মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাঁচিয়ে রাখতে হবে



॥ মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান ॥
পৃথিবীতে যখন একটি শিশু জন্ম গ্রহণ করে তখন থেকে শিশুটির জন্য মা-বাবা চিন্তায় মগ্ন হয়ে পড়েন, কিভাবে লালন পালন করবেন শিশুকে। সময় যত যায় ততই বড় হতে থাকে শিশুটি। এক সময় শিশুটি বড় হয় তখন পিতা-মাতা মুখে ফুটে হাসির ঝিলিক। ঠিক সেই ভাবে একজন প্রকাশক বা সম্পাদক নতুন পত্রিকা বাজারে বের করার সময় চিন্তা করেন পত্রিকাটি টিকে থাকবে বা পাঠক মহলে গ্রহনযোগ্য হবে কি না ? পাঠক মহলে গ্রহণযোগ্য করে তুলতে আপ্রাণ চেষ্টা করেন সম্পাদক। একটি বছরে যেতে না যেতে আরেকটি বছর সামনে চলে আসে। এভাবেই পাঠকের কাছে পত্রিকাটি আস্তা অর্জন করে ভারমুক্ত হন সম্পাদক। এ কথা বলছি কারন হলো আমার সহকর্মী কলম সৈনিক সাংবাদিক পিন্টু দেবনাথ আজ থেকে ৪ বছর আগে কমলগঞ্জ উপজেলা থেকে একটি পাক্ষিক পত্রিকা  বের করেন। যার নাম দেন কমলকুঁিড়। তখন তিনি চিন্তায় ছিলেন পত্রিকাটি বের হলেও বাঁচিয়ে রাখতে পারবেন তো? সেই দিনে সময় আর আজকের সময়ের মধ্য অনেক ফারাক। বছর গুনতে গুনতে কমলকুঁড়ি  আজ ৫ম বর্ষে পর্দাপণ করছে। একক ভাবে নিজের প্রচেষ্টায় পিন্টু দেবনাথ তার পত্রিকাটি বাঁচিয়ে রেখেছেন স্বদপর্নে। একটি পত্রিকা ৪ বছর শেষ করা চাট্টিখানি কথা নয়। তাঁর এই সাহসের জন্য অভিবাদন জানাই। প্রথমত একটি পত্রিকা বের করতে অনেক মেধা-শ্রম- সময়ের প্রয়োজন। সময়ে সাথে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন তা হলো অর্থ। অর্থের কোন বিকল্প নেই। ‘কমলকুঁড়ি’ সম্পাদকের অর্থ ছাড়া সবকিছুই রয়েছে। আর্থিক সমস্যা, লোকবল সংকটসহ নানা বাঁধা উপেক্ষা করে হাঁটি হাঁটি করে কমলগঞ্জবাসীর মনে স্থান করে নিয়েছে পত্রিকাটি। একক প্রচেষ্টায় প্রতি মাসের ২টি সংখ্যা বের করা হয়ে থাকে। এডিটর, সাব এডিটর, নিউজ এডিটর, বিজ্ঞাপন ব্যবস্থাপকসহ সব কিছুই নিজেরই দেখলভার করেন সম্পাদক পিন্টু দেবনাথ। আমার পত্রিকাটি বের হবার পর হতে পিন্টু দেবনাথের সাথে ঘনিষ্ট সর্ম্পক হয়ে উঠে। সেই সুবাদে আমি পাক্ষিক কমলকুঁড়ি সম্পর্কে জানি। দেখতে দেখতে মাস চলে যায়, প্রতি মাসে দুইটি সংখ্যা বের করতে অনেক টাকার প্রয়োজন হয় তা যোগান দিতে গিয়ে হিমশিম খেতে হয়। নানা অসুবিধাকে জয় করে স্বগৌরবে পত্রিকাটিকে উচ্চ শিকড়ে তুলছেন। শুধু তাই নয় ‘কমলকঁিড়’এখন অনলাইনে দেখা