানীয় বাস, জীপ,মাইক্রোবাস যোগে যেতে পারলেও বাকী ১০ কিঃ মিঃ পায়ে হেঁটে যেতে হয়। কুরমা চেকপোষ্ট থেকে চাম্পারায় চা বাগান পর্যন্ত মাটির রাস্তা। যেতে যেতে আপনি চারিদিকে দেখতে পাবেন সবুজ চা বাগানের দৃশ্য। চায়ের কন্যারা মনের সুখে দুটি পাতা একটি কুঁড়ি তুলছেন। সেখান থেকে প্রায় ৫ কিঃমিঃ দূরে সীমান্ত এলাকায় ত্রিপুরা আদিবাসীদের পল¬¬ী বন বিভাগের কুরমা বিটের অরণ্যঘেরা দুর্ঘম পাহাড়ী এলাকা তৈলংবাড়ী। অবশ্য সিএনজি যোগে তৈলংবাড়ী পর্যন্ত পৌঁছা যাবে। ভ্রমণ পিপাসু পর্যটকরা যেভাবেই যেতে চান না কেন গহীন অরন্যে প্রবেশের পূর্বে তৈলংবাড়ী কিংবা কলাবন বস্তির আদিবাসীদের সাহায্য নিয়ে প্রায় ৮ কিমি. দুর্ঘম পাহাড়ের ভিতর হামহাম জলপ্রপাতে যেতে হবে। পাহাড়ের আঁকাবাঁকা উঁচু-নিচু পথে ট্রেকিং করা খুবই কঠিন এবং কষ্টের। মাঝেমধ্যে সিমেন্টের ঢালাই করার মতো দেখতে বড় বড় পাথরের খণ্ড খুবই পিছলে, ডানে-বামে তাকালেই ভয় লাগবে। তাই ট্রেকিং করার সময় সবাইকে একটি করে বাঁশের লাঠি হাতে নিয়ে পাহাড়ী এই পথে খুবই সাবধানে হাঁটতে হবে। কলাবন পাড়া থেকে হাঁটার সময় কলাগাছগুলো দেখলে মনে হবে কে যেন সুন্দর, সুশৃংখল, সারিবদ্ধভাবে লাগিয়ে রেখেছে। জারুল, চিকরাশি কদমের সারিবদ্ধ চারাগুলোর ফাঁকে ফাঁকে হাজারো প্রজাপতি ডানা মিলিয়ে উড়ে যাচ্ছে বহুদূরে। ডুমুর গাছের শাখা আর বেত বাগানে দেখা মিলবে অগুনিত চশমা বানরের। চারদিকে গাছগাছালি, ও প্রাকৃতিক বাঁশবনে ভরপুর আর ডলু, মুলি, মিরতিঙ্গা, কালি ইত্যাদি অদ্ভুত নামের বিভিন্ন প্রজাতির বাঁশ বাগানের রাজত্ব আপনাকে দেবে বাড়তি আনন্দ। পাথুরে পাহাড়ের ঝিরি পথে হেঁটে যেতে যেতে সুমধুর পাখির কলরব আপনার মনকে ভাললাগার অনুভূতিতে ভরিয়ে দেবে। দূর থেকে শোনা যাবে বিপন্ন বনমানুষ, উল¬ুক, গিবনসের ডাক।
কিছুদূর এগিয়ে যাওয়ার পর দু’চোখের সামনে ভেসে উঠবে পাহাড় থেকে ধোঁয়ার মতো ঘন কুয়াশার অপূর্ব দৃশ্য। মনে হবে নয়নাভিরাম পাহাড় হাতছানি দিয়ে ডাকছে। এভাবেই হাঁটতে হাঁটতে একসময় পৌঁছে যাবেন হামহাম জলপ্রপাতের খুব কাছাকাছি। দূর থেকে শুনতে পাবেন হামহাম জলপ্রপাতের শব্দ। কাছে গিয়ে দেখতে পাবেন প্রায় ১৩০ ফুট ওপর হতে হামহাম শব্দে জল পড়ার সেই অপূর্ব দৃশ্য। আপনার মন ক্ষনিকের জন্য হয়ে উঠবে প্রাণঞ্চল্য। সেখানে কিছুক্ষন কাটিয়ে নিতে হবে ফেরার প্রস্তুুতি। ঢালু ও পিচ্ছিল পাহাড়ী পথ বেয়ে উপরে ওঠা কষ্ট হলেও সহজ, কিন্তু নিচে নেমে আসা খুবই বিপদজ্জনক ও কঠিন। তাই ভ্রমন কারীদের সবাইকে কাছাকাছি থেকে সতর্কতার সহিত ট্রেকিং শুরু করতে হবে। প্রায় সাড়ে চারঘন্টা পর ফিরা যাবে কলাবনে। ভ্রমন পিপাসু মানুষ কমলগঞ্জ অথবা শ্রীমঙ্গল শহর হতে যানবাহন ভাড়া করে ভোর ছয়টার মধ্যেই হামহামের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিতে হবে।  মনোমুগ্ধকর দৃশ্য, মনোরম প্রকৃতির নির্জন স্থান দেখতে চলে আসতে পারেন নয়নাভিরাম হামহাম জলপ্রপাতে । স্থানীয়রা বলেন, সরকার এই জলপ্রপাতটি পর্যটকদের আগমনের জন্য সবধরনের সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করলে মৌলভীবাজার জেলা তথা বৃহত্তর সিলেট বিভাগের অন্যতম একটি পর্যটন এলাকা হিসাবে রূপান্তির হবে।

লেখক : সম্পাদক, কমলকুঁড়ি পত্রিকা