শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কুলাউড়া থেকে অপহৃত স্কুলছাত্রী শ্যামলী এক মাসেও উদ্ধার হয়নি



 
 কুলাউড়া প্রতিনিধি ॥
কুলাউড়া উপজেলায় “মুসলিম লাভ” জিহাদ কর্মী কর্তৃক অপহৃত এক হিন্দু এক স্কুল ছাত্রী এক মাসেও উদ্ধার হয়নি। বরং তার নাম পরিবর্তন করে কৌশলে মুসলমান বানানো ও বিয়ে করার অভিযোগও রয়েছে। অপহৃত কিশোরী সে তারাপাশা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী বলে পরিবারের দাবি।
উপজেলার হাজীপুর গ্রামের সত্যরঞ্জন দের কিশোরী মেয়ে শ্যামলী রাণী দে (১৫) ১৭ এপ্রিল রাত আনুমানিক ৯ টায় ফেসবুক ভিত্তিক “লাভ জিহাদ” কর্মীরা জোরপূর্বক অপহরণ করেছে বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় কিশোরীর বাবা সত্য রঞ্জন দে ১৯ এপ্রিল কুলাউড়া থানায় একটি জিডি (নং-৭৯৭) করেন। অপহরনের পর শ্যামলী রানী দে (১৫) কে জাল জন্মনিবন্ধন সনদপত্র তৈরি করে পূর্বের নাম গোপন করে নতুন নাম বন্যা দে দিয়ে ১৯ এপ্রিল নোটারী পাবলিকের মাধ্যমে ইসলাম ধর্মে ধর্মান্তরিত করা হয়। তার নতুন নাম দেয়া হয় মোছাঃ সাবিনা আক্তার। আবার মোছাঃ সাবিনা আক্তারকে ২০ এপ্রিল আরেকটি নোটারী পাবলিকের মাধ্যমে অপহরণকারী জগলু মিয়ার সাথে বিবাহ দেখানো হয়।
এদিকে থানায় জিডি হওয়ার পর মেয়েকে উদ্ধারে পুলিশের কাছে ধরনা দিয়ে কোন লাভ না হওয়ায় কিশোরীর বাবা সত্য রঞ্জন দে ২৬ এপ্রিল মৌলভীবাজার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুন্যালে একটি মামলা (নং ১৭০/১৫) দায়ের করেন। এ ঘটনায় একই গ্রামের বারিক মিয়ার পুত্র রুবেল মিয়া, রাজনগর উপজেলার হাটিকরাইয়া গ্রামের রইছ আলীর পুত্র জগলু মিয়া (২৩), একই গ্রামের বারিক মিয়া, রাজনগর উপজেলার হাটি করাইয়া গ্রামের রইছ মিয়ার স্ত্রী ও অপহরণকারীর মা বেগম বিবিকে আসামী করা হয়। আদালত পরদিন ২৭ এপ্রিল আদালত মামলাটি কুলাউড়া থানায় প্রেরণ করেন এবং কিশোরীকে উদ্ধার করে আদালতে একটি প্রতিবেদন পাঠাতে থানা পুলিশকে নির্দেশ দেন। কিন্তু কুলাউড়া থানা পুলিশ “লাভ জিহাদ” কর্মীদের আটকে কোন তৎপরতা চলাচ্ছে না বলে অভিযোগ রয়েছে। দীর্ঘ এক মাস অতিবাহিত হলেও কিশোরীকে উদ্ধার বা অপহরণের সাথে জড়িতদের আটক করা হয়নি।
এ ব্যাপারে তারাপাশা স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ রহিম খান জানান. ৬ষ্ট শ্রেণিতে ৫টি শাখায় ৫ শতাধিক ছাত্রছাত্রী রয়েছে। তবে শ্যামলী রানী দে নামক কোন ছাত্রীর নাম তার জানা নেই। তাছাড়া কোন অভিভাবক অপহরণের বিষয়টি তাকে অবহিত করেননি। বর্তমানে বিদ্যালয়ে গ্রীষ্মকালীন বন্ধ চলছে। বন্ধ শেষ হলে এধরনের ঘটনা সত্যতা জানা যাবে।
এ ব্যাপারে কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মতিয়ার রহমান জানান, আসলে অপহরণ জিনিসটা সঠিক নয়। তদন্তে প্রেম সংক্রান্ত বিষয় বলে জানা গেছে। ধর্মান্তরিত হয়ে বিয়েও হয়ে গেছে। তারপরও এদের আটকে পুলিশ তৎপর রয়েছে।