বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জমির মালিকানার বিরোধে : পতনঊষারে প্রতিপক্ষের বাড়ির প্রবেশ পথ কেটে ফেলার অভিযোগ



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট।।
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার পতনউষার ইউনিয়নে জমির মালিকানার বিরোধকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের বাড়ির প্রবেশ পথ কেটে ফেলা হলঅর অভিযোগ। ঘটনার সুবিচার প্রার্থনা করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের। শনিবার ( ৪ জুলাই) বেলা ১২টায় পতনউষার ইউনিয়নের টিলাগড় গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে।
কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে করা লিখিত অভিযোগের সূত্রে জানা যায়, টিলাগড় গ্রামের সাবাজ আহমদের পরিবারের সাথে জমির মালিকানা নিয়ে দীর্ঘ বিরোধ চলছিল পাশের বাড়ির চাচাতো ভাই মনাই মিয়ার পরিবার সদস্যদের সাথে।  ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের উদ্যোগে একাধিক সামাজিক বৈঠকের পরও এ সমস্যার কোন সমাধান হয়নি। এ বিরোধের জের ধরে শনিবার দুপুরে  মনাই নেছার মিয়া, মখলিছুর রহমান, আতিক মিয়া, পরিজা বিবি, বাছিদা বেগম, রোজিনা বেগম ও মোছা; রুবি বেগম প্রকাশ্য দিবালোকে এসে বাড়ির প্রবেশ পথের প্রায় ২৫ ফুট এলাকা কেটে জমির সাথে মিশিয়ে দিয়েছে।
অভিযোগের সূত্রে রোববার বিকাল সাড়ে তিনটায় সরেজমিন গেলে এ বাড়ির প্রবীণ ইন্তাজ মিয়া, গৃহবধু জুহুরা বেগমসহ গ্রামবাসীরা অভিযোগ করে বলেন অভিযুক্তরা সবাই নানাভাবে নানান অপরাধের সাথে জড়িত। তারা চেয়ারম্যানও ইউপি সদস্যদের কোন উদ্যোগ মানতে রাজি নয়। অভিযুক্ত মনাই মিয়ার নামে নারী নির্যাতনসহ একাধিক মামলাও রয়েছে। গ্রামের সাধারন মানুষজনও তাদেরকে ভয় পায়। ফলে এককভাবে তারা ত্রাস সৃষ্টি করেই শনিবার দিনে দুপুরে বাড়ির প্রবেশ পথটি কেটে ফেলেছে।
মুঠোফোনে পতনউষার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সেলিম আহমদ চৌধুরীও অভিযুক্তরা কেহউ ভাল নয় ও তারা ইউনিয়ন পর্যায়ের কোন সামাজিক সমাধান মানে না বলে এদের বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনে তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাও অনুরোধ জানিয়েছেন। অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চেয়ে মনাই মিয়ার বাড়ি গেলে সেখানে কোন পুরুষ সদস্যদের পাওয়া যায়নি। তবে বাড়ির প্রবেশ পথ কাটার সাত নম্বরে অভিযোগে অভিযুক্ত রোজিনা বেগম এ প্রতিনিধিকে বলেন, এ জমিটুকু তার শ্বশুরের। এ জমিটুকু প্রতিপক্ষ সাবাজ আহমদরা অন্যায়ভাবে ব্যবহার করছিল বলেই নিজেরা  রোজিনারা) মাটি কেটে ফেলেছেন।
অভিযোগ গ্রহনের সত্যতা নিশ্চিত করে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম মিঞা বলেন, তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।