যায়। দেশ-বিদেশে অবস্থানরত পাঠকদের কাছে আস্তা অর্জন করছে। প্রতিদিন আপডেট নিউজ পাঠকমহল পেয়ে থাকেন। বর্তমানে ৬ শত পাঠক নিয়মিত অনলাইনে পত্রিকাটি পড়েন। আমার বিশ্বাস দিন দিন আরো পাঠক বৃদ্ধি পাবে। কমলকুঁড়ি কমলগঞ্জে সবার কাছে পরিচিত। স্থানীয় পত্রিকার গুরুত্ব অপরিসীম। চার পাশের ঘটে যাওয়া খবর পত্রিকাটিতে উঠে আসে। দৈনিক পত্রিকার মাধ্যমে যা পাওয়া যায় না। কমলগঞ্জের সাপ্তাহিক ও মাসিক পত্রিকা আরো কয়েকটি রয়েছে। কমলগঞ্জে পত্রিকার মালিকরা এত সম্পদদের অধিকারী নন। তারা শুধুমাত্র মানবকল্যাণে সহযোগীতা করতেই ভুর্তকী দিয়েও পত্রিকা প্রকাশনা অব্যাহত রেখেছেন। তার মধ্যে কমলকুঁড়ির সম্পাদক পিন্টু দেবনাথও একজন। যদি পৃষ্টপোষকতা পাওয়া যেত তাহলে মালিকদের এত কষ্ট হতো না। বিজ্ঞাপনও পাওয়া যায় না। এলাকার অনেকেই আছেন বাহিরের পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে কাপর্ন করেন না। অথচ স্থানীয় এলাকার পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে নারাজ। তবে যারা দেন তারাও টাকা দিতে সময়ক্ষেপন করেন। এভাবে কত দিন একটি পত্রিকা নিজের  টাকা খরচ করে টিকিয়ে রাখা যায়! কেউ কেউ বলতে পারেন পত্রিকা বের করেন কেন ? সেই প্রশ্ন উত্তর হচ্ছে পত্রিকা থাকায় আপনার  বা এলাকার সমস্যা সমাধান সহজেই হচ্ছে। আমরা মনে করি পত্রিকা সমাজের দপর্ণ হিসাবে কাজ করছে।
যাক সে কথা, কমলকুঁড়ি বিগত ৪টি বছরে এলাকার সমস্যা-সম্ভাবনা, দুর্নীতির কথা তুলে ধরেছে। এসব তুলে ধরতে গিয়ে নানা মহল সম্পাদকের উপর নারাজ হয়েছেন। তারপর বসে নেই সম্পাদক। বিশেষ করে স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) এর উন্নয়ন বা সমস্যা সমাধানের দিক তুলে ধরে নিউজ প্রকাশ করেছে। যা এলাকায় প্রশংসা পেয়েছে। এছাড়াও গুণীজন, শ্রেষ্ট সমাজকর্মী ও জয়িতাদের আত্মজীবনী পাঠক জানতে পেরেছে। মাঝে মধ্যে পত্রিকাটির সেটআপ-গেটআপ ও ডিজাইনে ঘাটতি দেখা যায়। এ বিষযটিতে সম্পাদককে আরো দায়িত্বশীল হবেন বলে মনে করি। সার্বিক বিবেচনায় পাক্ষিক কমলকুঁড়ি অন্য পত্রিকা চেয়ে কোন অংশে কম নয়। অতীতকে স্মরণ করে আগামীতে আরো এগিয়ে যাবে কমলকঁড়ি এটাই আমি প্রত্যাশা করি। পত্রিকার সম্পাদকসহ জড়িত সংশ্লিষ্ট সকলকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।
লেখক : প্রধান সম্পাদক, সাপ্তাহিক কমলগঞ্জের কাগজ  ও সাধারণ সম্পাদক, কমলগঞ্জ রিপোর্টার্স ইউনিটি