মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কৃষকের মুখে হাসি নেই ॥ কমলগঞ্জে আউশ ধানের বাজার মূল্য ২৫০/৩০০ টাকা মাত্র!



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ॥
কৃষি কাম (কাজ) করিয়া কোন লাভ নেই। বাজারে বেচতে গেলে দাম নাই। হিসাব নিকাশ করিয়া কৃষি কামে আরও উপরে পড়ে। আমরা মধ্যবিত্ত কৃষকরা না করতে পারছি পরের কাম না অন্য কিছু। এর থাকি দিনমজুরের ভালা চলের। রোজ ২০০/ ৩০০ টাকা কামাই করছে। আর আমরা মাঠে মরছি। আমাদের উপার্জনের আর কোন কিচ্ছু নাই। খালি কৃষি জমি ও আমরা। এখন যদি হকলতা করিয়া ধানে দাম কম পাই তাহলে কৃষি ক্ষেত করিয়া কি আর করমু। এভাবেই কমলগঞ্জ উপজেলার কৃষকরা তাদের দু:খের কথা বললেন।
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে আউশ ধানের বাম্পার ফলন হলেও দাম কম থাকায় কৃষকরা হতাশাগ্রস্ত। তিন মণ ধান বিক্রি করে পাওয়া যায় একটি ইলিশ মাছ। ‘কৃষিমন্ত্রীর কথামতো আউশের ফলন বৃদ্ধি করেও বাজারে ধানের উৎপাদন খরচই উঠছে না কৃষকদের। সার, বীজ, সেচ, ঔষধ আর শ্রমিকের খরচ দিয়ে যে দরে ধান বিক্রি করতে হচ্ছে সেখানে এক থেকে দেড়শ’ টাকা ঘাটতি দিতে হচ্ছে।’ সরকারী ভূর্তকীর সার, বীজ, কীটনাশক ঔষধ প্রকৃত কৃষকরা পাচ্ছেন না। কমলগঞ্জ উপজেলার কৃষক কামাল উদ্দিন, মোবাশ্বির আলী, নিখিল শীল, সুনীল দেবনাথ ধানের ন্যায্যমূল্য না পেয়ে ক্ষোভের সঙ্গেই উপরোক্ত কথাগুলো বলছিলেন। চলতি মৌসুমে কৃষকরা একদিকে আউশ ধান সংগ্রহ করছেন অপরদিকে আমন রোপনেও ব্যতিব্যস্ত রয়েছেন। ফলে উঠতি আউশ ধান উৎপাদনের অর্ধেক মূল্যও পাচ্ছেন না বলে কৃষকরা অভিযোগ তোলেছেন। ২৫০ টাকা থেকে সর্ব্বোচ্চ ৩০০ টাকা দরে ধান বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন কৃষকরা। ফলে ন্যায্যমূল্য বঞ্চিত কৃষকরা হতাশ হয়ে পড়ছেন। কমলগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এ বছর কমলগঞ্জ উপজেলায় মোট ১০ হাজার ৮শ’ হেক্টর জমিতে আউশ ধানের আবাদ হয়েছে। এরমধ্যে প্রায় ২৫ শতাংশ কর্তন হয়ে গেছে। কিন্তু ধানের উৎপাদন মূল্য না পাওয়ায় কৃষকদের মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছে। নেরিকা জাতের ধান চাষাবাদ করে ফলন ভালো হলেও বাজারে দাম না পাওয়ায় কৃষকরা হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়ছেন। গবিন্দপুর গ্রামের কৃষক মোবাশ্বির আলী, ইজ্জাদুর রহমান, জালালিয়া গ্রামের আমান উদ্দীন, নিত্যানন্দপুরের আলতা মিয়া, ভরতপুর গ্রামের বাছিত মিয়া, মুত্রাপুর গ্রামের হাফিজুর রহমান বলেন, ধান কর্তন করার পর মাড়াই দিয়ে সংগ্রহ করে শ্রমিকের পারিশ্রমিক দেয়ার জন্যও ৩শ থেকে ৩শ’ ৫০ টাকা দরে বিক্রি করতে হচ্ছে। তারা আরও বলেন, এক বিঘা জমিতে খরচ হয়েছে সাত থেকে সাড়ে ৭ হাজার টাকা। আর এক বিঘায় ফলন হচ্ছে ১৫ থেকে সর্ব্বোচ্ছ ১৭ মণ ধান। সেখানে সাড়ে ৪শ’ থেকে ৫শ’ টাকা উৎপাদন খরচ হয়েছে। কৃষকরা বলেন, কৃষিমন্ত্রীর কথামতো আউশের ফলন বৃদ্ধি করেও এখন তাদের মাথায় হাত। তাছাড়া নেরিকা নিউটন জাতের ধান চাষাবাদ করে বাম্পার ফলন হলেও দাম না থাকায় এখন তাদের লোকসান গুণতে হচ্ছে। সরকারও কৃষকদের কাছ থেকে ধান ক্রয় না করায় মধ্যস্বত্ত্বভোগী মহাজনী ব্যবসায়ীরা মুনাফা নিচ্ছেন বলে তারা অভিযোগ করেন।
কমলগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. শামসুদ্দীন আহমদ সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আউশ ধানের উৎপাদন বেশী হওয়ায় বাজারে চাহিদা কম। ফলে এই সময়ে ধান বিক্রি না করে কয়েকদিন পর বিক্রি করলে ধানের দাম বাড়তে পারে।