মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যে কারণে সংবাদ মুদ্রণে দূরত্ব



।। সাজিদুর রহমান সাজু ।।
সত্য কথা গুলো যখন কাগজের পাতায় মুদ্রন হয়ে পাঠকের হাতে পৌঁছে তখন ভোরের শিশির ভেজা ঘাসের ডগায় যেমন হীরক চিলিক দেখায় তেমনি পাঠন মনে সত্য জানার আগ্রহটা সে রকমই মনে হয়। আবার যখন সত্য ছেপে না আসে কাগজের পাতায় তখন বৃষ্টির পানিতে পথের ধারের লজ্জাপতি যে ভাবে নুয়ে যায় সে ভাবেই পাঠকরা পত্রিকায় চোখ ভুলানো বন্ধ করে দেয়। আজ পাক্ষিক কমলকুঁড়ির ৫ম বর্ষে পদার্পণে সমালোচনা করলে পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক স্নেহের পিন্টু দেবনাথ মন ক্ষুন্ন হবেন। আর যদি সমালোচনা না করি তা হলে পাঠক সমাজ মনে করবেন সত্য বলার সাহস হারিয়ে ফেলছি। আর কোনটাই যদি না করি তা হলে সহযোদ্ধা কলম সৈনিক ¯েœহের পিন্টু দেবনাথ সদ্য ফুটা গোলাপের মতই উজ্জলতায় মুখরিত হবেন। এই মন ক্ষুন্ন আর উজ্জ্বলতায় মুখরিত হওয়া আমার মনে হয় কোনটাই আমার কাছে প্রত্যাশা না করাই ভাল। সংবাদ প্রকাশে আমি আমার নিজের কথাই বলছি। ইদানিং বন্ধুতের স্বার্থে বা এলাকার স্বার্থে অনেক সময় সংবাদ বর্জন করে থাকি। চেষ্টা করি স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে বা জনপ্রতিনিধি কিংবা সংবাদকর্মীর মাধ্যমে ওই সব সংবাদ গুলোর মিটমাট করার। এতে করে কমল মনের কমলগঞ্জের মানসম্মান অক্ষুন্ন রবে। এ স্বার্থেই কোন কোন সময় পুরো সংবাদটিই গিলে ফেলছি। কিন্তু এটাকে অনেকেই নানা ভাবে দেখেন। অনেকেই মনে করেন সত্য বলা বা প্রকাশে সাহস বা দায়িত্ববোন মনে করছি না। তাদের মায়া কান্না দেখে মনে হয় তাদের মতো আর কেউ কমলগঞ্জ প্রেমী নয়। অথচ ওই সমালোচকরাই কমল নারায়নের কমলগঞ্জ বা কমল পদ্মের কমলগঞ্জ কিংবা সবুজ গালিজার কমলগঞ্জটা পুরোটাই গিলে ফেলার কাজে লুপ্ত। কমলগঞ্জের নানা ঘটনার সংবাদ শিরোনাম করতে গিয়ে অতীতে কার ক্ষতি বা লাভ হয়েছে তা যেমন কমলগঞ্জবাসী দেখেছেন বা উপলব্ধি করেছেন। তার চেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে এ অঞ্চলের উন্নয়ন। আজ তা অক্ষরে অক্ষরে বলেন আর হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছেন বললেও তা পুষিয়ে দেওয়ার ক্ষমতা নেই আমার বা আমাদের। আমি ওইসব কথা এ কারণেই স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি পাক্ষিক কমলকুঁড়ির প্রতিটি সংখ্যায় সংবাদের ধরণ দেখে পাঠকরা যে সমালোচনা করেন তা যেন না করেন। সংবাদ প্রকাশেও অনেক বাঁধা নিষেধ থাকে। আবার সাহস করে সংবাদ প্রকাশ করলে প্রকাশনা বন্ধ বা জেলের ঘানি টানতে হয়। জাতীয় পর্যায়ে এটা কষ্টকর প্রতিনিয়ত। মফস্বলের মতো কমলগঞ্জে তা জ্বলন্ত আগুনে ঝাপ দেয়ার সামিল। আজ পাঠক সমাজ আপনারাই সিদ্ধান্ত নেন কোন পথে পা বাড়াবে কমলকুঁড়ি। তবুও পত্রিকার সম্পাদকের চেষ্টা কমতি ছিল সত্য বা সারসত্য তুলে ধরে পত্রিকার প্রতিটি সংখ্যা পাঠক সমাজের হাতে পৌঁছে দিতে। নানা প্রতিকুলতার মধ্যেও চকচকে মুদ্রনে প্রতিটি সংখ্যা নিয়মিত প্রকাশ করার মধ্যদিয়ে আজ ৫ম বর্ষে পদার্পণ করলো পাক্ষিক কমলকুড়ি পত্রিকা। কখন যে বর্ষপুর্তি হয়ে গেল দীর্ঘপথ চলার মধ্যদিয়ে টের পাওয়া যায়নি। প্রতিক্ষা আবার কোন এক শিশির সিক্ত সকালের। আজ কমলকুঁড়ি এগিয়ে গেছে অনেক দূরে। স্মৃতির মলাটে অনেক আলপনা তার। শুভ জন্মদিনে প্রত্যাশা ক্ষনে ক্ষনে লোকায়িত সংবাদ কালো কালির মুদ্রনে অন্ধকারের তরি করবে আলোকিত। কেননা সংবাদকর্মী তুমি। তোমার ক্ষুর ধার লেখনী বন্ধ হলে দেখা মিলবে না ভোরের সকাল। শুভ জন্ম দিনে প্রসারিত হোক দীর্ঘ পথ তোমার।
# সাজিদুর রহমান সাজু # কমলগঞ্জ প্রতিনিধি, দৈনিক মানবজমিন।