সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

পাঠান বীর খাজা উসমান ও উসমান গড় উপজেলা বাস্তবায়ন!



 

11911811_10205049636701301_254338221_n।।  নজরল ইসলাম ।।

 

মধ্যযুগীয় বাংলার ইতিহাসে সবচেয়ে রোমান্টিক ব্যক্তিত্ব পটান বীর খাজা উসমান।পাঠান বীর খাজা উসমান যেখানে গড়ে তুলেছিলেন তার রাজধানী শহর আমরা তারই নামে সেখানে উসমান গড় উপজেলা করতে চাচ্ছি– যা হবে একটি ঐতিহাসিক নাম। পাঠান বীর খাজা উসমান ছিলেন আফগান দলপতি। উসমান ছিলেন বাংলায় মুগল আগ্রাসনের মোকাবেলায় আফগানদের কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার সংগ্রামের প্রাণপুরুষ এবং বাংলায় মুগলদের সবচেয়ে দুর্ধর্ষ প্রতিদ্বন্দ্বী। তিনি ছিলেন খাজা ঈসার (ঈসা খান মিয়া খেল) পুত্র এবং উত্তর উড়িষ্যার অধিপতি কুতলু খান লোহানীর ভ্রাতুষ্পুত্র। কুতলু খান লোহানীর মৃত্যুর (১৫৯০) পর তাঁর ভাই ও মন্ত্রী ঈসা খান লোহানী কুতলু খানের নাবালক পুত্র নাসির লোহানীকে উড়িষ্যার মসনদে অধিষ্ঠিত করে মুগল সম্রাটের আনুগত্য স্বীকার করেন। কিন্তু ঈসা খান লোহানীর মৃত্যুর পর উড়িষ্যার আফগানরা বিদ্রোহ ঘোষণা করে।

