শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বড়লেখায় ঝুঁকি নিয়ে পাহাড়ের চুড়ায় বসবাস : অলৌকিক ভাবে বেঁচে গেছে শিশুসহ একই পরিবারের ছয় সদস্য



unnamed (1)এম. মছব্বির আলী:
মৌলভীবাজারের বড়লেখার দূর্গম পাহাড়ী এলাকা বোবারতলের পাহাড়ী চুড়ায় মুষল ধারে অব্যাহত বৃষ্টির মাঝে ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছেন পাঁচ শতাধিক পরিবারের দশ হাজার বাসিন্দা। ১০/১২ দিন ধরে একাধারে বৃষ্টির কারনে বোবারতলে পাহাড়ী চুড়ার অনেক বসত ঘরের আশ পাশে মাটি ধসে গেছে। যে কোন সময় প্রাণহানীসহ বড় ধরনের দূর্ঘটনার আশংকা করেছেন সচেতন মহল। এর আগে গত বছরে শাহবাজপুর চা বাগানে পাহাড় ধসে একই পরিবারের তিনজনের মৃত্যুও ঘটনা ঘটেছিল।

১০/১২দিন ধরে একাধারে বৃষ্টির কারনে গত ১৯জুলাই রাত এগারটার দিকে পাহাড়ের চুড়ার আব্দুল হাছিবের একটি বসত ঘর রাতে মাটির ভিতর ঢুকে যায়। রাতের খাবারের জন্য জেগে থাকায় এসময় আব্দুল হাছিবসহ পরিবারের পাঁচ সদস্য ঘর থেকে বাহিরে চলে আসলেও ছয়মাসের শিশুর সন্তান জহিরুল ইসলাম মাটির নিচে চাপা পড়ে যায়। পরিবারের সদস্যরা প্রায় দশ মিনিট পর মাটির নীচ থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করে আশংকাজনক অবস্থায় প্রথমে বড়লেখা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হলে শিশুটির অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় পরে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মাটি চাপায় শিশুটির একটি হাত ভেঙ্গে গেছে।

আব্দুল হাছিব জানান, রাতের খাবারের জন্য জেগে না থাকলে বড় ধরনের মর্মান্তিক র্দূঘটনা ঘটে যেতে পারত। আমার ছয় মাসের শিশু সন্তান সহ অলৌকিক ভাবে গেছি। বর্তমানের অন্যের বাড়ীতে বসবাস করছি। এ ঘটনার পরও পাহাড়ী চুড়ায় বসবাসকারী লোকজন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছেন। এলাকার বাসিন্দা ফখর উদ্দিন, তাজ উদ্দিন, এনাম আহমদসহ অনেকে জানান, ‘বোবারতল এলাকায় বিভিন্ন পাহাড়ের চুড়ায় বিভিন্ন ঘরের আশপাশে টিলা ধসে গেছে। বিকল্প থাকার জায়গা না থাকায় অনেকে জীবনের ঝুকি নিয়ে বসবাস করছেন।

মুষলধারের বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে প্রশাসন কোন কার্যকরী পদক্ষেপ না নিলে বড় ধরনের দূর্ঘটনার আশংকা করছেন সচেতন মহল। এ বিষয়ে শনিবার মুঠোফোনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ আমিনুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে জানান, তিনি জেলায় একটি মিটিংয়ে রয়েছেন। উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা সাথে যোগাযোগের কথা বলেন।’ উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা (পিআইও) আজাদের রহমান জানান, রবিবার অফিস খোলার পর এ ব্যাপারে মাইকিং করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।