শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জে পর্যটকদের প্রথম পছন্দ মণিপুরি পোশাক ঈদে কাপড় তৈরিতে ব্যস্ত মণিপুরি তাঁতশিল্পীরা



Monipuri Tat---02
প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ, কমলগঞ্জ :
পাহাড় আর চা বাগান পরিবেষ্টিত মৌলভীবাজার জেলার অন্যতম পর্যটন উপজেলা কমলগঞ্জ। এ উপজেলায় বসবাসরত আদিবাসীদের মধ্যে অন্যতম মণিপুরী সম্প্রদায়। এ সম্প্রদায়ের ৯৫ শতাংশ মহিলা জড়িত তাঁত শিল্পের সঙ্গে। ঈদকে সামনে রেখে মনিপুরী তাঁত শিল্পীরা সারা বছরের মন্দা ভাব কাটিয়ে এখন ব্যস্ত হয়ে উঠেছেন। তাদের হাতে তৈরি বিভিন্ন পণ্যের শৈল্পিক ও নান্দনিক ডিজাইন আজ দেশ ছাড়িয়ে ইউরোপ ও আমেরিকাতে স্থান করে নিয়েছে। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ট্রেড ফেয়ারে মণিপুরীরা দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করছেন। আসন্ন ঈদুল ফিতরে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে ঐতিহ্যবাহী মণিপুরী তাঁতসামগ্রীর চাহিদা বেড়েছে। কমলগঞ্জ উপজেলার মণিপুরী অধ্যুষিত প্রায় ৩০টি গ্রামের ঘরে ঘরে চলছে তাঁতের বিভিন্ন সামগ্রী তৈরির কাজ। কমলগঞ্জের ভানুগাছ বাজার, আদমপুর, মাধবপুর ও গুলেরহাওর এলাকায় মণিপুরী শাড়ি, লুঙ্গি, থ্রিপিস, পাঞ্জাবি, বাঁশের কাজ করা সামগ্রী ও ব্যাগের দোকান খোলা হয়েছে। সব মিলিয়ে ঈদে তাদের তৈরি তাঁতসামগ্রীর ভাল বিক্রি হবে।
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে দিন দিন মণিপুরী তাঁতের তৈরি কাপড়ের চাহিদা বাড়ছে। বিশেষ করে দেশের অন্যতম পর্যটন এলাকা কমলগঞ্জ প্রতিদিন শত শত দেশি-বিদেশি পর্যটক বেড়াতে আসেন। বেড়াতে আসা পর্যটকরা এখান থেকে মণিপুরি তাঁতের তৈরি বিভিন্ন পোশাক ক্রয় করে থাকেন। বেড়াতে আসা পর্যটকদের কাছে মণিপুরী পোশাক হচ্ছে প্রথম পছন্দ। এসব পোশাকের মধ্যে রয়েছে থ্রিপিস, শাড়ি, ফতুয়া, ওড়না, ভ্যানিটি ব্যাগ প্রভৃতি। মুসলমানদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে এখন মহাব্যস্ত মণিপুরি তাঁতশিল্পীরা। উৎসব-পার্বণে ব্যতিক্রমী পোশাকের জোগানদাতা হলেন মণিপুরি তাঁতশিল্পীরা। মণিপুরি চাদরের সুনাম দেশের গন্ডি ছাড়িয়ে বিদেশেও রয়েছে। এছাড়া ব্যতিক্রমী পোশাক হিসেবে ঈদ আর পূজায় মণিপুরি তাঁতশিল্পীদের তৈরি কাপড়ের চাহিদা বাড়ে। জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর, মঙ্গলপুর, রাণীরবাজার, কালারায়বিল, ভানুগাছ, বালিগাঁও, ইসলামপুর, তিলকপুর, ঘোড়ামারা, কোনাগাঁও, ছনগাঁও, তেতইগাঁও, হকতিয়ার খোলা, জালালপুর, কেওয়ালীঘাট, ভানুবিল, বন্দেরগাঁও, কান্দিগাঁও, ছয়চিরী, ভান্ডারীগাঁও, গঙ্গানগর, মকাবিল, গুলেরহাওর, টিলাগাঁও, মাঝেরগাঁও, নয়াপত্তন, হীরামতি গ্রামসহ প্রায় ৩০টি গ্রামে ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে মণিপুরী তাঁতীরা ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। অন্যদিকে উৎপাদিত দ্রব্য বিক্রি করতে দোকানিরা বসেছেন বিভিন্ন আইটেমের সামগ্রী নিয়ে। কমলগঞ্জের মণিপুরীদের তাঁতে উৎপাদিত বিভিন্ন সামগ্রী স্থানীয়ভাবে প্রান্তিক ব্যবসায়ীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে ক্রয় করে থাকেন। এ সব সামগ্রী আবার স্থানীয় গ্রামগুলোর দোকানগুলোতে বিক্রি করা হয়।
