বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পাহাদার রেখে বিজিবি’র হাতে কাঠ আটক : বিলিন হচ্ছে চা বাগানের মূল্যবান গাছ ॥ বিপর্যয়ের আশঙ্কা চা শিল্পে



p-2
কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ॥
চা শিল্পাঞ্চল অধ্যুষিত মৌলভীবাজারের বিভিন্ন চা বাগান থেকে ব্যাপকহারে ছায়াবৃক্ষ পাচার হয়ে যাচ্ছে। কমলগঞ্জ উপজেলার ডানকান ব্রাদার্স শমশেরনগর এর ফাঁড়ি বাঘিছড়া বাগান থেকে বিজিবি সদস্যরা পাচারকালে মূল্যবান প্রজাতির কাঠ আটক করেছে। মঙ্গলবার ভোরে চাতলাপুর চা বাগানের বিভিন্ন সেকশন থেকে চা গাছের ছায়াবৃক্ষ কড়ই ও অডো গাছ কেটে খন্ডাংশ করে পাচারের সময় এই কাঠ আটক করা হয়।
বাঘিছড়া চা বাগান পঞ্চায়েত সভাপতি লছমি রবিদাস জানান, তাদের বাগানের একটি স্থান থেকে বিজিবি সদস্যরা ৭ টুকরো কাঠ আটক করেছে। তবে ধারনা করা হচ্ছে এই গাছগুলো চাতলাপুর চা বাগানের হতে পারে। চাতলাপুর ও শমশেরনগর চা বাগান শ্রমিকরা জানান, চা গাছের জন্য ছায়াবৃক্ষ হিসাবে মূল্যবান গাছগাছালি বাগানের বিভিন্ন সেকশন থেকে হরদম পাচার হচ্ছে। সীমান্তবর্তী চাতলাপুর চা বাগানের ম্যানেজার, কতিপয় কর্মচারী ও দালাল শ্রমিকদের মাধ্যমে বিভিন্ন সেকশন থেকে গাছ কেটে বাঘিছড়া, কানিহাটি সহ বিভিন্ন ফাঁড়ি রাস্তা দিয়ে শমশেরনগর ও পার্শ্ববর্তী পীরেরবাজারের স’মিলে পাঠিয়ে দেয়া হয়। সেখান থেকে ব্যবসায়ীরা গাছ কিনে নেন। তারা আরও বলেন, চাতলাপুর চা বাগান থেকে মূল্যবান প্রজাতির ছায়াবৃক্ষ চুরি হয়ে যাওয়ায় সেকশন সমুহ বৃক্ষশুন্য হয়ে পড়ছে। চাতলাপুর চা বাগান ব্যবস্থাপক প্রতি রাতে মৌলভীবাজার ক্লাবে চলে যাওয়ায় গাছ চুরির পরিমাণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। ওই বাগানের কয়েকটি সেকশন ইতিমধ্যেই বৃক্ষশুন্য হয়ে পড়েছে বলে চা বাগানের নারী শ্রমিকদের অভিযোগ রয়েছে। এদিকে আলীনগর চা বাগানের শ্রমিক দয়াশংকর কৈরী, রূপনারায়ন কৈরীসহ চা শ্রমিকরা জানান, তাদের বাগানের বিভিন্ন সেকশন থেকেও বড় বড় গাছ চুরি হয়ে যাচ্ছে।
শমশেরনগর ইউপি সদস্য ও বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য সীতারাম বীন বলেন, চা বাগানে এতো পাহারাদার থাকার পরও চোরাই কাঠ আটক করছে বিজিবি সদস্যরা। চাতলাপুর ও বাঘিছড়া চা বাগান পাশাপাশি থাকার কারনেই চাতলাপুর চা বাগানের গাছ বাঘিছড়া সেকশন হয়ে শমশেরনগর চলে আসে। তিনি আরও বলেন, এভাবে গাছ চুরি অব্যাহত থাকলে চায়ের উৎপাদন মারাত্মকহারে হ্রাস পাবে এবং চা শিল্প ধ্বংস হয়ে যাবে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শমশেরনগর চা বাগানের একজন কর্মচারী জানান, যেহারে চা বাগান থেকে গাছ চুরি হচ্ছে তাতে চা শিল্পে এর মারাত্বক নেতিবাচক প্রভাব পড়বে এবং পরিবেশেরও ক্ষতি বয়ে আনবে।
এ ব্যাপারে চা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক রামভজন কৈরী বলেন, চা বাগান থেকে যেহেতু বিজিবি সদস্যরা কাঠ আটক করেছে তাহলে বোঝা যাচ্ছে চা বাগান সমুহ থেকে প্রতিনিয়ত গাছ পাচার হচ্ছে। তিনি এ ঘটনায় তদন্তপূর্বক জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।
৪৬ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) চাতলাপুর ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার মো. হযরত আলী বলেন, বাঘিছড়া থেকে চা বাগানের ২৩ দশমিক ৯১ ঘটফুট কাঠ উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধারকৃত কাঠ বনবিভাগের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে তিনি জানান।
অভিযোগ বিষয়ে জানতে চেয়ে চাতলাপুর চা বাগান ব্যবস্থাপক মো. ইফতেখার এনামের (০১৭১১-৯২২৮১৩) মোবাইল নাম্বারে দুপুরে কয়েক দফা ফোন করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
উল্লেখ্য, কয়েকমাস পূর্বেও চাতলাপুর চা বাগান থেকে বিজিবি সদস্যরা কাঠ আটক করেছেন।