শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যানের ভ্রাম্যমান অফিস ॥ দুর্ভোগে সাধারন মানুষ



কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ॥
নির্ধারিত অফিস ভবন থাকার পরও কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ভ্রাম্যমান অফিসে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। ফলে বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে নির্দিষ্ট কোন স্থানে চেয়ারম্যানকে না পেয়ে ভুক্তভোগি সাধারণ মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। তবে উপজেলা পরিষদের সভাকক্ষে নিয়মিত অফিস করছেন বলে দাবি করেন উপজেলা চেয়ারম্যান।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ভূক্তভোগীর অভিযোগে জানা যায়, বিগত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কমলগঞ্জ উপজেলায় অধ্যাপক রফিকুর রহমান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই তিনি বিভিন্ন অফিসে বসে ভ্রাম্যমান অফিস পরিচালনা করছেন। দু’তলা বিশিষ্ট উপজেলা পরিষদের ভেতরে নির্ধারিত ভবন ও অফিস কক্ষ থাকার পরও এই ভবনে তিনি অফিস না করেই ইউএনও অফিস, এলজিইডি অফিস, উপজেলা পরিষদ সভা কক্ষ, নিজ বাড়িসহ বিভিন্ন অফিসে বসে কাজকর্ম চালিয়ে যাচ্ছেন। ফলে নির্দিষ্ট কোন স্থান না থাকায় বিশেষ প্রয়োজনে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানকে খোঁজে পাওয়া যায় না। অনেক খোঁজাখোঁজি করে সারাদিন ধর্না দিয়ে এমনকি দু’দিনেও কোনমতে তাঁর দেখা পাওয়া গেলেও ব্যস্ততার কারনে অনেক সময় চেয়ারম্যানের সাথে সাক্ষাৎ ও প্রয়োজনীয় কাজ সেরে উঠা সম্ভব হয় না । এ অবস্থায় চেয়ারম্যানের খোঁজে আসা সাধারণ মানুষকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।
অভিযোগ বিষয়ে কমলগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক রফিকুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এ অভিযোগ সঠিক নয়। উপজেলা নির্বাচন অফিস ভবনকে উপজেলা পরিষদের অফিস কক্ষ দেওয়া হলেও বাস্তবে মূল প্রশাসনিক অফিস থেকে অনেক দূরে থাকায় মানুষ সেখানে যেতে চান না। তবে নিয়মিতভাবে উপজেলা পরিষদের সভাকক্ষেই অফিস পরিচালনা করছেন।