শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইসলামপুর ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক স্বাস্থ্য সহকারী লাঞ্চনার বিচারের দাবীতে স্মারকলিপি পেশ



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ॥
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার ইসলামপুর ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক স্বাস্থ্য সহকারীর উপর বর্বর ও মধ্যযুগীয় কায়দায় আক্রমনের সুষ্ঠু বিচারের দাবীতে সোমবার দুপুরে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সের মাঠ পর্যায়ের কর্মচারীদের পক্ষ থেকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার-কে স্মারকলিপি প্রদান করেছে।
স্মারকলিপি সূত্রে জানা যায়, কমলগঞ্জ উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ কানাইদেশী কমিউনিটি ক্লিনিক থেকে দায়িত্ব পালন শেষে বাড়ি ফেরার পথে গুলেরহাওর বাজারের কাছে গত ৬ জুলাই জমি সংক্রান্ত পূর্ব বিরোধের জের ধরে ৯নং ইসলামপুর ইউপি চেয়ারম্যান সোলেমান মিয়া স্বাস্থ্য সহকারী ও স্বাস্থ্য সহকারী মাঠ কর্মচারী এসোসিয়েশনের মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক তোফায়েল আহমদকে রাস্তায় আটকিয়ে কিল, ঘুষি, লাথি মারেন। একপর্যায়ে পায়ের জুতা দিয়েও আঘাত করেন। এ সময় স্বাস্থ্য সহকারীর সাথে থাকা শিশু কার্ড, শিশু রেজি: বই, মহিলা রেজি: বই সহ সরকারি কাগজপত্র ছিড়ে রাস্তার মধ্যে ফেলে দেন। এ ঘটনায় স্বাস্থ্য সহকারী মাঠ কর্মচারী এসোসিয়েশনের সদস্যদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। এসোসিয়েশনের মৌলভীবাজার জেলা কমিটির নেতৃবৃন্দ বিভাগীয় কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে ইসলামপুর ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে বিষয়টি মীমাংসা করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। ইউপি চেয়ারম্যান সোলেমান মিয়া স্বাস্থ্য সহকারী মাঠ কর্মচারী এসোসিয়েশনের মৌলভীবাজার জেলা কমিটির নেতৃবৃন্দ মোবাইল ফোনে জানান, স্বাস্থ্য সহকারী তোফায়েল আহমদ এলাকায় একঘরের মানুষ এবং এখানে তার আদৌ বাসস্থান ছিল না। সে যেন অনতিবিলম্বে এলাকা ছেড়ে চলে যায়। এ ঘটনায় স্বাস্থ্য সহকারী গত ১৬ জুলাই ঘটনার বিচার প্রার্থনা করে বিভাগীয় কর্তৃপক্ষ বরাবরে একটি লিখিত আবেদন জানান।
এদিকে ইসলামপুর ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক স্বাস্থ্য সহকারী তোফায়েল আহমদের উপর বর্বর ও মধ্যযুগীয় কায়দায় আক্রমনের সুষ্ঠু বিচারের দাবীতে সোমবার দুপুরে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সের মাঠ পর্যায়ের কর্মচারীদের পক্ষ থেকে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার-কে স্মারকলিপি প্রদান করেছে। স্মারকলিপিতে তোফায়েল আহমদ ও তার পরিবার সদস্যদের নিরাপত্তা প্রদানেরও জোর দাবী জানান। যার অনুলিপি স্থানীয় সংসদ সদস্যবৃন্দ, জেলা প্রশাসক, সিভিল সার্জন, পুলিশ সুপার ও কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানকে প্রদান করা হয়।
অভিযোগের ব্যাপারে ৯নং ইসলামপুর ইউপি চেয়ারম্যান সোলেমান মিয়া স্বাস্থ্য সহকারী তোফায়েল আহমদ-কে লাঞ্চনার ঘটনা অস্বীকার করে বলেন, তোফায়েল আহমদ সরকারী দায়িত্ব পালনে অবহেলা, সরকারী ঔষধ বাজারে বিক্রির ব্যাপারে তাকে (তোফায়েল আহমদ) জিজ্ঞাসা করেছিলাম মাত্র। সে সরকারের বিরুদ্ধে নানা কথাবার্তা বলে থাকে।