শনিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অনিয়ম অব্যবস্থাপনায় চলছে কুলাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স



Kulaura Haspatal
 
এম. মছব্বির আলী, কুলাউড়া থেকে ॥
কুলাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনা চরম আকার ধারণ করেছে। এই অনিয়ম অব্যবস্থাপনার কারণে ব্যাহত হচ্ছে চিকিৎসাসেবা পাশাপাশি নষ্ট হচ্ছে মূল্যবান চিকিৎসা যন্ত্রপাতি। এতে সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন চিকিৎসাসেবা পেতে প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে ছুটে আসা নিম্নবিত্ত খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ। চিকিৎসা সেবার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সের ৩১ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালটি ২০০২ সালে ৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে উন্নীত করার পরও এখনও পর্যন্ত চিকিৎসা সেবার মান নিশ্চিত হয়নি। শুধু সাইনবোর্ড পরিবর্তন হয়েছে, বাড়েনি সেবার মান। আবাসিক রোগী থেকে শুরু করে আউটডোর রোগীরা চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। বিভিন্ন সময়ে কতৃপক্ষ প্রতিশ্র“তি দিলেও তা বাস্তবের মুখ দেখছে না। ঔষধ কিনতে হয় বাইরের ফার্মেসী থেকে। প্যাথলজি পরীক্ষাসহ সব পরীক্ষা করতে হয় প্রাইভেট ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে। সবচেয়ে বেশি দুরাবস্থার মধ্যে আছে হাসপাতালের জরুরি বিভাগ। ১৩টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার প্রায় ৪ লক্ষাধিক জনসাধারণের চিকিৎসাসেবা প্রদানকারী এই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে প্রতিদিন গড়ে শতাধিক রোগী আসেন জরুরি বিভাগে। আবাসিক বিভাগে রোগী ভর্তি হন গড়ে ৪০-৪৫ জন। বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসেন প্রায় দেড় সহস্রাধিক মানুষ। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সের অধীনে ৫টি ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে  ৩৮ চিকিৎসক পদের মধ্যে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ২ জন সহ আবাসিক চিকিৎসক আছেন ১৩ জন। অভিযোগ রয়েছে এর মধ্যে ২-৩ জন চিকিৎসক  প্রায়ই অনুপস্থিত থাকেন। বিশাল এই জনগোষ্ঠির সীমিত সংখ্যক জনবল দিয়ে চিকিৎসা কার্যক্রম মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। এতে দুর্ভোগ ও বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন চিকিৎসাসেবা নিতে আসা উপজেলার সাধারণ মানুষ। সরেজমিন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে গিয়ে দেখা যায়, জরুরি বিভাগের অবস্থা জরাজীর্ণ এবং রোগী বহনকারী স্ট্রেচারটিও নষ্ট। নেই কোন ট্রলি কিংবা হুইল চেয়ার। জরুরি বিভাগে কোন জরুরি রোগী আসলে তড়িঘড়ি করে কোনও কোনও সময় চিকিৎসা না দিয়েই অন্যত্র স্থানান্তর করে দেয়া হয়। কোনও সময় চিকিৎসা দেয়া হলেও সেই চিকিৎসা দিয়ে থাকেন হাসপাতালের বয়রা। এমনকি মাথা ফাটা রোগীর ক্ষতস্থানটি