বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ২১ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আন্তঃনগর কালনী এক্সপ্রেস শমশেরনগর রেলওয়ে স্টেশনে স্টোপিজ না দিয়ে চলল ।। আহত-৩



kaloni-express
শমশেরনগর প্রতিনিধি ।।
আন্তঃনগর কলনী এক্সপ্রেস ১১ টা ৫৩ মিনিটে আখাউড়া-সিলেট রেলপথের শমশেরনগর রেলওয়ে স্টেশনে  স্টোপিজ না দিলে চলন্ত ট্রেন থেকে লাফ দিয়ে পড়ে ট্রেনের গার্ডসহ তিন যাত্রী আহত হয়েছেন।এদের মধ্যে একজন শমশেরনগর পুলিশ ফাড়ীর পুলিশ রহিম মিয়ার শালা অন্য দুজনের পরিচয় পাওয়া যায়নি।শমশেরনগর রেলওয়ে স্টেশন ট্রেনটি স্টোপিজ দেয়ার কথা যাত্রীরাও অপেক্ষা করছেন ট্রেনের জন্য কিন্তু হঠৎ ট্রেনটি এসে না থামিয়ে চলে যায়।

ট্রেনের অপেক্ষায় থাকা যাত্রীরা জানান, স্টেশন মাষ্টার সিগন্যাল দেননি তাই ট্রেন থামেনি। স্টেশন মাষ্টার মোহাম্মদ আজিজের সাথে কথা বললে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে বলেন, সিগন্যাল বিষয় না চালক জানেন এখানে স্টোপিজ আছে যাত্রী উঠবে এবং নামবে কিন্তু সে কেনো থামালো তা আমি বলতে পারবো না। এদিকে ট্রেন থেকে লাফ দিয়ে নামা ট্রেনের গার্ড শামসুল ইসলাম বলেন, আমি জানি ট্রেন এখানে থামবে তাই ট্রেন একটু ধির গতিতে চলাতে আমি আগে নেমে যাই কিন্তু আমি নামার সাথে সাথে ট্রেনটি চলে যায় না থামিয়ে, পরে দেখি যে ট্রেন থামার কোন সিগন্যাল নাই তাই ট্রেন চলে যায়। রেলওয়ে স্টেশনের অনেকের অভিযোগ স্টেশন মাষ্টারের অবহেলার কারণে এই দুঘর্টনা ঘটে। তারা আরো অভিযোগ করেন, ট্রেনের টিকেট ক্রয় করতে হলে দিতে হয় অতিরিক্ত টাকা না হলে টিকেট পাওয়া যায়না। শমশেরনগরের যাত্রীদের অনেকে কুলাউড়ায় গিয়ে নামেন। ওই সময় সিলেট ছেড়ে আসা ঢাকাগামী আন্তঃনগর উপবন ‘ক্রসিং’য়ের জন্য কুলাউড়া স্টেশনে দাঁড়ানো ছিল।এই সময় প্রায়ই উপবন শমশেরনগর অতিক্রম করে থাকে জানিয়ে প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, “এতে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারত।”

এ ব্যাপারে শমশেরনগর স্টেশন মাস্টার আব্দুল আজিজের ভাষ্য, ট্রেনের চালক ও পরিচালকের দায়িত্বহীনতায় এমনটা ঘটেছে। দুই যাত্রী আহত হওয়ার কথা জানালেও তাদের নাম জানাতে পারেননি তিনি। এ ঘটনায় কুলাউড়া রেলওয়ের ট্রাফিক পরিদর্শক (টিটিআই) আতাউর রহমানকে প্রধান করে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে তিনি জানান। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন স্টেশন মাস্টার, কুলাউড়া ও সিনিয়র সাব অ্যাসিস্ট্যান্ট ইঞ্জিনিয়ার (এসএসএই), সিগনাল কুলাউড়া ও লকো পরিদর্শক আখাউড়া। কমিটি তিন দিনের মধ্যে রেলওয়ের বিভাগীয় ব্যবস্থাপকের (ডিআরএমও) কাছে প্রতিবেদন দেবে।
কালনি এক্সপ্রেস ট্রেনের পরিচালক মো. আমানউল্লা  বলেন, ট্রেন থামানোর জন্য তিনি ভ্যাকুয়াম ব্যবহার করেন। তবে চালক থামাননি।

একটি সূত্র জানিয়েছে, ট্রেনে অবৈধ মাল ছিল। শমশেরনগর ষ্টেশনে বিজিবি দেখে ট্রেনের চালক ষ্টেশনে না থামিয়ে চলে যান।