কমলগঞ্জ পৌরসভার সামনে ভানুগাছ-শ্রীমঙ্গল সড়কে মণিপুরী মার্কেট “চিত্রাঙ্গদা” মণিপুরি কাপড়ের দোকান ছাড়াও অন্য শপিং সেন্টারগুলোতে মণিপুরি পোশাকের ব্যাপক সরবরাহ রয়েছে। এছাড়াও আদমপুর, মাধবপুরসহ মণিপুরি অধ্যুষিত এলাকায় বেশ কিছু মণিপুরি পোশাকের দোকান গড়ে উঠেছে। দেশ-বিদেশের পর্যটক, দর্শনার্থীরা সেখান থেকেও কাপড় ক্রয় করে থাকেন। ঈদ-পূজা আর শীতের নতুন কাপড় তৈরিতে ব্যস্ত থাকেন তারা। মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জসহ সিলেট বিভাগের যেসব এলাকায়  মনিপুরীদের বাস সেসব এলাকায় বিশেষ করে মণিপুরি পরিবারের মহিলারা ঈদ-পূজা আর শীতের নতুন কাপড় তৈরিতে ব্যস্ত । মণিপুরী মহিলারাই এ শিল্পের মূল কারিগর। ঘরের কাজের পাশাপাশি তারা তাঁত বুনে বাড়তি আয় করেন।
আলাপকালে মণিপুরী মহিলা তাঁতি সুজলা সিন্হা, অঞ্জনা সিন্হা, সাবিত্রী সিন্হা, চিত্রালী সিন্হা জানান, ঈদের পর দুর্গা পূজা আসছে। বাজারে চাহিদা থাকলেও কাঁচামালের অভাবে চাহিদামতো পাইকারি বিক্রেতাদের পণ্য সরবরাহ করতে পারেন না। কাঁচামাল না থাকায় অনেকে তাঁতের কাপড় বোনা বাদ দিয়েছেন বলে জানান তারা। মণিপুরি তাঁতশিল্পী অনামিকা সিনহা বলেন, ঈদ ও পূজা উপলক্ষে অনেক পাইকারই এসে অর্ডার দিচ্ছেন। সিলেটের বাইরে থেকেও অনেক পাইকার এসেছেন। তবে সুতা না পাওয়ার কারণে সব ক্রেতার চাহিদা পূরণ করা যাচ্ছে না। তিনি জানান, মনিপুরি তাঁত কাপড়ের কাঁচামাল এখন সিলেটে পাওয়া যায় না। ঢাকা, নরসিংদী কিংবা চট্টগ্রাম থেকে আনতে হয়। তাঁতের কাপড় ব্যাবসায়ী  বীর মুক্তিযোদ্ধা আনন্দ মোহন সিংহ বলেন, ঐতিহ্যবাহী মণিপুরী তাঁতের কাপড় দেশের গন্ডি পেরিয়ে বিদেশেও রপ্তানী হচ্ছে। কমলগঞ্জসহ সিলেটের বিভিন্ন স্থানে সরকারি উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে মণিপুরি তাঁতশিল্প প্রশিক্ষণ ও উন্নয়ন কেন্দ্র। বাংলাদেশ ব্যাংক চালু করেছে এসএমই ঋণ প্রকল্প। এসব কেন্দ্র থেকে প্রায় সব মণিপুরী পরিবার থেকেই নারীরা তাঁতের কাপড় তৈরি শিখে নিয়েছেন। তার মতে, শুধু প্রশিক্ষন প্রদান ও তাত ঋন দিলেই চলবেনা  সর্বাগ্রে প্রয়োজন মণিপুরি কাপড়ের কাঁচামাল সহজলভ্য করা ।
আলাপকালে কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. রফিকুর রহমান বলেন, প্রকৃতির অপরুপ সৌন্দর্য্যরে লীলাভুমি কমলগঞ্জ উপজেলায় দেশী বিদেশী পর্যটকদের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। পর্যটকদের কাছে মণিপুরী তৈরী কাপড়গুলোই বেশি পছন্দের। অবশ্য এখন মণিপুরীদের পাশাপাশি বাঙ্গালী তাঁতিরা এ শিল্পের সাথে আগ্রহী হয়ে কাজ শুরু করেছেন। বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্ণরও একাধিকবার কমলগঞ্জ সফরে এসে মণিপুরীদের তাঁতশিল্পের উন্নয়নে এসএমই ঋণ বিতরণ ও তাঁতি সমাবেশে যোগদান করেছেন। মণিপুরীদের পাশাপাশি বাঙ্গালী তাঁতীদেরও এসএমই ঋনের আওতায় এনে এ শিল্পকে সমৃদ্ধ করার কাজ চলছে।
