শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শেষ ম্যাচে পারল না বাংলাদেশ



22কমলকুঁড়ি ক্রীড়া ডেস্ক:বাংলাদেশের লক্ষ্য ছিল হোয়াইটওয়াশ। ভারতের লক্ষ্য মানরক্ষা। এমন সমীকরণ সামনে রেখে বুধবার তৃতীয় ওয়ানডে মাঠে নেমেছিল বাংলাদেশ-ভারত। টস নামক ভাগ্য পরীক্ষায় বিজয়ী হয়েছিলেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। তিনি মাটির দিকে তাকিয়ে নয়, আকাশের দিকে তাকিয়ে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন। কারণ, টসের সময় মিরপুরের আকাশে ঘন মেঘ বিরাজ করছিল। কিন্তু অল্প সময় পরই সেটা কেটে যায়।  শেষ পর্যন্ত বৃষ্টির বাগড়াবিহীন একটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়।

টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ৩১৭ রান সংগ্রহ করে ভারত। জয়ের জন্য বাংলাদেশের সামনে লক্ষ্য ছিল ৩১৮ রান।  শুরুর দিকে বাংলাদেশ আশা জাগালেও সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সে আশা মিলিয়ে যায়। শেষ পর্যন্ত ৪৭ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৪০ রান সংগ্রহ করতে পারে বাংলাদেশ। ফলে শেষ ওয়ানডেতে ৭৭ রানে হার মানে টাইগাররা।  অবশ্য প্রথম দুটি ওয়ানডে জিতে নিয়ে আগেই ঐতিহাসিক সিরিজ জয় নিশ্চিত করেছিল বাংলাদেশ। তাই আজকের ম্যাচটি বলতে গেলে বাংলাদেশের জন্য ছিল আনুষ্ঠানিকতা মাত্র।

 

ব্যাট করতে নেমে কুলকারনির করা দ্বিতীয় ওভারের শেষ বলে এলবিডব্লিউর শিকার হন তামিম (৫)। দশম ওভারের দ্বিতীয় বলে অশ্বিনের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন সৌম্য সরকারও (৪০)। দলীয় ১১২ রানে রায়নার বলে ধোনির তালুবন্দি হয়ে আউট হন মুশফিক (২৪)। এরপর দলীয় ১১৮ রানে অক্ষর প্যাটেলের বলে বোল্ড আউট হয়ে যান লিটন দাস (৩৪)। দলীয় ১৪৯ রানের মাথায় রায়নার বলে কুলকারনির হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হন সাকিব (২০)। দলীয় ১৯৭ রানে স্টুয়ার্ড বিনির বলে বোল্ড হয়ে যান সাব্বির রহমান (৪৩)।

 

পাওয়ার প্লে নেওয়ার পর পরই শূন্য রানে আউট হন মাশরাফি। তখন বাংলাদেশের স্কোর ছিল ৩৫.৪ ওভারে ২০৪ রান। দলীয় ২১৬ রানে অশ্বিনের বলে আম্বাতি রাইডুর হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হন নাসির হোসেন (৩২)। ২২২ রানের মাথায় রায়নার বলে অক্ষর প্যাটেলের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হন রুবেল হোসেন (২)।

 

এর আগে ব্যাট হাতে ভারতের ইনিংসে অবদান রাখেন শেখর ধাওয়ান ৭৫, মহেন্দ্র সিং ধোনি ৬৯, আম্বাতি রাইডু ৪৪ ও রায়না ৩৮ রান করেন। স্টুয়ার্ড বিনি ১৭ ও অক্ষর প্যাটেল ১০ রানে অপরাজিত থাকেন।

 

ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের সপ্তম ওভারের শেষ বলে মুস্তাফিজের বলে লিটন দাসের গ্লাভস-বন্দি হন রোহিত শর্মা (২৯)।  দলীয় ১১৪ রানে সাকিব আল হাসানের বলে বোল্ড হয়ে যান কোহলি (২৫)।  ২৭ তম ওভারের পঞ্চম বলে মিডউইকেটের উপর দিয়ে মারতে গিয়ে নাসিরের তালুবন্দি হন শেখর ধাওয়ান (৭৫)।  নাসির একইভাবে প্রথম ওয়ানডেতে আজিঙ্কা রাহানের ক্যাচ লুফে নিয়েছিলেন।

দলীয় ২৫১ রানে মাশরাফির বলে উইকেটের পেছনে লিটন দাশের হাতে ধরা পরেন আম্বাতি রাইডু (৪৪)।  ২৬৮ রানের মাথায় মাশরাফির বলে উড়িয়ে মারতে গিয়ে মুস্তাফিজের হাতে ধরা পড়েন ধোনি (৬৯)। এটা ছিল মাশরাফির তৃতীয় শিকার।  ৪৯ তম ওভারের চতুর্থ বলে মুস্তাফিজ সরাসরি বোল্ড করেন রায়নাকে (৩৮)। এটা ছিল মুস্তাফিজের দ্বিতীয় শিকার। এই উইকেট দুটি নেওয়ার মধ্য দিয়ে ৩ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে ১৩ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব দেখান সাতক্ষীরা এক্সপ্রেস খ্যাত মুস্তাফিজ।

পুরোপুরি ফিট না হওয়ায় গত দুই ওয়ানডে খেলা তাসকিন আহমেদকে আজ বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে। তার পরিবর্তে দলে সুযোগ পেয়েছেন আরাফাত সানী। যদিও শেষ ম্যাচের জন্যে স্কোয়াডে লেগ স্পিনার জুবায়ের হোসেনকে নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সেরা একাদশে তাকে রাখেনি টিম ম্যানেজম্যান্ট।

ভারতীয় দলে দুটি পরিবর্তন এসেছে। রবীন্দ্র জাদেজা ও ভুবনেশ্বর কুমারের বদলে একাদশে ঢুকেছেন স্টুয়ার্ট বিনি ও উমেশ যাদব।

 

তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচ জিতে এরই মধ্যে সিরিজ নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ। প্রথম ম্যাচে ৭৯ রানে জয় পায় বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ম্যাচে ৬ উইকেটে জয় নিয়ে সিরিজ নিশ্চিত করেন টাইগাররা।