সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

আসুন ওদের পাশে দাঁড়াই-



॥ কমলকুঁড়ি রিপোর্ট ॥

Pic---Laila_Akther[1]

লায়লা আক্তার :
মা-বাবা দুজন দিনমজুরী করে ৮ সদস্যের পরিবারের জীবিকা নির্বাহ করতে যেখানে হিমশিম খাচ্ছেন। সেখানে জিপিএ-৫ পেয়ে মেয়েকে কিভাবে ভাল কলেজে ভর্তি করবেন এ চিন্তায় দিশেহারা। মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার সীমান্তবর্তী ইসলামপুর ইউনিয়নের শ্রীপুর গ্রামের দিনমজজুর দম্পতির মেয়ে লায়লা আক্তার এবারের এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলে বিজ্ঞান বিভাগে জিপিএ-৫ পেয়ে এলাকায় আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। সীমাহীন বাঁধা পেরিয়ে ভান্ডারীগাঁও উচ্চ বিদ্যালয় থেকে সিলেট শিক্ষাবোর্ডের অধীনে লায়লা গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছে। শুধু কি টাকার অভাবে উচ্চ শিক্ষার স্বপ্ন ভেঙ্গে যাবে লায়লার?
লায়লার মা ইয়ারুন বেগম জানান, তিনি  ও তার স্বামী ইছমাইল মিয়া দিনমজুরী করে কোন রকমে পরিবারের ৮ জন লোকের জীবিকা নির্বাহ করছেন।  এমনও  দিন অনেক গেছে যে, অন্যের বাড়িতে ঝিয়ের কাজ করে যে খাবার জুটেছে তা নিজে না খেয়ে ছেলে মেয়েদের খাইয়েছে। ভাই-বোনের মধ্যে লায়লা সবার বড়।
লায়লার দাদী সত্তরোর্ধ্ব জলিকা বেগম জানান, নিজেদের ভিটে মাটি না থাকায় চাচার বাড়িতে একটি চালা তুলে  কোন রকমে রাতটুকু পার করেন তারা। এত কষ্টের পরেও লায়লার ১ বোন ও ৩ ভাইয়ের সবাই লেখাপড়া করছে। বিদ্যুৎ না থাকার কারনে হারিকেন জ্বেলে অথবা চাচার ঘরে বিদ্যুতের আলোয় খুব কষ্ট করে পড়ালেখা করতে হয়েছে লায়লাকে।
লায়লা জানায়, টাকার অভাবে কোন সময় প্রাইভেট পড়তে পারিনী। একটি স্কুল ড্রেসেই বছর তিনেক পার হয়েছে। এসএসসি পরীক্ষার ফরম ফিলাপ করতে গিয়ে ধারদেনা ও নিজের হাঁসমুরগী বিক্রি করতে হয়েছে। ভাল কোন কলেজে ভর্তি হয়ে শিক্ষক হওয়ার তার খুব  ইচ্ছে। কিন্তু বাধ বেধেছে অর্থ।
দু’চোখের জল ফেলে লায়লার মা আক্ষেপ করে বলেন, সন্তানদের লেখাপড়া ক্ষতি হবে জেনে নারী হয়ে মজুরীতে পরের গরু মাঠে চরাতে গিয়েছি। কিন্তু এখন আর পারছি না। বড় ক্লাসে কেমন করে পড়াবো মেয়েকে ? এত টাকা কোথায় পাবো ? যদি সরকার বা সমাজের বিত্তবান কেউ আমাদের কিছু সহযোগীতা করতো তাহলে কলেজে ভর্তি করে মেয়ের স্বপ্ন পূরণ করতে পারতাম। মেয়ের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে চারিদিকে অন্ধকার দেখছেন লায়লার মা-বাবা।

শামীমা সুলতানা :