উড়িষ্যার মুগল সুবাদার রাজা মানসিংহ কঠোর হস্তে বিদ্রোহ দমন করেন (১৫৯৩)। আফগান দলপতিদের বিচ্ছিন্ন করার লক্ষ্যে মানসিংহ বিশিষ্ট আফগান নেতাদের উড়িষ্যার বাইরে বিভিন্ন অঞ্চলে জায়গির প্রদান করেন। খাজা উসমানকে বাংলার ফতেহাবাদ পরগণায় (বর্তমান ফরিদপুর অঞ্চল) জায়গির বন্দোবস্ত দেয়া হয়। উসমান সম্ভবত ছিলেন মধ্যযুগীয় বাংলার ইতিহাসে সবচেয়ে রোমান্টিক ব্যক্তিত্ব। উড়িষ্যা থেকে বিতাড়িত হয়ে উসমান মুগল আগ্রাসনের মোকাবেলা করে বাংলায় স্বীয় আধিপত্য প্রতিষ্ঠা করেন এবং এ অঞ্চলে আফগান শক্তির পুনরুজ্জীবন ঘটান। উসমান অমর হয়ে আছেন তাঁর ব্যক্তিগত শৌর্য, অকুতোভয় উদ্যম ও কর্মশক্তি, তেজস্বিতা, উদ্দেশ্য সাধনে নিষ্ঠা এবং সর্বোপরি তাঁর স্বাধীনতা প্রিয়তার জন্য। এসব গুণাবলিই তাঁকে উদ্বুদ্ধ ও অনুপ্রাণিত করেছে ক্রমবর্ধমান মুগল শক্তির বিরুদ্ধে তাঁর প্রতিরোধ যুদ্ধে। মুগলের আধিপত্য কোন দিন তিনি মেনে নেন নি, বরং স্বীয় স্বাধীনতা অক্ষুণ্ণ রাখার সংগ্রামে রণক্ষেত্রেই তিনি প্রাণ দিয়েছেন। খাজা উসমান সিলেটের দক্ষিণাঞ্চলের পার্বত্য এলাকায় নতুন ভাবে তাঁর কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করেন। গড়ে তোলেন তাঁর সুরক্ষিত রাজধানী শহর। এই শহর টি ছিল বর্তমান মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার পতন উষার ইউনিয়নের শ্রীসুর্য/ উসমান গড় নামক স্থানে। উসমান তাঁর পুত্র খাজা মুমরিজ ও ভাই খাজা মালহী কে নিকটবর্তী তরফ অঞ্চলে প্রতিষ্ঠিত করেন। আমরা তারই নামে উসমান গড় উপজেলা বাস্তবায়নের পক্ষে কাজ করছি যা ঐতিহাসিক , উসমানগড় উপজেলা বাস্তবায়নের লক্ষে্ মৌলভীবাজার জেলা প্রতিষ্ঠা হওয়ার পর থেকে একটি দীর্ঘ দিন ধরে আমরা পতনঊষার ইউনিয়ন পরিষদ,কামারচাক ইউনিয়ন পরিষদ ,টিলাগাও ইউনিয়ন পরিষদ ,হাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদ ,শরীফপুর ইউনিয়ন পরিষদ ও শমশেরনগর ইউনিয়ন পরিষদের সংস্লিষ্ট এলাকার সর্বস্তরের আপামর জনতা সম্মেলিত ভাবে সর্বাত্মক আন্দোলন করে আসছি ।শমসের নগর বাসী সব সময়ই উসমান গড়ের সহযোগী ছিল,যদিও এখন একটি মহল ইতিমধ্যে নিজেরা অযৌক্তিক ভাবে উসমান গড়ের প্রতিপক্ষ হয়ে একটি ঐতিহাসিক নামের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন । আমরা উসমানগড় উপজেলার জন্য সেই ১৯৮৫ থেকে অদ্যবধি রাজপথে আছি এবং শেষ লক্ষ্য অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত ঐতিহাসিক উসমান গড়ে উপজেলা বাস্তবায়নের জন্য একটি গটন মূলক দূর্বার আন্দুলনের জন্য বদ্ধ পরিকর । জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার ঐতিহাসিক উছমানগড় নামক স্থানে উছমান গড় উপজেলা বাস্তবায়নের দাবিতে সভা সমাবেশ মানববন্দন কর্মসূচী চলছে । পাঠানবীর খাজা উছমানের স্মৃতি বিজড়িত পতনউষার ইউনিয়নের ঐ ঐতিহাসিক স্থান উছমানগড়ে নতুন উপজেলা স্থাপনের দাবি সুদীর্ঘকালের। সরকারের বিপুল পরিমাণ খাসজমিতে উঁচু-নিচু টিলা পরিবেষ্টিত প্রস্তাবিত কামারচাক,পতনউষার,টিলাগাও, হাজীপুর, শরীফপুর ও শমশেরনগর ইউনিয়নের মধ্যবর্তী এই স্থানে ‘উছমানগড় উপজেলা’ নাম ধারন করে নতুন উপজেলা বাস্তবায়ন হলে স্বার্থ সংস্লিষ্ট ইউনিয়ন এলাকার উন্নয়ন ত্বরাম্বিত হবে যা বলার উপেক্ষা রাখে না । তাই আমি মনে করি উসমান গড় নামক স্থানে উছমানগড় উপজেলা বাস্তাবায়ন ও কার্যক্রম শুরু যুক্তিযুক্ত ও একটি ঐতিহাসিক স্বাক্ষর। আসুন সবাই মিলে এ দাবীর প্রতি একাত্ততা প্রকাশ করি।

 

(লেখক : নজরল ইসলাম (প্রবাসী ) ওয়ার্কিং ফর ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিসেস লন্ডন। মেম্বার দি ন্যাশনাল অটিস্টিক সোসাইটি ইউনাইটেড কিংডম।)

 

 

 

 

প্রকাশিত প্রতিবেদনটি লেখকের নিজস্ব মতামত । (মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন)