শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সাংবাদিক- রাজনীতিবিদ সম্পর্ক ।। প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশ



।। বিশ্বজিৎ রায় ।।
স্নেহভাজন সাংবাদিক, সম্পাদক পিন্টু বাবুর অনুরুধ সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতা বিষয়ক একটি লেখা  পাক্ষিক কমলকুঁড়ি পত্রিকার  বর্ষপূর্তি সংখ্যার জন্য তিন দিনের ভিতর লিখে পাঠাতে হবে  তবে লেখাটা যেন হয় গতানুগতিক ধারার বাইরে। প্রথমে সম্মতি দিলেও পরে বুঝলাম কাজটি মোটেই সহজসাধ্য নয়। বিষয় নির্বাচন করতে গিয়ে হিমসীম খেতে হলো আমাকে। অবশেষে নিজের পেশাগত জীবনের অভিজ্ঞতাকে পাঠকদের সাথে শেয়ার করতে আজকের এই বিষয়টিকেই নিয়েই সিদ্ধান্ত নিলাম ।
আমাদের দেশের  রাজনীতিবিদরা সাংবাদিকদের তেমন ভালো চোখে দেখেন না। তাদের অবস্থান বরাবরই সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতার বিপক্ষে। এক্ষেত্রে তাদের যুক্তি হলো, সাংবাদিকরা যথেষ্ট তথ্য প্রমাণ ছাড়াই তাদের কাঠগড়ায় দাড় করিয়ে দেন। নিঃসন্দেহে এটি একটি চমৎকার যুক্তি। কিন্তু এই আমি তিন দশকের সাংবাদিকতার অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি, এমন কিছু কখনোই ঘটেনি।
পত্র-পত্রিকায় যখন কোন রাজনীতিবিদকে নিয়ে কোন সংবাদ প্রকাশিত হয়, তখন ধরে নেওয়া যায় খবরটা সঠিক। সাধারনতঃ ঠিকই হয়। কখনও কখনও সামান্য অতিরঞ্জন থাকলেও মূল বিষয় বস্তু ঠিকই থাকে। কিন্তু নেতাদের হাত থেকে বাচার জন্য যথেষ্ট ঠেসান না থাকায় সাংবাদিকদেরকে নানামুখী হয়রানীর শিকার হতে হয়। প্রথমতঃ  তাদের আক্রমনের লক্ষ্য বস্তুতে পরিনত হন ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার লোকজন ও প্রিন্ট মিয়িার ফটোগ্রফাররা এবং পরবর্তীতে চালানো হয় সংবাদ মাধ্যমের উপর দমন নীতি। রাজনীতিবিদরা যেমন তাদের কৃতকর্মের কোন সাক্ষ্যপ্রমাণ রাখতে চাননা ; তেমনি সাংবাদিকরাও একটু সুযোগ পেলেই মনের আনন্দে  ফুসে উঠেন যখন তখন। এভাবেই চলে আসছে বছরের পর বছর ধরে।
উল্লেখ্য যে, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে দেশে নিরপক্ষতার আনুপাতিক হার হ্রাস পাওয়ায় জনমনে প্রভাব ফেলার মিডিয়ার গুরুত্ব অনেকটাই বেড়ে গেছে। তাই দেশ ও জাতির  বিভিন্ন সংকটময় মুহুর্তে পথ-নির্দেশনা দিতে রাজনীতিবিদরা যখন ব্যর্থ হন, তখন দেশবাসী সংবাদপত্রের পাতায়  এর সমাধান খুজে ফেরেন। আমাদের দেশের প্রথিযশা সাংবাদিক -লেখকদের যেসব লেখা প্রতিদিন সংবাদপত্রের পাতায় প্রকাশিত হয় তাতে সমস্যার সমাধান না থাকলেও দিক-নির্দেশনা অবশ্যই থাকে। জাতীয় স্বার্থ ও দেশের মঙ্গলার্থে এ সমস্ত পথ-নির্দেশ আমলে নেওয়া প্রয়োজন। কিন্তু প্রশ্ন হলো আমাদের রাজনীতিবিদগণ সেই নির্দেশিত পথ কতটুকু অনুসরণ করছেন ? পৃথিবীর অন্যান্য দেশে তা অনুসরণ করা হলেও আমাদের দেশে তার সিকিভাগও  করা হচ্ছেনা। বরং ঘটছে ঠিক  তার উল্টোটিই।
