শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দুর্গাপূজা ও ঈদকে সামনে রেখে মণিপুরী তাঁত কাপড়ে দেশী-বিদেশী পর্যটকের চাহিদা বেড়েছে



55555

সাইফুল ইসলাম, শ্রীমঙ্গল থেকে :
আগামী দুর্গাপূজা ও ঈদকে সামনে রেখে মৌলভীবাজারের ঐতিহ্যবাহী মণিপুরী তাঁতসামগ্রীর চাহিদা  বেড়েছে। এতে মণিপুরী তাঁতের প্রতি দেশী-বিদেশী পর্যটকের মন আকৃষ্ট করেছে।
শ্রীমঙ্গল ও কমলগঞ্জ উপজেলার মণিপুরী অধ্যুষিত ১০টি গ্রামের প্রতিটি ঘরে ঘরে চলছে তাঁতের বিভিন্ন সামগ্রী তৈরির কাজ। পুরোদমে বেচাকেনা এখনো শুরু না হলেও ব্যবসায়ীরা আশা করছেন, সব মিলিয়ে আগামী  ঈদ ও দুর্গাপূজায় তাদের তৈরি তাঁতসামগ্রী বিক্রি প্রায় অর্ধকোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে।
কমলগঞ্জ-শ্রীমঙ্গলে মণিপুরীদের তাঁতে উৎপাদিত বিভিন্ন সামগ্রী স্থানীয়ভাবে প্রান্তিক ব্যবসায়ীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে ক্রয় করে থাকেন। এসব সামগ্রী আবার স্থানীয় গ্রামগুলোর দোকানগুলোতে বিক্রি করা হয়।
মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলার রামনগর গ্রামসহ প্রায় ১০টি গ্রাম আর কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর, রাণীরবাজার, কালারাইবিল, ভানুগাছ, বালিগাঁও, ইসলামপুর ঈদ ও পূজাকে সামনে রেখে মণিপুরী তাঁতীরা ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন।  এছাড়া উৎপাদিত দ্রব্য বিক্রি করতে দোকানিরা বসেছেন বিভিন্ন আইটেমের সামগ্রী নিয়ে।
অন্যদিকে, কমলগঞ্জের মাধবপুর ও শ্রীমঙ্গলের রামনগরে মণিপুরী শাড়ি, লুঙ্গি, থ্রিপিস, পাঞ্জাবি, বেডসিট, বেড কভার, উলের চাঁদর, মাফলার, গামছা, বাঁশের কাজ করা সামগ্রী ও ব্যাগের দোকান খোলা হয়েছে।
এদিকে জেলার একমাত্র মণিপুরী তাঁতসামগ্রীর বাজার হল পর্যটন নগরীর শ্রীমঙ্গলের রামনগর মণিপুরীপাড়া। এখানকার ৬৫টি পরিবারের মধ্যে প্রায় ৪৫টি পরিবার দুর্গাপূজা ও ঈদকে সামনে রেখে তাদের নিজস্ব ডিজাইনে কাপড় বোনে। এ কাপড়গুলো এখানকার ১১ টি দোকানে প্রদর্শিত হয়। দেশী-বিদেশী ও জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে ক্রেতারা এসে এগুলো কিনে থাকেন।
ব্যবসায়ীরা জানান, বছরে বড় উৎসব দুই ঈদ ও এক দুর্গাপূজা । মূলত ঈদ ও পূজার বাজার বা কেনাকাটা পুরোদমে শুরু হতে ২০/২৫ দিন বাকি। গত বছর প্রতিটি বাড়ি ও দোকান মিলে প্রায় অর্ধকোটি টাকার ব্যবসা হয়েছে। এ বছর কোটি টাকার লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে বলে তারা আশা করছেন।
এবার শাড়ি প্রকারভেদে ৪০০ থেকে ৫ হাজার টাকা , নকশী কাঁথা ১৪০০ থেকে করে ৪ হাজার, বিভিন্ন ক্যাটাগরির থ্রিপিস ৩৫০ থেকে ২ হাজার টাকার বিক্রি হচ্ছে। ছোট শিশুদের ফতুৃয়া রয়েছে। এ ছাড়া বাঁশের তৈরি বিভিন্ন সামগ্রীর দোকানও এখানে রয়েছে। ঈদে এ সব দোকানে ভাল বিক্রি হয় বলে জানান ব্যবসায়ীরা।
ঢাকা থেকে আগত দুই পর্যটক মো: শাহাবুদ্দিন শেখ (পেশায় তিনি আইনজীবী) আরেকজন নূর মো: ইকরামুল কবির (তিনি এনসিসি ব্যাংক উত্তরা দক্ষিণখান শাখার সিনিয়র কর্মকর্তা) তাদের সাথে দেখা হলো রামনগর মণিপুরী পাড়ায়। তিনি জানান, এখানে মণিপুরী তাঁতের যেসব ডিজানের নুতন নুতন কাপড় তৈরি হয় তা ঢাকা শহরে পাওয়া যায় না। আমরা প্রতি বছরও স্বপরিবার নিয়ে শ্রীমঙ্গল রামনগর মণিপুরী পাড়ায় তাঁতের কাপড় ক্রয় করে থাকি।
প্রীতি মণিপুরী হ্যান্ডিক্রাফটসের স্বত্ত্বাধিকারী এন প্রদীপ কুমার সিংহ জানান, ঈদ ও পূজায় সবমিলিয়ে কোটি টাকার সামগ্রী বিক্রি হবে বলে আশা করছেন। এই শিল্পের বিশ্বব্যাপী প্রসার ও তাঁতীদের রক্ষার জন্য সুদের হার কমিয়ে প্রকৃত তাঁতীদের আরও বেশি করে ঋণ দিতে হবে।
মর্ডাণ মণিপুরী হ্যান্ডিক্রাইফটস্ প্রোপ্রাইটর সান্তনা দেবী জানান, আমার কাছে যে ডিজাইনের তাঁতের শাড়ী, থ্রিপিস ও মেয়েদের ফতুয়া রয়েছে এসব আইমের ডিজাইনের কাপড় কারো কাছে নেই। প্রতিদিন আমার দোকানে দেশী-বিদেশী ট্যুরিস্ট ও স্থানীয় ব্যবসায়ীরা মণিপুরী তাঁতের কাপড় ক্রয় করেন। তিনি আশা করছেন ঈদ ও পূজায় ভালো ব্যবসা হবে। শিল্পকে এগিয়ে নিতে ও রক্ষা করতে এখনই সরকারকে প্রকৃত তাঁতীদের সুদমুক্ত ঋণ সুবিধা দেওয়া প্রয়োজন বলে তিনি জানান।
রামনগর স্থানীয় তাঁত ব্যবসায়ী ও মণিপুরী নারী সংগঠনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জয়া শর্মা জানান, সুদমুক্ত ঋণ না পাওয়ায় অনেক মণিপুরী পরিবার তাঁতের ব্যবসা ছেড়ে দিয়ে অন্য পেশায় চলে গেছে। এই শিল্পের অনেক কদর দেশে ও বিদেশে রয়েছে।