পরিস্কার না করেই সেলাই দেয়ার নজির রয়েছে। প্রয়োজনীয় কোনপ্রকার ইনজেক্শন বা ঔষধ না থাকায় মারাত্মক হুমকির মধ্যে পড়তে হয় রোগীদের। রয়েছে জরুরি বিভাগে বহিরাগত এম্বুলেন্স চালকদের দৌরাত্ম্য। ডাক্তারকে ফোর্স করা হয় অন্যত্র রেফার্ড করে দিতে। রেফার্ডকৃত রোগীদের কাছ থেকে নেয়া হয় চড়া গাড়ি ভাড়া। বিভিন্ন জায়গার মেঝেতে ময়লা আবর্জনা ফেলে রাখতে দেখা যায়। আলমারি ও বিছানা ফেলে রাখা হয়েছে যত্রতত্র। পুরাতন বিছানাপত্র বদলানো হচ্ছেনা অথচ নতুন বিছানা পড়ে থেকে নষ্ট হচ্ছে। হাসপাতালের পুরুষ ওয়ার্ডে রয়েছেন মহিলা রোগী এবং মহিলা ওয়ার্ডে পুরুষরোগী। নেই কোনও তদারকি। শিশুদের জন্য আলাদা কোনও বিছানা নেই। ওয়ার্ডের অবস্থা অত্যন্ত শোচনীয়। ময়লা আবর্জনা যত্রতত্র ফেলে রাখা হয়েছে। বাথরুমে টেপ বা পানি নেই। দুর্গন্ধে অনেক রোগী বমি করতে দেখা গেছে। অনেকে রসিকতা করে বলেন, ‘এখন হাসপাতালেরই চিকিৎসা দরকার।’ হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সের গাইনী বিভাগের ডা. রহিমা আক্তার ২০০৮ সালে কর্মস্থলে যোগদান করেন। কিন্তু ২০১১ সাল থেকে কর্তৃপক্ষকে অবহিত না করেই কর্মস্থলে অনুপস্থিত থাকেন। কর্তৃপক্ষ আরো জানান, গত বছরের ডিসেম্বরে তিনি অব্যাহতি নিয়েছেন। গাইনী বিভাগে নাজমিন আক্তার নামে একজন প্রসব রোগী নিয়ে এসেছেন তার স্বামী। কিন্তু তিন ঘন্টা ধরে সেখানে অবস্থান করার পরও কোনও ডাক্তার দেখতে আসেনি বলে অভিযোগ করেন তার স্বামী। হাসপাতালে কোন ডেলিভারি (প্রসূতি) রোগী এলে কর্তৃপক্ষ তাদেরকে মৌলভীবাজার অথবা সিলেটে প্রেরণ করেন। উচ্চ মধ্যবিত্তরা চিকিৎসা সেবা নিতে প্রাইভেট ক্লিনিক বা মৌলভীবাজার সিলেটে চলে যান। কিন্তু নিম্নআয়ের মানুষ উপায়ান্তর না দেখে ঝুঁকি নিয়ে বাড়িতেই সন্তান প্রসবের ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। এতে করে অনেক প্রসূতি মা বা সন্তানের মৃত্যুও ঘটে। যাবতীয় সরঞ্জাম থাকার পরও দীর্ঘদিন ধরে গাইনী বিশেষজ্ঞ না থাকার কারণে ব্যাহত হচ্ছে নিরাপদ প্রসব কার্যক্রম। টেকনিশিয়ান না থাকায় ১৯৯৮ সাল থেকে অকেজো পড়ে আছে এক্স-রে মেশিনটি। ১৯৯৫ সালের ৭ ফেব্র“য়ারি তৎকালীন অর্থমন্ত্রী প্রয়াত এম সাইফুর রহমান এক্স-রে মেশিনটি কুলাউড়া স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে স্থাপন করেন। গত এক বছর ধরে নতুন ইসিজি (ইলেক্ট্রোকার্ডিওগ্রাম) মেশিন প্রদান করা হলেও টেকনিশিয়ানের অভাবে সেটিও অলস পড়ে আছে। এদিকে দীর্ঘদিন থেকে টেকনিশিয়ান থাকলেও রক্ত ও প্রস্রাব পরীক্ষার জন্য রোগীদের বাইরে যেতে হয়। অনেক রোগীকে ¯ি¬প নিয়ে টেস্ট করাতে বাইরে যেতে দেখা যায়। অভিযোগ আছে ডাক্তারদের বাইরে যত্রতত্র গড়ে ওঠা ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সাথে দহরম-মহরম থাকায় রোগীদের বাইরে পাঠানো হচ্ছে। ফলে নিম্নআয়ের সাধারণ মানুষ বিপাকে পড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। হাসপাতালের এ্যাম্বুলেন্স সাধারণ রোগীরা জরুরি প্রয়োজনে পাননা। এটা প্রায় সময়ই নষ্ট হয়ে পড়ে থাকে। হাসপাতালের