মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কুলাউড়ার সাধনপুর দাখিল মাদ্রাসার সুপারের বিরুদ্ধে ছাত্রের সাথে অনৈতিক অসদাচরণের অভিযোগ || নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের



মো. আসহাবুর ইসলাম শাওন ॥
মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নের সাধনপুর দারুল কোরআন হাসানিয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপারের বিরুদ্ধে মাদ্রাসার এক ছাত্রের সাথে অনৈতিক অসদাচরণের গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে মাদ্রাসা ছাত্র বাদী হয়ে কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন।
উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে দায়েরকৃত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, কুলাউড়া উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নের সাধনপুর দারুল কোরআন হাসানিয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মো: আব্দুল মনাফ দীর্ঘদিন যাবত মাদ্রাসার হাফিজিয়া ক্লাসের ১নং ছাত্র মো: রাহেল আহমদের সাথে অনৈতিক প্রস্তাব দেন। এতে এই ছাত্র বাঁধা নিষেধ করে। মাদ্রাসা বন্ধ থাকাকালীন সময়ে একপর্যায়ে হাফিজিয়া ক্লাসের ১নং ছাত্র মো: রাহেল আহমদকে লোক মারফত সংবাদ দিয়ে মাদ্রাসায় এনে সুপার বলেন, তিনি একা থাকতে ভয় পান, তাই সুপারের সাথে এক বিছানায় থাকতে অনুরোধ করলে গত ২৩ মে রাত সুপারের সাথে রাত যাপন করেন। রাত আনুমানিক ১১টায় সুপার এই ছাত্রের সাথে অসদাচরণ ও ধস্তাধস্তি সহ জোরপূর্ব্বক আপত্তিজনক কাজ করেন। মাদ্রাসা ছাত্র রাহেল জানায়, ঘটনার সময় আমি ভয়ে চিৎকার দেয়ার চেষ্টা করলে সুপার আমার গলা চেপে ধরেন এবং শ্বাসরুদ্ধ করে প্রাণে মারার হুমকি দেন। রাহেল জানান, আমার মতো আরো অনেক ছাত্রের সাথে এই সুপার অনৈতিক কাজ করেছেন। সুপার অন্যায়ভাবে ইসলাম বিরোধী কাজ করার পরও এই ঘটনা কাউকে বললে মাদ্রাসা থেকে বহিষ্কার ও প্রাণনাশের হুমকি দেন।
সাধনপুর দারুল কোরআন হাসানিয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপারের এহেন ব্যবহারে অতিষ্ট জর্জরিত ও লজ্জিত হয়ে গত ১ জুন মাদ্রাসার হাফিজিয়া ক্লাসের ১নং ছাত্র মো: রাহেল আহমদ বাদী হয়ে মাদ্রাসা সুপারের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করে সহজ সরল ছাত্রদেরকে অমানবিক কার্যকলাপের হাত থেকে মুক্তির দাবী জানিয়ে কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন।
ঘটনার ব্যাপারে জানতে চাইলে সাধনপুর দারুল কোরআন হাসানিয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মো: আব্দুল মনাফ মোবাইল ফোন (০১৭১৫-২৩৭৬১১) বার বার রিং হলে তিনি কেটে দেন।
কুলাউড়া উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার (সহকারী কমিশনার-ভূমি) নাজমা আশরাফী বলেন, বিষয়টি তদন্তক্রমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।