Pic---Samima_Sultana[1]
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের মণিপুরী অধ্যুষিত একটি গ্রাম কান্দিগাঁও। এ  গ্রামের হতদরিদ্র পরিবারের মেধাবী কন্যা শামীমা সুলতানা। বাবা পানদোকানী মোহাম্মদ উদ্দীন ও মা ফায়েকা বেগমের অন্য ৪ সন্তাানের সকলেই স্কুল কলেজে লেখাপড়া করছে। অনেক কষ্টে কোনভাবে মানবেতর জীবন যাপন করছে যে পরিবার। সে পরিবারের ৪ সদস্যের লেখাপড়া করানো দুঃসাধ্যই বৈকি। তবু লেখাড়া করে মানুষ হবার ব্রত নিয়ে শত বাধা ডিঙিয়ে শামীমারা পড়ছে। এবছর এসএসসি পরীক্ষায় তেতইগাঁও রশিদউদ্দিন উচ্চবিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞান বিভাগে সে জিপিএ ৫ লাভ করেছে। সে পিএসসি ও জেএসসিতেও বৃত্তি লাভ করেছে। আর বৃত্তির টাকায় এতদুর পর্যন্ত আসতে পেরেছে। বৃত্তির টাকা না পেলে হয়তো এ পর্যন্ত আসা সম্ভব হতোনা বলে জানায় শামীমা। কিন্তু অদম্য মেধাবীদের কি দমিয়ে রাখা যায়? নিজেদের ভাঙা ঘরে বিদ্যুৎ না থাকায় কেরোসিন কুপির মিটিমিটি আলোয় হাড্ডিসার পরিশ্রম করে পড়া তৈরি করেছে। পানের দোকানে আর কতইবা আয়, নুন আনতে পান্তা ফুরায় সংসারে অনেকদিন না খেয়েই ঘুমাতে হয়। ক্ষুধার যন্ত্রণা আর দারিদ্র্যের কঠোরতায় তবু তার শিক্ষা অর্জনের ¯পৃহাকে একটুও দমিয়ে রাখতে পারেনি। তাই খেয়ে না খেয়ে প্রতিদিন নিয়মিত ক্লাস করে এসএসসিতে এ ফলাফল লাভ করেছে। অনেক আশায় বুক বেঁধে স্বপ্ন দেখেছিলো শামীমা। চিকিৎসক হয়ে দরিদ্ররোগীদের সেবায় নিজেকে বিলিয়ে দেবে।
আঁধার ঘরে চাঁদের আলো মণিপুরী মুসলিম (পাঙান) মেয়ে শামীমার সে স্বপ্ন বোধ হয় আর ভেঙে যাবে অচিরেই। মা-বাবা চাচ্ছেন ভাল কোন বর দেখে মেয়ের বিয়ে দিতে। কিন্তু শামীমা চায় উচ্চশিক্ষা অর্জন করে তার স্বপ্ন পূরণ করতে। শুধু অর্থের অভাবে দারিদ্রতার করাল গ্রাসে মেধাবী এ সন্তানের লেখাপড়ার অদম্য ইচ্ছাকে পিষে ফেলে এ বয়সেই বিয়ে দিতে বাধ্য হচ্ছেন তার মা-বাবা। বাবা মোহাম্মদ উদ্দীন কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, অনেক কষ্টে সন্তানদের লেখাপড়া করিয়েছি। আর পারছি না। উচ্চশিক্ষা অর্জনের জন্য অনেক টাকার প্রয়োজন। এত টাকা আমি কোথায় পাব? পরিবারে এখন আনন্দের পরিবর্তে বিরাজ করছে শোকাবহ পরিবেশ। উচ্চ শিক্ষার প্রত্যাশা তার ও তার পরিবারের কাছে চরম বিলাসিতা ছাড়া আর কিছু নয়।
শামীমা সুলতানা ভবিষ্যতে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে সমাজ ও সংসারের জন্য কিছুটা অবদান রাখতে চান, চান ডুবন্তপ্রায় সংসারের হাল ধরতে। এ অবস্থায় এসএসসি পরীক্ষায় এমন আশ্চর্য্য ফলাফলের পরও তার পরিবার চরম দূর্ভাবনায়। সমাজের বিত্তবানরা এগিয়ে আসলে পুরণ হতে পারে শামীমার উচ্চ শিক্ষার স্বপ্নসাধ। নতুবা এখানেই থেমে যাবে অদম্য মেধাবী শামীমার শিক্ষা জীবন।

কেউ যদি সাহায্য করতে চান- কমলকুঁড়ি পত্রিকার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন ০১৭১৬৩৬২৯৪৪