শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বড়লেখা উপজেলা ভূমি অফিসের জনদুর্ভোগ লাঘবে প্রশাসনের প্রশংসনীয় উদ্যোগ



বড়লেখা সংবাদদাতা ।।

বড়লেখা উপজেলা ভূমি অফিসে দালালদের উৎপাতসহ ভূমি সংক্রান্ত কাজে যাতায়াতকারী জনসাধারনের দুর্ভোগ লাঘবে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ মোহাম্মদ আমিনুর রহমান ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) শারমিন সুলতানা বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করেছেন। ১২ মে মঙ্গলবার জালালাবাদে ভূমি অফিসে জনসাধারনের দুর্ভোগ-হয়রানী সংক্রান্ত একটি সরেজমিন ও অনুসন্ধানী প্রতিবেদন ছাপা হয়। এরপরই উপজেলা প্রশাসন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ভূমি অফিসের সার্বিক নিরাপত্তা ও সেবা নিতে আসা লোকজনের সচেতনতা বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি কাজ বাস্তবায়নে তৎপর হয়। জানা গেছে, উপজেলা ভূমি অফিসের প্রধান ফটক খোলা থাকায় অবাধে বিভিন্ন শ্রেণীর লোকজন যাতায়াত এবং যত্রতত্র অটোরিকশাসহ অন্যান্য যানবাহন পার্কিং করে স্বাভাবিক কাজকর্মে ব্যাঘাত ঘটাতো। এজন্য অফিস সময়ে পকেট গেইট খোলা রেখে প্রধান গেইট বন্ধ রাখা হচ্ছে। ভেতরের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও রেকর্ডপত্রের নিরাপত্তায় সিসি ক্যামেরা স্থাপনের পাশাপাশি দেয়ালে গ্রিল দেয়া হয়েছে। দুর দুরান্তের লোকজন দালালের খপ্পড়ে না পড়ার জন্য আগত জনসাধারনের সুবিধার্থে ভূমি অফিসের প্রবেশ মুখে হেল্পডেক্স খোলা হয়েছে। কে কি জন্য ভূমি অফিসে যাচ্ছেন সেজন্য একটি রেজিষ্টার্ড মেনটেইনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। সিটিজেন চার্টার অনুযায়ী জনসাধারণের সেবা নিশ্চিত করতে ভূমি সংক্রান্ত বিভিন্ন কাজের ফির মূল্য তালিকা, দালাল হইতে সাবধান ইত্যাদি শে¬াগান লিখা গণ সচেতনতামূলক ব্যানার ফেস্টুন টানানো হয়েছে। সহকারী কমিশনার (ভূমি) শারমিন সুলতানা জানান, জনসাধারনের ভূমি সংক্রান্ত কাজ দ্রুত সম্পন্ন করে দিতে নানা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। অফিসের কোন কর্মচারীর সাথে কারও প্রয়োজন থাকলে তার সামনেই সে প্রয়োজন শেষ করতে হবে। কে কি করছে তা সিসি ক্যামেরায় তিনি পর্যবেক্ষন করবেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ মোহাম্মদ আমিনুর রহমান জানান, ভূমি অফিসের সার্বিক নিরাপত্তা ও সেবার মান বৃদ্ধির জন্য অনেক আগেই বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়। কিন্তু বরাদ্দ প্রক্রিয়াধীন থাকায় সেগুলো বাস্তবায়নে কিছুটা বিলম্ব হয়। বর্তমানে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে জনস্বার্থে সেসব কাজ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।