শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জাতীয় পুরস্কারের সম্মানির অর্থ মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসকের হাতে তুলেন দিলেন সাংবাদিক বিকুল



SAMSUNG CAMERA PICTURES

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি ।।

বৃক্ষ সংরক্ষনে প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কারের সাথে প্রাপ্ত সম্মানির অর্থ বৃক্ষ রোপন ও পরিবেশ বান্ধন কাজের জন্য জেলা প্রশাসকের হাতে তুলেন দিলেন বৃক্ষ সংরক্ষনে প্রধান মন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কারে ভুষিত মৌলভীবাজারের সাংবাদিক বিকুল চক্রবর্ত্তী। ৪ আগষ্ট মঙ্গলবার সকালে মৌলভীবাজার প্রেসক্লাব মিলনায়তনে প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দকে সাথে নিয়ে বিকুল চক্রবর্ত্তী মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক মোঃ কামরুল হাসানের হাতে তার সম্মাননার এ অর্থ তুলে দেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুজ্জামান, জেলা কৃষি কর্মকর্তা লুৎফুন বারী, প্রেসক্লাব সহসভাপতি আব্দুল হামিদ মাহবুুব ও সাধারণ সম্পাদক এস এম উমেদ আলী। এসময় বিকুল চক্রবর্ত্তী সবাইকে নিয়ে ভবিষতেও পরিবেশ ও জীব-বৈচিত্র সংরক্ষনে কাজ করে যাওয়ার আশা ব্যক্ত করেন। মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসকসহ অতিথিরা তার সম্মাননার এ অর্থ আবার বৃক্ষ রোপন ও পরিবেশ বান্ধব কাজের জন্য রাষ্ট্রে কাছে হস্তান্তরকে স্বাগত জানিয়ে বলেন এ প্রয়াস এজাতীয় কাজের গতি বাড়াবে।

এ সময় আরো বিভিন্ন সরকারী কর্মকর্তাসহ মৌলভীবাজার প্রেসক্লাবের বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য গত বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর ফার্মগেট কৃষিবিদ ইনষ্টিটিউট মিলনায়তনে জাতীয় বৃক্ষ মেলার সমাপনি অনুষ্ঠানে পরিবেশ ও জীববৈচিত্র এবং বৃক্ষ সংরক্ষনে ‘বৃক্ষরোপনে প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার-২০১৪’ ভোরের কাগজের মৌলভীবাজার প্রতিবেদক ও একুশে টেলিভিশনের মৌলভীবাজার প্রতিনিধি এবং শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক বিকুল চক্রবর্ত্তীর হাতে তুলে দেন অতিথিরা। এসময় তাকে একটি সনদপত্র ও সম্মানী হিসেবে নগদ ১৫ হাজার টাকার একটি চেকও তার হাতে তুলে দেন অতিথিরা।

সাংবাদিক বিকুল চক্রবর্ত্তী মৌলভীবাজার ও শ্রীমঙ্গলের বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে ওতপ্রোত ভাবে জড়িত। ব্যক্তিগত ভাবে তিনি বৃক্ষ রোপনে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করা, সামাজিক বনায়নে অংশ নেয়ার পাশাপাশি পরিবেশ ও জীববৈচিত্র সংরক্ষনের উপর জোড় দিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ পরিবেশন করেন। এছাড়াও এসব কাজের সাথে সাথে তিনি গ্রামে গ্রামে ঘুরে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের তথ্য ও স্মারক সংগ্রহ করে প্রদর্শনীর আয়োজন করে থাকেন এবং বধ্যভুমি সংরক্ষনের সহায়ক ভুমিকা রাখেন।

বিকুল চক্রবর্ত্তী জানান, পুরস্কারের আশায় তিনি কোন দিনই কাজ করেননি। তবে এ পুরস্কার তার ভবিষ্যত জীবনে কাজের উৎসাহ যোগাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। একই সাথে তার এ পুরস্কার অর্জনে শ্রীমঙ্গল তথা মৌলভীবাজারবাসীর কাছে তিনি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। মৌলভীবাজারবাসীর সুহৃদ সহযোগীতায়ই তিনি তার কর্মব্যস্ত জীবন অতিক্রান্ত করে আসছেন এবং ভবিষতেও তা অব্যাহত রাখার আশা প্রকাশ করেন। বিকুল চক্রবর্ত্তী শ্রীমঙ্গল সবুজবাগ আবাসিক এলাকার বাসিন্ধা। তার পিতার নাম বিকাশ। এদিকে বিকুল চক্রবর্ত্তী এ পুরস্কার অর্জনে ইতিমধ্যে তাকে বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।