শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চা শ্রমিকদের সাপ্তাহিক ছুটির মজুরির দাবিতে : কমলগঞ্জের বিভিন্ন চা বাগানে শ্রমিক প্রতিনিধি সভা অনুষ্ঠিত



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ॥
দৈনিক ৬৯ টাকা মজুরিতে দেশের চা-শ্রমিকরা জীবন জীবিকা নির্বাহ করে চললেও তাদের সাপ্তাহিক ছুটির দিনের মজুরি প্রদান করা হয় না। চা শ্রমিকদের সাপ্তাহিক ছুটির দিনের মজুরি দাবিতে বাগান ব্যবস্থাপক বরাবরে আবেদন করে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের বিভিন্ন চা বাগানে শ্রমিকরা সভা করেছেন।
চা বাগান শ্রমিকরা জানান, চা শ্রমিকরা সাপ্তাহিক ছুটির দিনের মজুরি, কল্যাণ তহবিল ও অংশগ্রহণ তহবিলের সুযোগ সুবিধা থেকে তারা বঞ্চিত রয়েছেন। সপ্তাহে ৬ দিনের মজুরি হিসেবে তাদের ৪১৪ টাকা প্রদান করা হয়। অথচ ২০১৩ সালের সংশোধিত শ্রম আইনের ১০৩ (গ) ধারা মোতাবেক সকল শ্রমিকদের ছুটির দিনের মজুরি প্রদান বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। আলীনগর চা-বাগানের রূপনারায়ন কৈরী, সজল বাক্তি, রণজিৎ নুনিয়াসহ কয়েকজন শ্রমিক জানান, তারা ছুটির দিনের মজুরি প্রদানের জন্য গত ১৪ জুন বাগানের ব্যবস্থাপক বরাবর লিখিত আবেদন পেশ করেছেন। এছাড়াও বিভিন্ন চা বাগানের শ্রমিকরা আইনিভাবে প্রাপ্য সুবিধার জন্য সংশ্লিষ্ট বাগান ব্যবস্থাপক বরাবর আবেদন করা হচ্ছে। এছাড়াও গত কয়েকদিন ধরে ধারাবাহিকভাবে শ্রমিকরা শমশেরনগর, আলীনগর, সুনছড়া, ডবলছড়া চা বাগানে এই দাবি আদায়ে সভা করেছেন। গত বুধবার বিকাল ৩টায় আলীনগর চা বাগানে, বৃহস্পতিবার শমশেরনগর চা বাগানে সভায় চা শ্রমিক সংঘের আহবায়ক রাজদেও কৈরী, রূপনারায়ন কৈরী, সীতারাম বীন, গৌরি রানী কৈরী, লছমি রানী রাজভর বক্তব্য রাখেন। রোববার ডবলছড়া ও সোনছড়া চা বাগানে শ্রমিক প্রতিনিধিদের সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় চা শ্রমিক সংঘের আহবায়ক রাজদেও কৈরী, রূপনারায়ন কৈরী, লছমি রানী রাজভর, সুখরাম নায়েক, দিবা শুক্ল বৈদ্য ও ট্রেড ইউনিয়ন সংঘের মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সম্পাদক রজত বিশ্বাস বক্তব্য রাখেন।
বক্তারা বলেন, বিভিন্ন সেক্টরের শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধি পেলেও দীর্ঘ দিন ধরে চা-শ্রমিকদের মজুরি ৬৯ টাকায় আটকে আছে। অথচ ২০১৩ সালের সংশোধিত শ্রম আইনে সকল শ্রমিকদের ছুটির দিনের মজুরি প্রদান বাধ্যতামূলক করা হলেও চা শ্রমিকরা এই সুবিধা থেকে বঞ্চিত। শ্রম আইন-২০১৩ অনুযায়ী সাপ্তাহিক ছুটির দিনের মজুরি প্রদানের জন্য তারা বাগান কর্তৃপক্ষ বরাবর আবেদন করেছেন এবং একই সাথে সভা-সমাবেশ করে কর্তৃপক্ষ বরাবরে দাবি জানাচ্ছেন।