শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হামাদের আবার ঈদ আছেনি ….



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ।।

‘বাবুজি, হামরা (আমরা) মরিয়া মরিয়া কোনমতে বাঁচি (বেঁচে) আছি রে, হামাদের আবার ঈদ আছেনি রে। ৬৯ টাকা মজুরি দিয়ে কোনোমতে বাঁচিয়া আছি রে। এই টাহা (টাকা) দিয়ে কি আর হয় রে। আর ঈদে যয় (যত) টাহা (টাকা) পাই তা দিকে লিলামী (ফুটফাতের) কাপড়ও কিনা হয়ে ওঠে (সম্ভব) নারে।’ কথাগুলো বলছিলেন কুলাউড়ার আছগরাবাদ চা বাগানের মুসলমান চা শ্রমিক ষাটোর্ধ্ব বয়সের কালা মিয়া । শুধু কালা মিয়া নয়, তার মতো জেলার কোনো মুসলমান চা শ্রমিকদের ঘরে থাকে না ঈদের আনন্দ।

ঈদে কিরণমালা, মহারানী, কটকটি আর পাখি ড্রেসের রমরমা ব্যবসা হলেও চা বাগানের শ্রমিকরা এসব নামই জানে না। ৬৯ টাকা মজুরি দিয়ে যেখানে পেট চালানোই দায় সেখানে ঈদের আনন্দ শুধুই একরাশ হতাশা। পাহাড় আর টিলার নিচে চাপা পড়ে যায় তাদের ঈদ আনন্দ।

মৌলভীবাজার জেলায় ফাঁড়িসহ প্রায় ২০টি চা বাগানে মুসলিম জনসংখ্যা প্রায় ২৫ হাজারের মতো। দৈনিক ৬৯ টাকা মজুরি ও মুসলিম প্রধান বাজারে ঈদে ৬-৭শ টাকা বোনাস মেলে। এ টাকা দিয়ে পরিবার চালানোই দায়। সেখানে ২৫০-৩০০ টাকা দিয়ে পরিবার বাচ্চাদের ঈদের জামা কিনে দেয়া কঠিন। পুরাতন কাপড়ই ধোলাই করে উপভোগ করতে হয় ঈদ আনন্দ।
এদিকে, অমুসলিম প্রধান বাগানগুলোতে যেসব মুসলিম চা শ্রমিকরা কাজ করে তাদের ঈদে কোনো বোনাস দেয়া হয় না। এ নিয়েও ক্ষোভ রয়েছে শ্রমিকদের মাঝে।

সরেজমিন কুলাউড়ার আছগরাবাদ চা বাগান, রাঙ্গীছড়া চা বাগান ও ওয়াজেদনগর চা বাগান ঘুরে দেখা যায়, মুসলিম প্রধান গলিগুলাতে ঈদের কোন আমেজ নেই। শিশুরা যে যার মতো খেলায় ব্যস্ত। শিশুরা মধ্যে অনেকেই জানেনা কিরণমালা, কটকটি, মহারানীর নাম।

রাঙ্গীছড়া চা বাগানের শাহ আলম (৩৪) বলেন, ‘আমার পরিবারে লোক সংখ্যা ৯ জন। আমার স্বামী-স্ত্রী বাগানের শ্রমিক। ৬৯ টাকা মজুরি পেয়ে ৯ জনের পরিবার চালাতে গিয়ে হিমশিম খেতে হয়। এই ঈদে বোনাস পেলাম ৮০০ টাকা। দোকান বাকি ছিল ১৫০০ টাকা তাই এই টাকা দিয়ে দোকানের বাকিটুকু পরিশোধ করে কিছু খরচ এনেছি। তবে টাকার অভাবে কাউকে কোন নতুন কাপড় কিনে দিতে পারিনি। পুরানো কাপড় ধোলাই দিয়েই ঈদ পালন করলাম।’
ওয়াজেদনগর চা বাগানের নিজাম আহমদ জানান, ‘৬৯ টাকা মজুরিই পাই। ঈদে কোন বোনাস নেই। তিন বেলা খেয়ে পড়ে বেঁচে থাকাই দুষ্কর। ঈদ আনন্দ কি আমরা বলতে পারিনা। ঈদে শিশুদের বায়না মতো জামা-কাপড় দেয়া হয় না।’
আছগরাবাদ চা বাগানের পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী শারমিন বেগম (১০) বলে, ‘দাদা শুনেছি কিরণমালা ড্রেসতো ধনীরা পরে। আমার অনেক সহপাঠীরা কিরণমালা, কটকটি ড্রেস কিনেছে। কিন্তু আমরা গরিব মানুষের কি কিরণমালা ড্রেস কিনে পরার সাধ্য আছে। বাবা কোনমতে একটি ড্রেস ফুঠফাত থেকে কিনে দিয়েছেন, এটা দিয়েই ঈদ চলবে।’