মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

৪শ’ টাকা মজুরিসহ বিভিন্ন দাবিতে ।। প্রধানমন্ত্রী বরাবরে চা শ্রমিক সংঘের স্মারকলিপি প্রদান



TEA rally
নূরুল মোহাইমীন মিল্টন, কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার)  
৪শ’ টাকা মজুরি, সাপ্তাহিক ছুটির দিনের মজুরি প্রদানসহ বিভিন্ন দাবিতে মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেছে চা শ্রমিক সংঘ। মৌলভীবাজার চা শ্রমিক সংঘের উদ্যোগে রবিবার দুপুরে মিছিলযোগে বিভিন্ন চা বাগানের শ্রমিক প্রতিনিধিরা এই স্মারকলিপি প্রদান করেন।
স্মারকলিপিতে চা শ্রমিক সংঘ দাবি তোলেন, বর্তমানে চা শ্রমিকরা নি¤œতম দৈনিক মজুরি ৬৭-৬৯ টাকা পাচ্ছেন। এই টাকা দিয়ে স্ত্রী পুত্র কন্যাসহ ৬ সদস্যের এক পরিবারের এক বেলাই খাবার চলে না। এজন্য দৈনিক ন্যূনতম ৬০০ টাকা মজুরি এবং একজন শ্রমিকের সর্বনি¤œ মূল মজুরি মাসিক ১৮,০০০ টাকা হওয়া উচিত। এ সময় মহাজোট সরকার একজন সরকারি কর্মচারী ও কর্মকর্তার বেতন দ্বিগুণ করে সর্বনি¤œ মূল বেতন ৮,২৫০ টাকা এবং সর্বোচ্চ ৭৫,০০০ টাকা, এমনকি ৯০,০০০ টাকা নির্ধারণ করে। মহাজোট সরকারের গঠিত বেতন কমিশন যে বেতন কাঠামো ঘোষণা করেছে তাতে বাজারদর অনুযায়ী বাঁচার মতো ন্যূনতম ন্যায়সঙ্গত বেতন না হওয়া সত্ত্বেও সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন বেতনে বৈষম্য মাত্রাতিরিক্ত হওয়া এবং বেতন বৃদ্ধির ফলশ্রুতিতে মুদ্রাস্ফীতি ও মূল্যস্ফীতি বেড়ে যাওয়ার ফলে বেসরকারি খাতে নিয়োজিত কোটি কোটি শ্রমিক-কর্মজীবী, শ্রমজীবী ও জনগণ এই সুবিধা বঞ্চিত থাকছে।
সংশোধিত শ্রম আইন ২০১৩ অনুযায়ী চা বাগানের শ্রমিকদের সাপ্তাহিক ছুটির দিনের মজুরি প্রদান বাধ্যতামূলক, কিন্তু বাগান প্রতিষ্ঠার সময় থেকে বাগান মালিকরা তা অগ্রাহ্য করে চলেছেন। একইভাবে শ্রম আইনে নিয়োগপত্র, পরিচয় পত্র, গ্র্যাচুইটি, কোম্পানীর লভ্যাংশের ৫% শ্রমিকদের পাওনা থাকলেও তা দেওয়া হচ্ছে না। রেশনের নামে পার্মানেন্ট শ্রমিককে খাওয়ার অযোগ্য সাপ্তাহে ৩ কেজি ২৭০ গ্রাম চাল দেওয়া হয়। যা জমির ( যাদের জমি আছে ) খাজনার নামে কেটে নেওয়া হয়।  দেশে প্রায় দশ লক্ষ চা শ্রমিক ও তাদের সন্তানদের সুষ্ঠু চিকিৎসা এবং শিক্ষার অধিকার কার্যকর করার জন্য প্রতিটি ফাঁড়ী বাগান ও মূল বাগানে একজন করে এমবিবিএস ডাক্তার, একজন প্রসূতি বিষেশজ্ঞ, একজন ষ্টাফ নার্সসহ ক্লিনিক, রোগীদের হাসপাতালে নেওয়ার জন্যে এ্যাম্বুল্যান্স এবং প্রতিটি ফাড়ী বাগানে একটি প্রাইমারী স্কুল, প্রতিটি মূল বাগানে একটি কলিজিয়েট স্কুল, কয়েকটি বাগানের শ্রমিক সন্তানদের জন্য সুবিধাজনক স্থানে ডিগ্রী কলেজ এবং প্রত্যেক ভ্যালীতে একটি করে বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ প্রতিষ্ঠা করে বিনা বেতনে শিক্ষার সুযোগ নিশ্চিত করা জরুরী। কোন কোন ক্ষেত্রে পাকা ঘর করলেও অনেকক্ষেত্রে এক বাসায় দুই পরিবারকে থাকতে হয়
আমাদের দেশে চা একটি অর্থকরি ফসল, সরকারের রাজস্ব আদায়ের ক্ষেত্রেও এই খাত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। চায়ের উৎপাদন বাড়ানোর মাধ্যমে দেশীয় চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রপ্তানী করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব। চা শ্রমিকদের উপর শোষণ-লুণ্ঠন, নিপীড়ণ-নির্যাতনের এহেন মাত্রা প্রাচীন দাস সমাজের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়, চা শিল্প রক্ষা বলতে মালিকরা শুধু তাদের বল্গাহীন শোষণ-লুণ্ঠনকেই বুঝান। তাই চা শ্রমিকদের উপরোক্ত সমস্যা সমাধানে এবং সুস্থ্য ও সুষ্ঠুভাবে বেঁচে থাকার প্রয়োজনে নি¤েœাক্ত দাবিসমূহ বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ ও পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য জোর আহবান জানাচ্ছি।
ন্যূনতম মজুরি দৈনিক ৪০০ টাকা নির্ধারণ, চা-শিল্পের মজুরি নির্ধারণে দ্বি-পাক্ষিক চুক্তির মাধ্যমে চলমান নামকাওয়াস্তে মজুরি বৃদ্ধির ধারা বাতিল করে নিম্নতম মজুরি বোর্ড গঠন, শ্রম আইন(সংশোধন) ২০১৩ এর ১০৩(গ) ধারা অনুযায়ী বকেয়াসহ সাপ্তাহিক ছুটির দিনের মজুরি প্রদান, চা-বাগানে বসবাসকারী শ্রমিকদের ভোগদখলকৃত ভূমির উপর স্বত্ব অধিকার, এক মাসের বেতনের সমপরিমান বছরে দুইটি উৎসব বোনাস ও একটি উৎসাহ বোনাস, চা ও রাবার  শ্রমিকদের পূর্ণাঙ্গ রেশন প্রদান, চা শিল্পে শ্রম আইনের যথাযথ বাস্তবায়ন, অবাধ ট্রেড ইউনিয়ন অধিকারসহ সংগঠন করার ¯া^াধীনতা নিশ্চিত, চিকিৎসা ও শিক্ষা সুবিধাসহ বিভিন্ন দাবি স্মারকলিপিতে তোলে ধরা হয়।