জানা যায়, সাম্প্রতিক সময়ে প্রচুর মণিপুরী ড্রেস বিক্রি হচ্ছে। এর মধ্যে শাড়ি, থ্রিপিস, পাঞ্জাবি, লুঙ্গি, ফতুয়া, বিছানার চাদর, শাল, ভ্যানিটি ব্যাগ, পার্স, রুমাল, কলেজ ব্যাগ, ওড়না, থামি ও মান্দি ওড়না প্রভৃতি। থ্রিপিস ৪৫০ থেকে ৫০০ টাকা, শাড়ি ৮০০ থেকে ১০০০ টাকা, পাঞ্জাবি ৩৫০ থেকে ৫৫০ টাকা, ফতুয়া ২২০ থেকে ৩০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সুতার দাম বেশি হওয়ায় লাভ খুব কম হচ্ছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা। শ্রীমঙ্গলের মণিপুরিপাড়াসহ কমলগঞ্জের আদমপুর, ভানুবিল, রানীবাজার, মাধবপুর, মঙ্গলপুর প্রভৃতি এলাকা থেকে এসব কাপড় শ্রীমঙ্গল শহরসহ জেলার বিভিন্ন শপিং সেন্টারে এসে থাকেবিশেষ করে পর্যটকরাই এসব কাপড় বেশি কিনে থাকেন। এ শিল্পের সঙ্গে সম্পৃক্তরা জানান, এক সময় তারা নিজেদের প্রয়োজনে শাড়ি ও চাদর তৈরি করতেন। এখন তারা এ শিল্পকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করায় এসব পণ্যের গুণগত মান, নান্দনিক ডিজাইন ও চাহিদা বাঙালিদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। বিভিন্ন সামাজিক উৎসবে তরুণীরা স্বদেশী এই পণ্যের দিকে হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন। বিশেষ করে তাদের উৎপাদিত পণ্যের মধ্যে মনিপুরী শাড়ির চাহিদা আকাশচুম্বী। তারা আরো জানান, এসব পোশাক তৈরি করতে যে কাঁচামাল প্রয়োজন তার দাম অনেক বেশি। ফলে রেডিমেট পোশাকের চেয়ে তাদের হাতে তৈরি পোশাকের দামও একটু বেশি। এসব পণ্যের কাঁচামাল সহজলভ্য হলে এবং অর্থের জোগান ও আধুনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করতে পারলে তাদের তৈরি পোশাকের গুণগত মান ও নান্দনিক ডিজাইন জনপ্রিয় হয়ে উঠবে। স্থানীয় ব্যবসায়ীরা জানান, ১৫ রোজার পর থেকে মূলত ঈদের বাজার বা কেনাকাটা পুরোদমে শুরু হয়। পবিত্র ঈদুল ফিতরের টানা ছুটিতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পর্যটকরা কমলগঞ্জে আসলে তাদের অন্যতম পছন্দের জিনিস হলো মণিপুরী কাপড়। এবার শাড়ি প্রকারভেদে ৫০০ থেকে ৫ হাজার, নকশিকাঁথা ১৫০০ থেকে করে ৪ হাজার, থ্রিপিস ৪০০ থেকে ২ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ঈদে এ সব দোকানে ভাল বিক্রি হয় বলে জানান ব্যবসায়ীরা।

আশানুরূপ সুতা না পাওয়ায় কোয়ালিটিফুল কাপড় তৈরি করা যাচ্ছে না উল্লেখ করে সংশি¬ষ্ট ব্যবসায়ীরা জানান, সুতার অপ্রতুলতা ও মূল্য বৃদ্ধির কারণে তাঁতের কাপড় বুননে অনেকে অনাগ্রহী হয়ে পড়ছেন। ঈদ এবং পরে পূজা ও ঈদুল আজহা এই তিন উৎসবকে সামনে রেখে বৃহত্তর সিলেটের মণিপুরি অধ্যুষিত এলাকাগুলোতে এখন মণিপুরি তাঁতগুলো খুব ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করছে। তাঁতশিল্পীরা জানান, দেশ-বিদেশে বাহারি মণিপুরি পোশাকের প্রচুর চাহিদা থাকা সত্ত্বেও প্রয়োজনীয় কাঁচামাল ও পৃষ্ঠপোষকতার অভাব রয়েছে। তাই সবার আগে কাঁচামাল প্রাপ্যতা নিশ্চিত করা প্রয়োজন।