শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এইচএসসিতে অধম্য মেধাবী: ঝুঁপড়ি ঘরের চাঁদের আলো রলরাম বাউরী



boloram
কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ॥
সে যেন ঝুঁপড়ি ঘরে চাঁদের আলো। দারিদ্রতার চরম কষাঘাতে জর্জরিত আলীনগর চা বাগানের বড় লাইনের চা শ্রমিক সন্তান বলরাম বাউরী চলতি বছরের এইচএসসি পরীক্ষায় কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর সুজা মেমোরিয়াল কলেজ থেকে জিপিএ-৫ অর্জন করেছে। দারিদ্রতার সাথে সংগ্রাম করে নব বাউরী ও গৌরী বাউরীর ছেলে জিপিএ-৫ অর্জন করলেও চিন্তিত উচ্চ শিক্ষার স্বপ্ন নিয়ে।
বিদ্যুৎ বিহীন ঝুঁপড়ি ঘরে বলরামের বসবাস। লেখাপড়া করার জন্য তার ঘরে নেই কোন ভাল মানের চেয়ার টেবিল। বইগুলো সংরক্ষনের জন্য নেই কোন শেলফ। তবুও বলরাম বাউরীর অদম্য ইচ্ছা আর দৃঢ় মনোবলের নিকট হার মেনেছে দারিদ্রতার চরম কঘাষাত। চা শ্রমিক বাবার পক্ষে দৈনিক ৬৯ টাকার আয় দিয়ে ছেলের লেখাপড়ার খরচ জোগান দেওয়া সম্ভব হয়নি। কখনও ছেলেকে তিনি দিতে পারেননি ভালো একটি পোশাক। এসএসসিতে ৪.৯৪ অর্জন করে কিছুটা হতাশ হলেও হাল ছাড়েনি বলরাম। স্কটল্যান্ডের সাবেক রাজা রবার্ট বুটস এর জীবনী তাকে অনুপ্রাণিত করেছে। তাই সে মনযোগ দিয়ে লেখাপড়া করে এইচএসসিতে জিপিএ-৫ অর্জন করে। একাদশ শ্রেনীতে ভর্তি হবার পর স্থানীয় সাবেক সংসদ সদস্য নওয়াব আলী আব্বাস খান তাকে ১৫০০ শত টাকা প্রদান করেন। এই টাকা দিয়ে বলরাম ক্রয় করে একটি ছোট একটি ছাগল। দুই বছর সেই ছাগল পালন করে তা বিক্রি করে জোগান দেয় এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পুরনের টাকা। ছাগলকে চরানোর সময় তার হাতে থাকতো বই। বাড়ীর পাশে নদীর পারে বই হাতে কাটে বলরামের ঘন্টার পর ঘন্টা। সেখানে তাকে মাঝে মাঝে সময় দিতো পাশের বাড়ীর বড় ভাই সজল কৈরী। টাকার অভাবে কোন দিন প্রাইভেট পড়া হয়নি বলরামের। পাশাপাশি সে পালন করে কয়েকটি হাঁস। করায় দু একটি টিউশনি। বলরামের মা ও বাবা জানান, যখন ছেলে পড়াশোনা করতো তখন অভাব অনটনের সংসারে তাকে এক গ্লাস দুধ খাওয়ানো সম্ভব হয়নি।
ভবিষ্যতে বলরাম বাউরী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে চায়। কিন্তু দারিদ্রতা তাকে এখনও সুযোগ দেয়নি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির কোচিং এর। ক্রয় করতে পারেনি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিও সুযোগ পাওয়ার কোন বই। ভবিষ্যতে বলরাম ইংরেজী অথবা অর্থনীতিতে অনার্স করতে চায়। জীবন যুদ্ধে হার না মানা বলরাম যেন উচ্চ শিক্ষা অর্জন থেকে ঝড়ে না পরে তার জন্য এগিয়ে আসতে হবে সমাজের বিবেকবানদের।