বৈপরীতে ভরা সাংবাদিক ও রাজনীতিবিদগণের মধ্যকার এই সম্পর্ক  এমন সরু সুতোর বাঁধনে ঝুলছে  যার পদে পদে  রয়েছে  অবিশ্বাস ও হিংসা । উভয়ের পারস্পরিক  সহাবস্থানের লক্ষণরেখা  এতই ক্ষীণ যে, প্রায় তা লুপ্ত হয়ে যায়। তবে এর ব্যতিক্রমও চোখে পড়ে।  কোন কোন রাজনীতিবিদের সঙ্গে বিশেষ বিশেষ  সাংবাদিকের বেশ সুখকর সমঝোতাও থাকে  এবং  প্রায়ই একটা কথা শুনা যায়,  “ ও! অমুক সাংবাদিক ? তিনি তো অমুক নেতার একান্ত আপনজন,  খাস লোক ”। এই ধরণের উক্তির কোন কারণ থাকতে পারে ; নাও পারে।  এক সময় হলেও এখন আর এসব শুনে আশ্চর্য্য হইনা। কারন, এসব কিছুর পরও আমরা সাংবাদিকরা যদিও সমষ্টিগতভাবে রাজনীতিবিদদের অপছন্দের পাত্র; তবুও আমরা লিখি, তাদের নিয়ে লিখতে হয় তাই।
অগ্রজ সাংবাদিক সৈয়দ মতিউর রহমান, মীর লিয়াকত আলী, ডাঃ আবু কায়সার খান, রাধিকা মোহন গোস্বামী, রাসেন্দ্র দত্ত, শফকতুল ওয়াহেদ, শুধেন্দু দেবরায় বাবুল, কবি শহীদ সাগ্নিক প্রমুখের সান্নিধ্য লাভের সৌভাগ্য ঘটায় তাদের কাছ থেকে  যতটুকু জেনেছি তাতে উপলদ্ধি করা যায়, স্বাধীনতা পূর্ব দিনগুলোতো কিন্তু এমনটি ছিলনা। তখন কিন্তু সাংবাদিক- রাজনীতিবিদ একই অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক পটভূমি থেকে এক ইস্যুতে দেশের স্বাধীনতার জন্য  হাতে হাত লাগিয়ে  কাজ করেছিলেন।
স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে দেশের রাজনীতিতে কালোটাকার মালিকদের অন্তর্ভূক্তির কারণে বৃদ্ধি পায় রাজনৈতিক দূবৃর্ত্তপনা ও স্বেচ্ছাচারিতা।  যার ফলে সাংবাদিক- রাজনীতিবিদ সম্পর্কে ক্রমশ দূরত্ব বাড়তে থাকে। আদর্শগত বিরোধ দেখা দেয়ায় প্রধান প্রধান দলগুলো ভেঙে খন্ড খন্ড হয়ে যায়।
বিরাজমান এ পরিস্থিতিতে দেশের রাজনীতিতে এমন কিছু ডানপন্থী রাজনৈতিক দলের উদ্ভব হয়েছে  যাদের মিডিয়ার সমর্থনের প্রয়োজন হচ্ছেনা। প্রেসের প্রচারকে তার থোড়াই কেয়ার করেন।  ব্যালেট বক্সের পারফরমেন্স দিয়ে তাদের কিছু যায় আসেনা। এরা মনে করেন, নষ্টামী আর সাহসিকতা যত বেশী দেখানো যাবে ততই তাদের জনপ্রিয়তা বাড়বে। এদের বেশীরভাগ সমর্থকেরই দলের আদর্শ- উদ্দেশ্য সম্পর্কে যেমন নেই উপযুক্ত কোন শিক্ষা তেমনি নেই রাজনৈতিক শিষ্টাচার বলতে যে একটা বিষয় আছে সে সম্পর্কে কোন ধারণা । আর তাই এরা দল কিংবা নেতার ভাবমুর্ত্তি  ভালভাবে উপস্থাপিত হল কি-না সে সবের তোয়াক্কাও করে না। আর তাই  তাদের নেতাদের সম্পর্কে যখনই কোন অপ্রীতিকর  কিছু সংবাদপত্রে লেখা হয় তখনই তারা হয়ে উঠে  উন্মত্ত এবং ভয়ংকর হিংস্র। তারা প্রকাশ্য জনসভায়  ছাপার অযোগ্য ভাষায়  গালি- গালাজ করেই ক্ষান্ত থাকে না,  মার -ধোরের ভয় দেখিয়ে  কিংবা  ঘুষ দিয়ে পোষ মানাতে চায় সাংবাদিকদের। ব্যর্থ হলে তারা শসস্ত্র আক্রমন চালাতেও দ্বিধাবোধ করে না  এরা। এই ছোট্ট জনপদের একজন সংবাদকর্মী হিসাবে রাজনৈতিক দলের নেতাদের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশের কারণে আমি যেমন একাধিবার নিগৃহীত হয়েছি তেমনি বিভিন্ন সময়ে নিগৃহীত হয়েছেন সাংবাদিক ইসহাক কাজল, সাজিদুর রহমান সাজু, সুব্রত দেবরায় সঞ্জয়, নুরুল মোহাইমিন মিল্টনসহ অনেকেই।
