শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মাত্র ৫০ গ্রাম চা পাতা চুরির অভিযোগে- পতনঊষারে ঠেলা চালককে বেঁধে বেধড়ক মারপিট করে আহত ॥ আটক-১



DSC05879
বিশেষ সংবাদদাতা ॥
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার শহীদনগর বাজারে ৫০ গ্রাম চা পাতা চুরির অভিযোগ তুলে রহমান আলী নামে এক ঠেলা চালককে ধরে রশি দিয়ে বেঁধে বেধড়ক মারপিট করে পুরো বাজার ঘুরানো হয়। বেধড়ক মারপিটের পর অসুস্থ্য হয়ে পড়া এই ঠেলা চালককে তার বড় ভাইয়ের হাতে তুলে দেয়া হয় সাদা কাগজে স্বাক্ষর রেখে। আহত ঠেলা চালক রহমানকে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। রোববার রাত সাড়ে ১০টায় শহীদ নগর বাজারে এ ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় এলাকায় চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। এ ঘটনায় দোকান মালিক রাজা মিয়াকে আটক করেছে পুলিশ।
শহীদনগর বাজারের ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসী জানান, রোববার রাত সাড়ে ১০টার দিকে রাজা মিয়ার মোদী দোকান থেকে ৫০ গ্রাম চা পাতা চুরি করার অভিযোগ তুলে পতনউষার ইউনিয়নের বিলেরপাড় গ্রামের ওয়াজেদ আলীর ছেলে ঠেলা চালক রহমান আলীকে (২৪)কে আটক করে রশি দিয়ে বেঁধে মোদী দোকানী রাজা মিয়া ও গ্রামের মাতবর জহুর মিয়া বাঁশের লাঠি ও কাঁঠের বর্গা (কাঁঠের টুকরো)দিয়ে বেধড়কভাবে পেটান। পরে মাতব্বর জহুর মিয়া রশি দিয়ে বাঁধা ঠেলা চালক রহমানকে শহীদ নগর বাজারের প্রতিটি দোকানে দোকানে টেনে হিছড়ে নিয়ে তাকে দিয়ে জোর পূর্বক বলানো হয় চা পাতা চুরির অপরাধে তাকে এই শাস্তি দেয়া হয়েছে। এক পর্যায়ে ঠেলাচালক রহমান অসুস্থ্য হয়ে ঢলে পড়লে তাকে জনৈক ফারুক মিয়ার চায়ের দোকানে বেঁধে রাখা হয়। ঘটনার খবর পেয়ে নির্যাতিত ঠেলা চালকের ভাই ফরুক আলী, বাবা ওয়াজিদ আলী ও স্বজনরা ফারুক মিয়ার চায়ের দোকানে আসলে তাদের কাছ থেকে একটি সাদা কাগজে স্বাক্ষর রেখে আহত রহমানকে স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা দিয়ে তাদের জিম্মায় দেয়া হয়। রহমানের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে সোমবার দুপুরে কমলগঞ্জ থানায় নিয়ে দায়িত্বরত ডিউটি অফিসারকে দেখিয়ে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।
আলাপকালে চিকিৎসাধীন ঠেলা চালক রহমান আলী জানান, কয়েকদিন আগে মোদী দোকানী রাজা মিয়া ধান ভাঙানোর জন্য তাকে ডাকেন। ক্লান্ত রহমান তখন ধান ভাঙাতে পাববে না বললে তাকে গালমন্দ করা হয়। এ নিয়ে দোকান মালিকের সঙ্গে তার উচ্চবাচ্য হয়। সোমবার রাতে বাজার খরচ করে চা পাতা কিনার জন্য রাজা মিয়ার দোকানে যান। রাজা মিয়ার দোকানে গিয়ে ৫০ গ্রাম চা পাতা হাতে নেয়া মাত্রই চা পাতা চুরির অভিযোগ তুলে তাকে অমানসিকভাবে নির্যাতন করা হয়। ধান ভাঙিয়ে দেইনি বলেই ওই ঘটনার জের ধরেই মিথ্যা অপবাদে তাকে নির্যাতন করা হয়েছে। তবে মারধর করার কথা স্বীকার করে গ্রাম্য মাতবর জহুর মিয়া বলেন, চা পাতা চুরির কথা স্বীকার করায় ঠেলা চালক রহমানকে ধরে চড় থাপ্পর মেরে বাজারে ঘুরানো হয়েছে। এ ঘটনায় সোমবার বিকেলে আহত ঠেলাচালকের বড় ভাই ফরুক মিয়া বাদী হয়ে ৪ জনকে আসামী করে কমলগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়।
পতনউষার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সেলিম আহমদ চৌধুরী বলেন, ঘটনার সময় তিনি এলাকায় ছিলেন না। রাত ১২টায় ফিরে এ ধরনের একটি ঘটনা শুনেছেন।
কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: এনামুল হক বলেন, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। পুলিশ মামলার প্রধান আসামী দোকান মালিক রাজা মিয়াকে আটক করেছে।