শনিবার, ১ অক্টোবর ২০২২ খ্রীষ্টাব্দ | ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ বঙ্গাব্দ



timthumb.php

ডেস্ক রিপোর্ট

বাংলাদেশ  পাকিস্তানকে  হারিয়ে ৩ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ১ম বারের মতো টি২০ ম্যাচেও ৭ উইকেটের বড় জয় পেয়েছে । ১৪১ রানের জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে সাকিব আল হাসান ও সাব্বির রহমানের দুর্দান্ত ব্যাটিং ও জোড়া হাফ সেঞ্চুরিতে মাত্র ৩ উইকেট হারিয়ে ২২ বল বাকী থাকতেই ১৪৩ নিয়ে ঐতিহাসিক জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে যায় টাইগাররা। ৪১ বল মোকাবেলা করে ৯টি বাউন্ডারির সাহায্যে দলের পক্ষে তিনি সর্বোচ্চ ৫৭ রানে অপরাজিত থাকেন। একই সাথে মাত্র ৩২ বল খেলে ৭টি ৪ ও ১টি ছক্কার সাহায্যে ঝড়ো গতির ৫১ রান নিয়ে সাব্বিরও অপরজিত ছিলেন। এটি ছিল ম্যাচ সেরা সাব্বিরের ক্যারিয়ারের ১ম টি২০ ফিফটি। এছাড়া ১০ বলে ১৪ রান করেছেন তামিম ইকবাল, ১৫ বলে ১৯ রান তুলের টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। তবে সৌম্য সরকার তার অভিষেক ম্যাচটিতে একটি বলও খেলতে পারেন নি।
এর আগে আজ শুক্রবার সন্ধ্যায় মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাটিং নিয়ে ২০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে মাত্র ১৪১ রান করে সফরকারী পাকিস্তান। তবে বাংলাদেশের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের কারণে শুরুতে তেমন কোন রানই করতে পারেনি তারা। বল হাতে মুস্তাফিজুর রহমান ও সাকিব আল হাসানের দুর্দান্ত নৈপুণ্যে বড় সংগ্রহে ব্যর্থ হয় পাকিস্তান। যার ফলে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ৮ম টি২০ ম্যাচে এসে দারুন এক জয় পেয়েছে বাংলাদেশ।
১ম স্পেলে নিজের ১ম ২ ওভারে মাত্র ৫ রান দিয়েছেন অভিষিক্ত বা-হাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমান। তিনি ৪ ওভার বল করে ২০ রানের বিনিময়ে পেয়েছেন ২ উইকেট। আর সাকিব আল হাসান তার ১ম ২ ওভার বল করে দিয়েছিলেন মাত্র ২ রান। শেষ পর্যন্ত তিনি ৪ ওভার বল করে দিয়েছেন মাত্র ১৭ রান। তবে কোন উইকেট পাননি। ১টি করে উইকেট পেয়েছেন তাসকিন আহমেদ ও আরাফাত সানি।
তাসকিন আহমেদের ক্যাচে এ ম্যাচে ১ম সাফল্য পায় বাংলাদেশ। ৯ম ওভারে ১৭ রানে থাকা আহমেদ শেহজাদের ক্যাচ লং-অফে দারুণভাবে তালুবন্দী করেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। পরের ওভারেই মাত্র ১২ রানে পাকিস্তানের অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদিকে কট বিহাইন্ড করেছেন মুস্তাফিজুর রহমান। ইনিংস শেষে ২ উইকেট হারিয়ে পাকিস্তান সংগ্রহ করেছে ১৪১ রান।
পাকিস্তানে পক্ষে সর্বোচ্চ ৩৭ রান করেছেন অবিষিক্ত ওপেনার মুক্তার আহমেদ। এর জন্য তিনি ৩০ বল মোকাবেলা করেছেন; যাতে ছিল ৫টি ৪ ও ১টি ছক্কা। এছাড়া ২৬ রান করে মুস্তাফিজের এলবির ফাঁদে পড়ে বিদায় নেন মোহাম্মদ হাফিজ। তিনি ১৮ বলে ৪টি বাউন্ডারির সাহায্যে এ রান করেছেন। আর ৩০ রান নিয়ে হারিস সোহেল অপরাজিত ছিলেন। তিনি মোকাবেলা করেছেন ২৩ বল। তিনি কোন বাউন্ডারি করতে না পারলেও ১টি ছক্কা মেরেছেন। অপরদিকে শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে ইনিংসের শেষ বলে রান আউট হন ৮ রান করা সোহেল তানভির।