শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অরণ্যে বাঁশির সুর



unnamed (1)জীবন পাল::
১২৫০ একরের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের অরন্যে মদিনা ভাই এর বাঁশিতে ভেসে বেড়াই “ আমার হৃদয় রেখে যেতে চাই, শহীদ স্মৃতীর স্মরনে” গানটির সুমধুর সুর । যে বাঁশির সুর দিয়ে মদিনা ভাই বরণ করে নেই লাউয়াছড়া জতীয় উদ্যানে ঘুরতে আসা পর্যটকদের । পর্যটকরাও সেই সুরে হারিয়ে যায় গভীর অরন্যে । পাখির কল-কাকলি আর মদিনা ভাই এর বাঁশির সুরের সামঞ্জস্য অসাধারণ । প্রকৃতির সাথে মিল রেখেই যেন মদিনা ভাই এর সৃষ্টি । এক হাতে বাঁশি আর অন্য হাতে আইসক্রীম এর বাক্স ।

পর্যটকদের বাঁশির সুরে বিমোহিত করে একটি আইসক্রীম কিনার আকুতি থাকে এই ৫০ বছরের আজব মানুষটির ।কেননা এই অরন্যে আইসক্রীম বিক্রিটাকে জীবিকা নির্বাহ আর বাঁশি বাজিয়ে দর্শনার্থীদের আনন্দ দেওয়াটাকে শখ হিসেবে বেছে নিয়েছেন । এই শখের সাথে তিনি যুক্ত করেছেন যাদু প্রদর্শন ।

এক টাকার কয়েন নিজ হাত থেকে গায়েব করে দর্শনার্থীদের মধ্য থেকে কারও পকেট, পেট বা পিছন থেকে বের করে তাক লাগিয়ে দেন । তাছাড়া হাতের তাল বাজিয়েও দর্শনার্থীদের আনন্দ দিয়ে থাকেন । সাদা মনের এই মানুষটি আসলেই অসাধারণ গুনের অধিকারী । যা নিজ চোখে না দেখলে বিশ্বাস হবেনা ।

unnamed (2)মদিনা ভাই এর আদি নিবাস বি.বাড়িয়ার নবীনগরে । ১৫ বছর বয়সে যিনি পাড়ি জমান মৌলভীবাজার জেলার ভানুগাছ উপজেলার বাঘমারা গ্রামে । দ্বীর্ঘ ৩৫ বছর ধরে যিনি এই উপজেলায় বসবাসরত । কখনও ভ্যান, কখনও রিক্সা চালানো , আবার কখনও বা দিন মজুরের কাজ করে এতদিন জীবিকা নির্বাহ করে আসলেও, বয়সের তাড়নায় বর্তমানে আইসক্রীম বিক্রি আর মানুষকে বাঁশি বাজিয়ে , যাদু দেখিয়ে ও হাতের তাল বাজিয়ে বই এর সেই সুখী মানুষটির মত জীবন-যাপন করছেন।

কথা বলে জানা গেল, বড় ভাই আব্দুর রহিম এর কাছ থেকে বাঁশি শিক্ষা এবং ভানুগাছ বাজারের যাদু প্রদর্শনকারীদের কাছ থেকে যাদু কায়েম করেন । এ থেকে দৈনিক নিম্নে ৫০-৩০০ টাকা আয় করে স্ত্রী সহ তিন মেয়ে লুৎফা, সালমা ও আয়শা কে নিয়ে দ্বীর্ঘ ৫ বছর ধরে তিনি এভাবেই জীবিকা নির্বাহ করে দিন যাপন করে যাচ্ছেন । বড় ছেলে যশোরের এক মেয়েকে বিয়ে করে বর্তমানে যশোর প্রবাসী ।

unnamed (3)যে ছেলে পিতার আদর্শকে বলি দিয়ে ত্যাজ্য পুত্রের খাতায় নাম লিখিয়েছে । সন্তানের শূন্যস্থানের জ্বালা সহ্য করে দিন যাপন করতে করতে আজ ছেলের প্রতি ঘৃণা জমেছে এই সাদা মনের মানুষটির বুকে । যদিও এই ঘৃনাটা বাহিরের, ভিতরের দৃশ্যটা আসলে সন্তান ফিরে আসার অপেক্ষার । যার কারনে শত কষ্টকে বিস্বর্জন দিয়ে সকলের মনে আনন্দ দেওয়ার মাঝে নিজের সুখ খোঁজে নিয়েছেন ।

নিজ বাঁশির সুমধুর সুর, হাতের তাল আর ম্যাজিক দেখিয়ে প্রতিদিন শত শত মানুষকে আনন্দ দেওয়াটাই যার পেশাতে রুপান্তরীত হয়ে গেছে । যার ফলে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে বেড়াতে আসা দর্শনার্থীদের কাছে মো: মদিনা ওরফে মদিনা ভাই তার বাঁশির সুরে প্রায় সকলের হৃদয়ে জায়গা করে নিতে সক্ষম হয়েছেন । যে কারনে লাউয়াছড়া ঘুরতে গেলে মদিনা ভাই এর সাথে সেলফি তোলাটা যেন পর্যটকদের বাড়তি প্রাপ্তিতে পরিনত হয়েছে ।

সূত্র: ডেইলি সিলেট