প্রধান ফটকে বাইরের গাড়ি প্রবেশ নিষেধ লিখা থাকলেও ভিতরে বিভিন্ন কোম্পানীর অনেকগুলো এ্যম্বুলেন্স দেখা যায়। হাসপাতালের  বহির্বিভাগে শুক্রবার ছাড়া প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত চিকিৎসকদের রোগী দেখার কথা থাকলেও নির্দিষ্ট সময়ে তাদেরকে পাওয়া যায়না। ওই সময় ২-৩ জন ডাক্তার প্রাইভেট চেম্বারে রোগী দেখায় ব্যস্ত থাকেন। আবাসিক মেডিকেল অফিসারকে তার কর্মস্থলে প্রায়ই পাওয়া যায়না বলে অভিযোগ রয়েছে। ৬ মে দুপুরে সরেজমিনে আবাসিক মেডিকেল অফিসার নুরুল হকের রুমে গেলে তিনি ছুটিতে আছেন বলে জানা যায়। ওই সময় হাসপাতালের বহির্বিভাগের আরেকজন হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডাক্তার সুলতান আহম্মেদকে তার রুমে পাওয়া যায়নি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন কর্মচারী বলেন, হাসপাতালে চেইন অব কমান্ড বলতে কিছু নেই, যার যা ইচ্ছা তাই করছে। বহির্বিভাগের চিকিৎসা নিতে আসা গিয়াসনগরের শেলী বেগম, বাদে মনসুর গ্রামের রিয়াজ মিয়া ও আলকাছুন বেগম, বরমচালের শিরীন আক্তার, জয়পাশা গ্রামের সামিরা ও নূরজাহান ক্ষোভের সুরে বলেন, ডাক্তারের জন্য অনেকক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়। তাদেরকে সময়মত পাওয়া যায়না। এছাড়াও জানান, প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী ঔষধ পাওয়া যায়নি হাসপাতালে। শুধুমাত্র হিস্টাসিন ও গ্যাস্ট্রিকের ঔষধ পাওয়া যায় বাকি ঔষধ পাওয়া যায়না বাইরে থেকে কিনতে হয়। ডিসপেন্সারির দায়িত্বরতরা প্রায়ই বলে থাকেন ঔষধ শেষ বাইরে থেকে কিনে নেন। শিরীন আক্তার বলেন, তিনি তার দুই মেয়েকে নিয়ে এসেছেন ডাক্তার দেখাতে। তার প্রেসক্রিপশনের একটি ঔষধ পাওয়া গেলেও তার সন্তানদের প্রেসক্রিপশনের ঔষধগুলো পাওয়া যায়নি। সামিরা ও নূরজাহান জানান, হাসপাতালের মূল্যবান ঔষধগুলো বাইরে বিক্রি করে দেয়া হয় তাই আমরা প্রয়োজনীয় ঔষধ পাইনা। হাসপাতালের পুরুষ ওয়ার্ডে পেটের পীড়া নিয়ে ভর্তি লাভলী বেগমের ভাই তাজুল ইসলাম জানান, তার বোনকে ৫ মে  হাসপাতালে ভর্তি করেন। কর্তৃপক্ষ মহিলা ওয়ার্ডে সিট না থাকার অজুহাত দেখিয়ে পুরুষ ওয়ার্ডের বেডে তাকে ভর্তি করায়। পরবর্তীতে মহিলা ওয়ার্ডের সিট খালি হলেও সেখানে স্থানান্তরের জন্য তিনি কর্র্তৃপক্ষকে জানালেও তারা কোন ব্যবস্থা নেয়নি। তিনি আরো বলেন, ফ্যানটি নষ্ট থাকায় গরমে সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েছেন কিন্তু কর্তৃপক্ষের কোন ভ্রুক্ষেপ নেই। অনেককে পাখা দিয়ে বাতাস করতে দেখা যায়। একই ওয়ার্ডের মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বরাদ্দ বেডে আলালপুর গ্রামের আজাদ আহমদের স্ত্রীকে ভর্তি করা হয়েছে যদিও ওই সময় মহিলা ওয়ার্ডের কয়েকটি বেড খালি ছিলো। কিন্তু তিনি মুক্তিযোদ্ধা বা মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের কেউ নন। পেটের ব্যথা নিয়ে ভর্তি কুরবানপুরের ইয়াদ আলীর পিতা লেদু মিয়া ও ব্যবসায়ী বদরুল ইসলাম একই অভিযোগ করে বলেন, সকাল ৯টায় তাদের