মধ্যপন্থী দল বলে পরিচিত দলগুলোও একবারে ধোয়া তুলশী পাতা নয়।  তবে এক্ষেত্রে সরকারী দলগুলোর জিহাদ অত্যন্ত ভয়ংকর।  স্বীয় স্বার্থ সিদ্ধির জন্য  তারা যেমন সব রকম রাগ বা ঘৃণা ঝেড়ে ফেলে হয়ে উঠেন বিনয়ের অবতার ; তেমনি স্বার্থ হানীর কারণেও তারা হিংস্রভাবে ঝাপিয়ে পড়েন সাংবাদিকদের উপর। কলমকে বন্ধ করতে সাংবাদিককে জেলেপুরেই তারা ক্ষান্ত হননা বন্ধ করে দেওয়া হয় সংশ্লিষ্ট পত্রিকা কিংবা ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার প্রকাশনা বা সম্প্রচার।
দেশ স্বাধীনের পর থেকে এ পর্যন্ত যতটি রাজনৈতিক দল  রাষ্ট্র ক্ষমতায়  এসেছে তাদের কোনটিই পূর্ববর্তীদের  দমননীতি অনুসরন করতে  ভূল করেনি। যখনই সাংবাদিকরা  সরকারের কোন দূর্নীতি  কিংবা সরকার বিরোধী আন্দোলনকারীদের উপর সরকারী দলের সমর্থক ও পুলিশী নিগ্রহের খুটিনাটি বিবরন তুলে ধরেছেন তখনই চালানো হয়েছে দমন, পীড়ন ও নির্যাতন।  তাদের স্বার্থবিরোধী সংবাদ প্রকাশের কারণে হকারদের মারধোর করে পত্রিকা ছিনিয়ে নিয়ে প্রকাশ্য রাজপথে পুড়িয়ে ফেলা কিংবা সংশ্লিষ্ট সাংবাদিককে রক্ত হিম করা হুমকি দিতেও তারা সিদ্ধ হস্ত। এতে ব্যার্থ হলে লেলিয়ে দেওয়া হয় পেশাদারী কিলারচক্রকে। সংবাদপত্রের অবাধ স্বাধীনতা দানকারী হিসাবে দাবীদার বিএনপি সরকারও এক্ষেত্রে কোন অংশেই পিছিয়ে ছিলেন না। এ সরকারের আমলেই নেতাদের নির্দেশে জাতীয় প্রেসক্লাবের  ভিতরে ঢুকে সাংবাদিকদের  নির্যাতন করার ধৃষ্টতা দেখিয়েছে পুলিশ।  অবশ্য মাঝে মধ্যে ক্ষমতাসীন দলগুলোর নেতা- মন্ত্রীরা সাংবাদিকদের প্রতি এহেন  নষ্টামীর জন্য দুঃখ প্রকাশ করে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক বিচারের প্রতিশশ্র“তি দিলেও আজ পর্যন্ত কোন হামলাকারীরই বিচার হয়নি। হয়তোবা কোন দিনও তারা তাদের কৃতকর্মের সাজা পাবে না। শুধু তাই নয়, ইদানীংকালে  সরকারীদল ও পুলিশের পাশাপাশি বিরোধীদলের নেতা কর্মীদের দ্বারাও  প্রায়শই আক্রান্ত হচ্ছেন সংবাদকর্মীরা। রাজনৈতিক দলের ছত্রছায়ায় এ ধরণের নষ্টামীর পুনরাবৃত্তি ঘটছে বার বার । দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক বিচারের আশ্বাস বানী শোনালেও বাস্তবে তার প্রতিফলন ঘটেনি আজও।
সাংবাদিকতার জগতে প্রায় তিন দশক কাটানোর ফাকে রাজনৈতিক দলগুলোর এহেন মনোভাব আমার নজর কেড়েছে বার বার। তাই নিশ্চিন্তে বলতে পারি, আমরা যতই সভ্যভব্য ব্যবহার প্রত্যাশা করি না কেন তা অলীক কল্পনা মাত্র।
অতএব শুধু সংবাদপত্রের স্বাধীনতা নিয়েই চিন্তা করলে হবে না;  সংবাদকর্মীদের স্বাধীনতা ও নিরাপত্তার দাবীতেও সকলের সোচ্ছার হওয়া দরকার।

# বিশ্বজিৎ রায় # সাংবাদিক, কলাম লেখক, সহঃ সভাপতি, বাংলাদেশ অনলাইন জার্নালিষ্ট এ্যাসোসিয়েশন, মৌলভীবাজার জেলা কমিটি,  সাবেক সভাপতি, কমলগঞ্জ প্রেসক্লাব।