ছেলেকে ভর্তি করেছেন কিন্তু তাদের ছেলে ব্যথায় কাতরালেও দুপুর ২টা পর্যন্ত কোন ডাক্তার দেখতে আসেননি। নার্সদের জিজ্ঞেস করলে তারা বলেন ডাক্তার আসবেন পরে। ওয়ার্ডে ময়লা-আবর্জনার ব্যাপারে নার্সদের জিজ্ঞেস করলে তারা জানান, এ ব্যাপারে তারা কিছু জানেন না তাদের স্যার বলতে পারবেন। একই ওয়ার্ডে ভর্তি বৃদ্ধা করিবুন্নেছার ছেলে প্রবাসী সেলিম মিয়া জানান, শ্বাসকষ্টজনিত কারণে তার মা’কে হাসপাতালে ভর্তি করেছেন। কিন্তু ওয়ার্ডের টয়লেটের দুর্গন্ধে তার মা আরো অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। রণজিৎ মালাকার ও আছদ্দর আলী বলেন, ঔষধ না থাকায় বাইরে থেকে কিনে আনতে হয়। তারা আরো বলেন, বিদ্যুৎ গেলে জেনারেটর ছাড়া হয়না এতে গরমে রোগীদের খুবই কষ্ট হয় এবং যতক্ষণ বিদ্যুৎ না আসে ততক্ষণ অন্ধকারে থাকতে হয়। জেনারেটর ছাড়ার কথা বললে বলা হয় জেনারেটর নষ্ট। গৌরীশংকর গ্রামের আছদ্দর আলী জানান, মঙ্গলবার ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার পর তার ছেলেকে হাসপাতালে ভর্তি করেন। ডাক্তার তার ছেলেকে পরিপূর্ণ চিকিৎসা না দিয়েই সিট কেটে দিয়েছেন। তিনি তার ছেলেকে বাড়িতে নিয়ে গিয়ে বিপদে পড়তে পারেন বলে জানান। মহিলা ওয়ার্ডে ভর্তি অসুস্থ সুফিয়া বেগমের স্বামী রিক্সাচালক সবুজ মিয়া একই অভিযোগ করেন। এছাড়াও রোগীর স্বজনরা রোগীদের সাথে নার্সদের দুর্ব্যবহারেরও কথা জানান। অনেক সময় বিছানা চাদর বা কম্বল থাকা সত্ত্বেও দেয়া হয়না বলে অভিযোগ রয়েছে। হাসপাতালে চক্ষু বিশেষজ্ঞের সাইনবোর্ড ঝুলানো থাকলেও বিশেষজ্ঞ ডাক্তারকে পাওয়া যায়নি। হাসপাতালে যেসব পদ খালি রয়েছে তার মধ্যে কনসালটেন্ট চর্ম, আই, গাইনী, এনেসথেসিয়া এবং নার্স ৬টি, সুইপার ৪টি, ফার্মাসিস্ট, এক্স-রে ও ইসিজি টেক্নেশিয়ান। এ ব্যাপারে কুলাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোঃ শাহজাহান কবির চৌধুরীর সাথে কথা বললে তিনি জানান, কুলাউড়ায় যোগদানের পর তিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট লিখিত আবেদন করেছেন এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডিজি বরাবরে এক্স-রে মেশিনটির বিষয়টি অবহিত করেছেন। তিনি আরও জানান, জুনিয়র কনসালটেন্ট (গাইনী) ডাঃ রহিমা আক্তার বেগম তাঁর কাছে অব্যাহতিপত্র পাঠিয়েছেন। এ পদের নতুন কনসালটেন্টসহ বিভিন্ন শূন্যপদে নিয়োগ দেয়ার জন্য তিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানিয়েছেন। তিনি আরোও বলেন, হাসপাতালের পানির পাইপলাইনের কাজ দীর্ঘদিন থেকে না হওয়ায় সুপেয় জলের প্রচুর সমস্যা রয়েছে। এসব ব্যাপারে শীঘ্রই ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি। জেনারেটরের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পর্যাপ্ত তেলের বরাদ্দ না থাকায় সাধারণত রাতের বেলায় জেনারেটর চালানো হয়। মৌলভীবাজার সিভিল সার্জন ডাঃ সত্যকাম চক্রবর্তীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে তড়িৎ গতিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।